১৩ ডিসেম্বর , বুধবার, ২০১৭

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> জাতীয়

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

৪ অক্টোবর , বুধবার, ২০১৭ ১১:১২:২১

ভারতের সঙ্গে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি সই


ভারতের সঙ্গে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি সই

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে আবুল মাল আবদুল মুহিত ও অরুণ জেটলি



ভারতের সঙ্গে ৪৫০ কোটি ডলারের ঋণচুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ। আজ বুধবার সকালে সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দুই দেশের অর্থমন্ত্রীর উপস্থিতিতে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এতে বাংলাদেশের অগ্রাধিকার পাওয়া বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো প্রকল্পের বাস্তবায়ন সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের আমন্ত্রণে গতকাল দুপুরে ঢাকা এসেছেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। একটি বিশেষ বিমানে ঢাকার কুর্মিটোলায় বিমানবাহিনীর ঘাঁটি বঙ্গবন্ধুতে পৌঁছান তিনি। তাকে অভ্যর্থনা জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

আজ চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অরুণ জেটলি বলেন, ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক এখন সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বৃদ্ধির মাধ্যমে দুই দেশের সম্প্রীতির বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।

বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে ইআরডির সচিব কাজী শফিকুল আযম ও ভারতের পক্ষে এক্সিম ব্যাংক অব ইন্ডিয়ার এমডি এ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।এটি ভারতের লাইন অব ক্রেডিট (এলওসি) নামে পরিচিত। এর আগেও এলওসির আওতায় দুইবার ঋণ দিয়েছে ভারত। এটি হবে তৃতীয় ঋণ। এ নিয়ে গত ছয় বছরে বাংলাদেশকে ভারতের দেওয়া সর্বমোট ক্রেডিট লাইনের পরিমান দাঁড়ালো ৮০০ কোটি মার্কিন ডলার। 

ভারতের অর্থ সচিব সুভাষ চন্দ্র গর্গসহ কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের ৩০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল নিয়ে ঢাকা এসেছেন অরুণ জেটলি। 

তিন দিনের সফরের প্রথম কর্মসূচিতে প্রতিবেশী দুই দেশের ব্যবসায়ীদের আয়োজনে এক অনুষ্ঠানে ভারতের অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ ও ভারত সারা বিশ্বের নজর কেড়েছে। দুই দেশের অভ্যন্তরীণ উন্নয়নের ফলেই এটা সম্ভব হয়েছে। ’ দুই দেশের মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে সম্মিলিতভাবে কাজ করার ওপর জোর দিয়ে তিনি বলেন, ‘সামনের দিকে এগিয়ে নিতে হলে বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বাড়াতে হবে। ’ সোনারগাঁও হোটেলে গতকাল সন্ধ্যায় এ আলোচনা অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ দুই দেশের বাণিজ্যের পাল্লা ভারতের দিকে ঝুঁকে থাকার বিষয়টি তুলে ধরে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে ভারতের অর্থমন্ত্রীকে অনুরোধ জানান।