২৪ ফেব্রুয়ারি ,রবিবার, ২০১৯

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> জাতীয়

 

এনআরবি নিউজ, নিউইয়র্ক থেকে:

২৯ আগস্ট , বুধবার, ২০১৮ ১৯:৪৭:৪৩

নিরাপত্তা পরিষদে বাংলাদেশের ৪ দফা

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে নিরাপত্তা পরিষদকে দায়িত্ব নেয়ার আহ্বান


রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে নিরাপত্তা পরিষদকে দায়িত্ব নেয়ার আহ্বান

নিরাপত্তা পরিষদের সভায় বক্তব্য রাখছেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ। ছবি-এনআরবি নিউজ।


মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে রোহিঙ্গাদের জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত করার বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ২৮ আগস্ট মঙ্গলবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ এক উন্মুক্ত ব্রিফিং -এর আয়োজন করে। নিরাপত্তা পরিষদের চলতি আগস্ট মাসের প্রেসিডেন্ট যুক্তরাজ্য এই আলোচনার আয়োজন করে। সেখানে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মর্যাদার সঙ্গে পত্যাবাসনে নিরাপত্তা পরিষদকে দায়িত্ব নেয়ার আহ্বান জানানো হয়।

আলোচনায় বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেজ, ইউএনডিপি’র অ্যাসোসিয়েট অ্যাডমিনিস্ট্রেটর তেগেগনিঅর্ক গেট্টু এবং ইউএনএইচসিআর এর শুভেচ্ছা দূত ও একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী কেইট্ ব্লানশেট।

সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাজ্যের কমনওয়েলথ্ ও জাতিসংঘ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী লর্ড তারিক মাহমুদ আহমাদ। নিরাপত্তা পরিষদের ১৫টি সদস্য রাষ্ট্রের বাইরে এই সভায় বাংলাদেশ ও মিয়ানমার বক্তব্য প্রদান করে।

জাতিসংঘ মহাসচিব গত জুলাই মাসে তাঁর কক্সবাজার সফরের সময় বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের যে সকল মর্মস্পর্শী বর্ণনা শুনেছেন তা এই সভায় উপস্থাপন করেন। মহাসচিব বলেন, “ইতোমধ্যে এক বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। এই সমস্যা অনির্দিষ্টকাল ধরে চলতে পারে না। নিরাপত্তা পরিষদ প্রেসিডেন্সিয়াল স্টেটমেন্ট গ্রহণে একতা দেখিয়েছিল, এই একতা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন যদি আমরা যথাযথ কাজের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের দাবি পূরণ করতে চাই।'' 
মহাসচিব গুতেরেজ কফি আনান কমিশনের সুপারিশমালার পূর্ণ বাস্তবায়নের কথা পূনরুল্লেখ করেন। জাতিসংঘ এবং এর বিভিন্ন সংস্থাসমূহকে রাখাইন প্রদেশে বাধাহীন প্রবেশাধিকার দেওয়ার জন্য মিয়ানমারের প্রতি আহ্বান জানান জাতিসংঘ মহাসচিব। একবছর ধরে রোহিঙ্গা ইস্যুতে তাঁর ব্যক্তিগত পদক্ষেপসহ জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যে সকল পদক্ষেপ নিয়েছে সে সব উল্লেখ করেন মহাসচিব।

‘আমরা যেন আর ব্যর্থ না হই’-এই আহ্বান জানিয়ে ইউএনএইচসিআর এর শুভেচ্ছা দূত কেইট্ ব্লানশেট বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে নিরাপত্তা পরিষদকেই দায়িত্ব নিতে হবে।’ এক্ষেত্রে রাজনৈতিক মতভেদের উর্ধ্বে উঠে নিরাপত্তা পরিষদের সকল সদস্যকে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

গত একবছর ধরে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রোহিঙ্গা ইস্যুটি সামনে রেখে এর সমাধানে কাজ করে যাওয়ার জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি ধন্যবাদ জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন।

নিরাপত্তা পরিষদের সভায় বক্তব্য রাখছেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। ছবি-এনআরবি নিউজ।

রাষ্ট্রদূত মাসুদ গত বছর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উত্থাপিত পাঁচ দফা সুপারিশের কথা উল্লেখ করেন। প্রধানমন্ত্রীর এই সুপারিশমালার ভিত্তিতেই রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হতে পারে বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ। 

রাষ্ট্রদূত আরও বলেন, "রোহিঙ্গাদের মানবিক সহযোগিতা প্রদানের ক্ষেত্রে জাতিসংঘের পদক্ষেপসমূহের টেকসই বাস্তবায়নে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আরও উদারভাবে এগিয়ে আসতে হবে। তা না হলে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা ও আশ্রয়দানকারী দেশ হিসেবে বাংলাদেশের জন্য এটি মারাত্মক হুমকি হয়ে দেখা দেবে।''

‘গণহত্যার উদ্দেশ্য নিয়ে পূর্ব-নির্ধারিত এবং সুপরিকল্পিত পদ্ধতি অনুসরণ করেই অপরাধীরা এই হীন অপরাধ সংঘটিত করেছে’ -মানবাধিকার কাউন্সিলের স্বাধীন ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের রিপোর্টের এই উদ্ধৃতি দেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ। তিনি বলেন, মিয়ানমারে ফেরত যাওয়ার ব্যাপারে রোহিঙ্গাদের মধ্যে আস্থা ও বিশ্বাস তৈরি করার জন্য মিয়ানমারকেই এগিয়ে আসতে হবে।  রাখাইন প্রদেশে স্থায়ী প্রত্যাবাসনের পরিবেশ তৈরি হলেই কেবল বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা ফিরে যাওয়ার জন্য স্বপ্রণোদিত হয়ে এগিয়ে আসবে। প্রত্যাবাসনের পরিবেশ তৈরিতে তিনি মিয়ানমার কর্তৃক চারটি আশু পদক্ষেপ বাস্তবায়নের সুপারিশ করেন।
১. রাখাইন প্রদেশের ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাম ও শহরগুলোতে প্রয়োজনীয় মানবিক ও উন্নয়নমূলক কর্মসূচি বাস্তবায়নে ইউএনডিপি ও ইউএনএইচসিআর-কে বাধাহীনভাবে প্রবেশাধিকার দিতে হবে যা মিয়ানমারের সাথে সম্পাদিত তাদের সমঝোতা স্মারকে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

২. বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সীমান্তে আটকে থাকা কয়েক হাজার রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত নেওয়া এবং ফেরত না নেওয়া পর্যন্ত মিয়ানমারের পক্ষ থেকেই তাদের মানবিক সহায়তা প্রদান করতে হবে।

৩.রাখাইন স্টেটের আইডিপি ক্যাম্প উন্মুক্ত করে দিতে হবে এবং সেখানে আটক মানুষেরা যাতে নিজ বাসভূমিতে বা তাদের অন্য কোন পছন্দনীয় স্থানে পূর্ণ অধিকার ও স্বাধীনতা নিয়ে টেকসইভাবে প্রত্যাবর্তন করতে পারে তার ব্যবস্থা নিতে হবে।

৪.রাখাইন রাজ্যের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে বিশ্বাস ও পূর্বাবস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে এবং হিংসা উদ্রেককারী বক্তব্য ছড়ানো যা সহিংসতা ও উত্তেজনা সৃষ্টি করে তা দমন করতে হবে।

রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর সাম্প্রতিক মিয়ানমার সফরের কথা উল্লেখ করেন। সদ্য প্রয়াত জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে রাষ্ট্রদূত মাসুদ বলেন, আমরা যদি কফি আনান কমিশনের পূর্ণ বাস্তবায়নের মাধ্যমে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে পারি তবেই তার বিদেহী আত্মার প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা হবে। 

জোরপূর্বক বাস্ত্যুচ্যুত হয়ে সীমান্ত পেরিয়ে দু:খ ও দুস্বপ্নের এক বছর উপলক্ষে কক্সবাজারের ক্যাম্পে জড়ো হওয়া রোহিঙ্গা নর-নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের হাতে বিভিন্ন শ্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ডের একটি লেখা “এক বছর কেঁদেছি, এখন আমি ক্রোধান্বিত” উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত বলেন, “এই শোকানুভূতি এবং ক্রোধের প্রতিধ্বনি আজ এই কাউন্সিলে আমরা শুনতে পেলাম”। তিনি প্রত্যাশা করেন, মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আস্থা পুনরুদ্বারের মাধ্যমে তাদেরকে স্বেচ্ছায় নিজভূমিতে প্রত্যাবাসনের বিষয়ে অনতিবিলম্বে পদক্ষেপ নেবে।

জাতিসংঘে নিযুক্ত মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত হাউ দু সুয়ান তাঁর বক্তব্যে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে মিয়ানমার সরকার গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করেন। যদিও তার এসব বক্তব্য অনেকের কাছেই হাস্যকর বলে মনে হয়। রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমারের মায়াকান্নার প্রতিচ্ছবির প্রকাশ ঘটে রাষ্ট্রদূত কর্তৃক এক পর্যায়ে কেঁদে ফেলার ঘটনার মধ্য দিয়ে। যা ছিল কূটনীতিক রীতি-নীতির পরিপন্থি। রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ওপর মিয়ানমার প্রশাসনের বর্বরতার লোমহর্ষক ঘটনাবলি কক্সবাজারের শরনাথী শিবির পরিদর্শনকারিরা সবিস্তারে অবহিত হয়েছেন। নারী ও শিশুদের নির্বিচারে হত্যা, বসতবাড়িতে আগুন লাগিয়ে উল্লাস করার ঘটনাবলিও জেনেছেন আন্তর্জাতিক সংস্থার শীর্ষ কর্মকর্তারা। সেই হিংসাত্মক আচরণকে ধামাচাপা দিতে মিয়ানমারের এই রাষ্ট্রদূতের মেকি কান্নায় চিড়া ভেজেনি বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন।


‘আমরা শান্তিপ্রিয়, তবে হুমকির মুখে ভীত নই’
‌‘যুদ্ধে বিজয়ী হতে সব করবে ভারত’
জাজাই তাণ্ডবে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড চুরমার
চকবাজারে ফের আগুন আতঙ্ক
মুশফিকের টেস্ট খেলা অনিশ্চিত!
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় জাতিসংঘের শোক
‘৮ লাখ ফেরত পাঠানোর চেষ্টা চলছে’
বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে যা বললেন বিরাট
ভারতে বিস্ফোরণে ১১ জন নিহত
‘হেফজতিরাও কাদিয়ানী হামলায় জড়িত’  
‘পাহাড়ে আগের মতো আনন্দ নেই’
অস্ট্রেলিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন 
জমি নিয়ে সংঘর্ষে গেল দুই প্রাণ
চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, ক্লিনিকে হামলা
‘ট্রাম্প পছন্দ করে, তাই বিস্মিত করবে ইরান’
‘গ্যাস সিলিন্ডার থেকেই আগুন লাগে’
আসামে মদপানে মৃত বেড়ে ৮৪
সেফটিক ট্যাংকে যুবকের লাশ
কক্সবাজারে গোলাগুলিতে নিহত ২
ইভটিজিংয়ের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘আমরা শান্তিপ্রিয়, তবে হুমকির মুখে ভীত নই’
‌‘যুদ্ধে বিজয়ী হতে সব করবে ভারত’
জাজাই তাণ্ডবে অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ড চুরমার
চকবাজারে ফের আগুন আতঙ্ক
মুশফিকের টেস্ট খেলা অনিশ্চিত!
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় জাতিসংঘের শোক
‘এমএ পাস’ ওসি দিচ্ছেন এসএসসি পরীক্ষা
‘৮ লাখ ফেরত পাঠানোর চেষ্টা চলছে’
বিশ্বকাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে যা বললেন বিরাট
ভারতে বিস্ফোরণে ১১ জন নিহত
‘হেফজতিরাও কাদিয়ানী হামলায় জড়িত’  
‘পাহাড়ে আগের মতো আনন্দ নেই’
অস্ট্রেলিয়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন 
জমি নিয়ে সংঘর্ষে গেল দুই প্রাণ
চিকিৎসকের অবহেলায় রোগীর মৃত্যু, ক্লিনিকে হামলা
‘ট্রাম্প পছন্দ করে, তাই বিস্মিত করবে ইরান’
‘গ্যাস সিলিন্ডার থেকেই আগুন লাগে’
আসামে মদপানে মৃত বেড়ে ৮৪
সেফটিক ট্যাংকে যুবকের লাশ
কক্সবাজারে গোলাগুলিতে নিহত ২
মোদিকে বড় ভাই বললেন সালমান, ব্যাপক বিক্ষোভ
ঘর ভাঙলো কমেডি অভিনেতা সিমান্ত ও মীমের
শ্বশুরবাড়ির সবাইকে অচেতন করে শ্যালিকাকে ধর্ষণ!
পাকিস্তানিদের ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিল ভারত
'আধুনিক একটি গাড়িও উদ্ধারকাজে ব্যবহার করতে পারিনি'
গর্ভবতী স্ত্রী নামতে পারেননি, তাই নামেননি স্বামীও
ভারতে মধ্য আকাশে ২ বিমানের সংঘর্ষ
আইপিএলের প্রথম পর্বের সূচি প্রকাশ
ভারত-পাকিস্তানকে যা বলল জাতিসংঘ
‘এমএ পাস’ ওসি দিচ্ছেন এসএসসি পরীক্ষা
চকবাজারে ফের আগুন আতঙ্ক
জার্মান সাংবাদিকদের ওপর রোহিঙ্গাদের হামলা
সাঈদীর ছেলে মাসুদ সাঈদী কারাগারে
'আক্রমণ করলে প্রত্যুত্তরে জন্য প্রস্তুত রয়েছে পাকিস্তানও'
চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে স্বজনদের আহাজারি
‘আত্মঘাতি বোমা হামলাকারী পাকিস্তানের’
বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে চায় আমিরাতের দুই কোম্পানি
চকবাজারে আগুনের ঘটনায় মমতার শোক
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭০টি মরদেহ উদ্ধার: আইজিপি
১২ কেজি গাঁজাসহ ৬ মাদক ব্যবসায়ী আটক

সব খবর