২৪ সেপ্টেম্বর ,সোমবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> সুখবর

 

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি প্রতিনিধি

৪ আগস্ট ,শনিবার, ২০১৮ ১৭:৫২:০২

কাপ্তাই হ্রদে মাছের বাম্পার আহরণ


কাপ্তাই হ্রদে মাছের বাম্পার আহরণ


রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে মাছের বাম্পার আহরণ হয়েছে। এরই মধ্যে ছাড়িয়েছে রাজস্ব আয়ের রেকর্ড। বৃদ্ধি পেয়েছে সব ধরনের মাছের উৎপাদন। এভাবে মাছ উৎপাদন অব্যাহত থাকলে এবছর রাজস্ব আয় অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করবে বলে মনে করছে মৎস্য কর্মকর্তরা। আর এ সুফল ভোগ করবে- জেলে, শ্রমিক, ব্যবসায়ী, মৎস্যজীবিসহ ও এ অঞ্চলের মানুষ। তবে কাপ্তাই হ্রদে মাছের ব্যাপক প্রজনন হলেও আবহাওয়া প্রতিকূলে নাথাকার কারণে মাছ উৎপাদনে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটছে বলে অভিযোগ মৎস্যজীবীদের।

রাঙামাটি বিএফডিসি সূত্রে জানা গেছে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলধারা ও বাংলাদেশের প্রধান মৎস্য উৎপাদন ক্ষেত্র রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদের টানা তিন মাস পর মাছ শিকার শুরু হয়েছে। এতে কর্মচঞ্চলতা ফিরেছে জেলে, শ্রমিক ও ব্যবসায়ীসহ মৎস্যজীবীদের মধ্যে। তিন মাস বেকার থাকার পর আবারও কর্মস্থান ফিরে পাওয়ায় খুশি শ্রমিকরা।

শুধু তাই নয় বন্ধের সময়ে কাপ্তাই হ্রদে মাছের প্রকৃতিক প্রজনন হয়েছে চাহিদার অধিক। তাই উৎপাদনও হচ্ছে বাম্পার। সরকারের রাজস্ব খাতে যেমন আয় বৃদ্ধি পেয়েছে, তেমনি দেশে মিটা পানির মাছের চাহিদাও মিটছে, আর লাভবান হচ্ছে মৎস্যজীবীরা। এরই মধ্যে জমে উঠেছে মৎস্য ব্যবসা।

রাঙামাটি ফিসারি ঘাটের মৎস্য শ্রমিক  মো. ইয়াসিন বলেন, রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে মাছ উৎপাদন স্বাভাবিক থাকলে মাছের উপর নির্ভশীল লাখো মানুষের দারিদ্রতা দূর হতে খুব একটা সময় লাগবে না।

এদিকে তিন মাস পরে নতুন করে কর্মস্ংস্থান ফিরে পেয়েছে আরেক মৎস্যজীবী মুক্তার হোসেন। তিনি বলেন, ফিসারি সচল থাকলে তারাও সচল থাকবে। কারণ কাপ্তাই হ্রদের মাছের উপর নির্ভশীল হাজারো মানুষ। এ হ্রদের মাছ অনেক মানুষের দারিদ্রতা দূর করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। কাপ্তাই হ্রদে মাছ শিকার বন্ধ থাকলে বেকার থাকতে হয় তাদের। তাই হ্রদে মাছ শিকার স্বাভাবিক হওয়াতে খুশি সবাই।

রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদের প্রথম দিন মাছ উৎপাদ হয়েছে ১১৭ মেট্টিক টন। আর রাজস্ব আয় প্রায় ১৭লাখ ৫৭হাজার টাকা। মাছের সুষ্ঠু প্রাকৃতিক প্রজনন, বংশ বিস্তারের কারণে তা সম্ভব হয়েছে। এমনভাবে হ্রদে মাছের উৎপাদন হতে থাকলে অতীতের সব রাজস্ব আয় ছাড়িয়ে যাবে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন অধিদপ্তর, রাঙামাটি জেলা ব্যবস্থাপক কমান্ডার কর্নেল মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান খাঁন আসাদ।

তিনি বলেন, গেলো বছর রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদের আহরিত মাাছের রাজস্ব আয় ছিল ১৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা। চলতি বছর মাছের উৎপাদন স্বাভাবিক থাকলে এ আয় ১৪ কোটি ছাড়িয়ে যেতে পারে। তাছাড়া রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদ দেশের কার্প জাতীয়  মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের একটি অন্যতম স্থান। এই হ্রদে প্রতি বছর প্রাকৃতিক প্রজননকৃত মাছের মধ্যে শতকরা ৩১ ভাগ কাতাল, ১২ ভাগ রুই, শতকরা ৭ ভাগ মৃগেল ও ৫১ ভাগ কালিবাউশের প্রজনন হয়। যা দেশের সামগ্রিক মৎস্য সম্পদের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে আসছে।

কিন্তু রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে কাঙ্খিত মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পেলেও মৎস্য ব্যবসায়ীদের ভাগ্য যেন পরির্বতন হচ্ছে না কিছুতেই। নেই প্রতিকূল আবহাওয়া। রয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থার নানা জঠিলতা। তাই হ্রদ থেকে ব্যাপক মাছ আহরণ করেও বাণিজ্যিকভাবে রপ্তানি করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে মৎস্য ব্যবসায়ীদের।

এ বিষয়ে রাঙামাটি ফিসারির মৎস্য ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ জানান, প্রথম দিন থেকে কাপ্তাই হ্রদে ব্যাপক মাছ আহরণ করা সম্ভব হয়েছে। কিন্তু মাঝে  মাঝে বৃষ্টিপাতের কারণে জেলেদের মাছ শিকার করতে একটু সমস্যা হচ্ছে। তবে আবহাওয়া স্বাভাবিক হয়ে গেলে এ সমস্যা কাটিয়ে উঠা সম্ভব হবে।

প্রসঙ্গত, গত ১মে দেশের সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলরাশি রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন, পোনা মাছের সুষ্ঠু বৃদ্ধি নিশ্চিতকরণসহ কাপ্তাই হ্রদের প্রাকৃতিক পরিবেশকে মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির সহায়ক হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৩ মাসের জন্য হ্রদ হতে সব প্রকার মৎস্য আহরণ, বাজারজাতকরণ এবং পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) ও রাঙামাটি জেলা প্রশাসন। এপর গত ৩১জুলাই মধ্যরাত থেকে কাপ্তাই হ্রদে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

(নিউজ টোয়েন্টিফোর/মুমু/তৌহিদ)
 


মরণোত্তর স্তন দান করলেন রাখি সাওয়ান্ত (ভিডিও)
ইন্দোনেশিয়ার আকাশে এলিয়েন? (ভিডিও)
লালমনিরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা গুলিবিদ্ধ
মেহেদীর রং লাগানো গেল না ফাহিমার হাতে
জিততে আফগানদের টার্গেট ২৫০
ভারতকে ২৩৮ রানের টার্গেট পাকিস্তানের
হাজীদের সেবাতেই আত্মতৃপ্তি তাদের
‘যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের সঙ্গে লড়াইয়ে প্রস্তুত ইরান’
কিশোরগঞ্জে বাসচাপায় বাবা-ছেলেসহ নিহত ৩
নওগাঁয় প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের অভিযোগ
শোয়েব-সরফরাজে এগুচ্ছে পাকিস্তান
৫ উইকেট হারিয়ে মহা বিপর্যয়ে বাংলাদেশ
শান্তর পর মিঠুনও আউট
টস জিতে ব্যাটিংয়ে সরফরাজরা
টস জিতে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা
বাড্ডায় বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত
তরুণীর গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়া দিল লম্পটরা
দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ
নেত্রকোনায় মাদক মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
সাতক্ষীরায় অতিরিক্ত মদপানে প্রাণ গেল যুবকের
মরণোত্তর স্তন দান করলেন রাখি সাওয়ান্ত (ভিডিও)
ইন্দোনেশিয়ার আকাশে এলিয়েন? (ভিডিও)
লালমনিরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক বিক্রেতা গুলিবিদ্ধ
মেহেদীর রং লাগানো গেল না ফাহিমার হাতে
জিততে আফগানদের টার্গেট ২৫০
ভারতকে ২৩৮ রানের টার্গেট পাকিস্তানের
হাজীদের সেবাতেই আত্মতৃপ্তি তাদের
‘যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের সঙ্গে লড়াইয়ে প্রস্তুত ইরান’
কিশোরগঞ্জে বাসচাপায় বাবা-ছেলেসহ নিহত ৩
নওগাঁয় প্রতিবন্ধী নারী ধর্ষণের অভিযোগ
শোয়েব-সরফরাজে এগুচ্ছে পাকিস্তান
৫ উইকেট হারিয়ে মহা বিপর্যয়ে বাংলাদেশ
শান্তর পর মিঠুনও আউট
টস জিতে ব্যাটিংয়ে সরফরাজরা
টস জিতে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা
বাড্ডায় বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত
তরুণীর গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়া দিল লম্পটরা
দ্বিতীয় রাউন্ডে বাংলাদেশ
নেত্রকোনায় মাদক মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
সাতক্ষীরায় অতিরিক্ত মদপানে প্রাণ গেল যুবকের
কাবা শরীফের ভেতরে ঢুকলেন ইমরান খান(ভিডিও)
আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
আ.লীগ-বিএনপির ৪০০ নেতার শপথ
শিক্ষক হলেন হাছান মাহমুদ, পড়াবেন জাহাঙ্গীরনগরে
‘মন্ত্রীর পা ধরেও সড়কের কাজ শুরু করা যায় নি’
কুড়িগ্রামে কিশোর-কিশোরীর লাশ উদ্ধার
ইসরাইলকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি
ওমরাহ ভিসায় সৌদি ভ্রমণে বিশেষ ছাড়
প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনে শিক্ষার্থী অজ্ঞান!
ট্রাম্পের গোপন বিষয়ে ‘বোমা’ ফাটালেন স্টর্মি
সুন্দরী তরুণীদের ধর্ষণ ও হত্যা করাই তার কাজ
নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৯ দালাল আটক
রোববার চালু হচ্ছে সিম্ফোনির কারখানা 
ময়মনসিংহ মেডিকেলের শিক্ষার্থী ভুটানের প্রধানমন্ত্রী!
যেসব নারীকে বিবাহ করা হারাম
নির্বাচনে দাঁড়াচ্ছেন সেই খুনি শম্ভুলাল(ভিডিও)
সন্তান জন্ম দিয়ে বিপাকে প্রবাসীর স্ত্রী
মেয়ে অসুস্থ দেশে ফিরছেন শাকিব
ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলায় নিহত বেড়ে ২৪
নওগাঁয় প্রতারক চক্রের ৪ যুবতী ও তাদের সহযোগী আটক

সব খবর