১৪ নভেম্বর , বুধবার, ২০১৮

শিরোনাম

> অন্যান্য >>

>> ধর্ম-জীবন

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

১৪ সেপ্টেম্বর ,শুক্রবার, ২০১৮ ১৪:০২:৩১

৩০ দেশ পাড়ি দিয়ে হেঁটে হজে গিয়েছিলেন মহিউদ্দিন


৩০ দেশ পাড়ি দিয়ে হেঁটে হজে গিয়েছিলেন মহিউদ্দিন

সাবেক ইমাম হাজী মো. মহিউদ্দিন


দিনাজপুর রামসাগর জাতীয় উদ্যানে ঢুকে পশ্চিমের রাস্তা ধরে কিছুদুর যেতেই চোখে পড়বে পাষাণ বাঁধা ঘাট আর পশ্চিম দিকে দেখা যাবে একটি মসজিদ। সেখানেই দেখা মিলবে এক বৃদ্ধ মানুষের, যিনি রামসাগরে আগত সকল পর্যটককে আহ্বান জানাচ্ছেন দীঘিপাড়া হাফেজিয়া ক্বারিয়ানা মাদ্রাসা ও এতিমখানায় দান করার জন্য।

এই মানুষটিই বাংলাদেশ থেকে হেঁটে সৌদি আরব গিয়ে পবিত্র হজ পালন করেছেন। তিনি হলেন দিনাজপুর সদর উপজেলার রামসাগর দিঘীপাড়া গ্রামের মৃত ইজার পণ্ডিত ও মমিরন নেছার ছেলে এবং জাতীয় উদ্যানের বায়তুল আকসা জামে মসজিদের সাবেক ইমাম হাজী মো. মহিউদ্দিন।

পায়ে হেঁটে হজ করতে যেতে তার সময় লেগেছিলো ১৮ মাস। এ ১৮ মাসে তিনি পাড়ি দিয়েছেন কয়েক হাজার কিলোমিটার পথ। এ সময় তিনি সফর করেছেন ৩০টি দেশ। আর যে দেশগুলো তিনি সফর করেছেন সেগুলোর নাম এখনও মুখস্থ বলতে পারেন।

১৯১৩ সালে জন্ম নেওয়া এই অদম্য মানুষটির বয়স এখন ১০৫ বছর। হাজী মহিউদ্দিন দীর্ঘদিন রামসাগরে অবস্থিত বায়তুল আকসা মসজিদের ইমাম ছিলেন।

সম্প্রতি দেশের শীর্ষস্থানীয় এক অনলাইন সংবাদ মাধ্যমের সাথে কথা হয় হাজী মো. মহিউদ্দিনের। পায়ে হেঁটে হজ পালন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ১৯৬৮ সালে হজ করার উদ্দেশ্যে পায়ে হেঁটে দিনাজপুর থেকে রওনা দেন৷ দিনাজপুর থেকে রংপুর হয়ে প্রথমে ঢাকার কাকরাইল মসজিদে যান।

সেখানে গিয়ে পায়ে হেঁটে হজ পালনের ইচ্ছে প্রকাশ করলে, তৎকালীন কাকরাইল মসজিদের ইমাম মাওলানা আলী আকবর হেঁটে যেতে ইচ্ছুক অন্য ১১ জন হাজীর সঙ্গে তাকে পরিচয় করিয়ে দেন। 

শুরু হয় ১২ জনের হজযাত্রা। চট্টগ্রাম দিয়ে ভারত হয়ে পাকিস্তানের করাচি মক্কি মসজিদে গিয়ে অবস্থান করে সৌদি আরবের ভিসার জন্য আবেদন করেন।৮ দিন পর সৌদি ভিসা পান। পাসপোর্ট ও ভিসা করতে খরচ হয় ১২শ টাকা।

ভিসা পেয়ে পাকিস্তানের নোকঠি সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ইরানের রাজধানী তেহরানে যান। এরপর ইরাকের রাধানী বাগদাদ ও কারবালা দিয়ে মিশর পৌঁছান। সেখানকার পিরামিডে ফেরাউনের মমি দেখার ইচ্ছেও পূরণ হয় মহিউদ্দিনের।

অবশেষে সৌদি আরবে হজ পালন করেন তিনি।হজ শেষে আল্লাহর রাস্তার ধুলো পায়ে লাগিয়ে হেঁটে হেঁটেই ফিরে আসেন নিজ পরিবারের কাছে। এ সময় তিনি ৩০টি দেশ পাড়ি দেন।

এমন কষ্ট করে হজ পালন প্রসঙ্গে তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর সবচেয়ে পবিত্র স্থান থেকে ঘুরে আসার অনুভূতি বলে প্রকাশ করা যাবে না। নিজেকে ধন্য মনে করি।হজ যাত্রায় কোনো কষ্ট করেছি বলে মনে হয় না।’

উল্টো তিনি বলেন, ‘কষ্ট করেছেন আমার সহধর্মিনী আবেদা বেগম। অভাব অনটনের মধ্যে আমার ইচ্ছের প্রতি গুরুত্ব দিয়ে আমাকে উৎসাহিত করেছেন।’ স্ত্রীকে নিয়ে তিনি বেশ ভালো আছেন বলেও মন্তব্য করেন।

হাজী মহিউদ্দিন বলেন, ‘আমার ৪ মেয়ে ও ২ ছেলে, সবার বিয়ে হয়ে গেছে।এখন অভাব বলে কিছু নেই।সবাই সুখে-শান্তিতে আছে।

হাজী মো. মহিউদ্দিন বয়সের কারণে মসজিদের ইমামতি ছেড়ে দিয়েছেন। মেয়েদের সহযোগিতায় বেশ চলে যায় তার সংসার। সময় কাটে রামসাগর দীঘিপাড়া হাফেজিয়া ক্বারিয়ানা মাদ্রাসা ও এতিমখানার জন্য মানুষের কাছে সহায়তা চেয়ে।

হজ পালন করতে সে সময় কত টাকা খরচ হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পাসপোর্ট ও ভিসা করতে খরচ হয় ১২শ টাকা আর ১৮শ টাকা নিয়ে বাড়ি থেকে রওয়ানা দেন। কিন্তু পথে ১২ জন হাজির দল দেখে যেখানেই খেতে গেছেন, কেউ টাকা নেননি। ফিরে আসার সময়ও একই অবস্থা। এ কারণে কোনো টাকা খরচ হয়নি। পুরো টাকাই তার ফেরত এসেছিল।

বয়সের ভারে মুড়িয়ে যাওয়া হাজী মো. মহিউদ্দিনের দৃষ্টিশক্তি ও শ্রবণ শক্তি কিছুটা কমে গেছে। লাঠি ছাড়া ঠিকমত হাঁটতে পারেন না আর। কিন্তু সে সময়ের কোনো স্মৃতিই তিনি ভুলে যাননি। কেউ জিজ্ঞাসা করতেই মুখ থেকে ঝরতে থাকে কথার ফুলঝুরি। সকলের কাছে বলতে চান সেসব দিনের কথা। সর্বোপরি তিনি সবাইকে একবার হলেও আল্লাহর ঘর তাওয়াফ করার আহ্বান জানান।


অরিন▐ NEWS24


'দাবিগুলো বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে ইসি'
চট্টগ্রামে পুলিশ বক্স ভাংচুর, গাড়িতে আগুন
'নয়াপল্টনে হামলাকারীদের ভিডিও ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা'
‘বিনা উসকানিতে’ এটা করল বিএনপি: কাদের
‘আমাদের নির্বাচনে যাওয়ার দরকার নেই’
লালমনিরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা গুলিবিদ্ধ
ফকিরাপুল-কাকরাইল বিএনপির দখলে
ডেসটিনি চেয়ারম্যানের ৩ বছর কারাদণ্ড
নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ
খালেদার মুক্তি নিয়ে প্রশ্নে জাতিসংঘ নিশ্চুপ
বিকেলে ঢাকায় আসছে উইন্ডিজ দল
‘থ্যাংক ইউ পিএম’ প্রচার আইনের লঙ্ঘন: রিজভী
ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলে নিহত বেড়ে ৫০
নাটোরে নৈশকোচের চাপায় বৃদ্ধা নিহত
অতিরিক্ত ফি আদায়, এলাকাবাসীর প্রতিবাদ সভা
আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার আজ
বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার ১৮ নভেম্বর
আবারও ব্যর্থ ইমরুল-লিটন
চীন সফরে বিএনপির প্রতিনিধি দল
দেয়ালে মাথা আটকে পড়া শিশুকে উদ্ধার
'দাবিগুলো বিবেচনার আশ্বাস দিয়েছে ইসি'
চট্টগ্রামে পুলিশ বক্স ভাংচুর, গাড়িতে আগুন
'নয়াপল্টনে হামলাকারীদের ভিডিও ফুটেজ দেখে ব্যবস্থা'
পীরগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
কালীগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় অজ্ঞাত নারী নিহত 
ভুরুঙ্গামারীতে হানাদার মুক্ত দিবস পালন 
নোয়াখালীতে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস পালিত
‘বিনা উসকানিতে’ এটা করল বিএনপি: কাদের
‘আমাদের নির্বাচনে যাওয়ার দরকার নেই’
লালমনিরহাটে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা গুলিবিদ্ধ
ফকিরাপুল-কাকরাইল বিএনপির দখলে
ডেসটিনি চেয়ারম্যানের ৩ বছর কারাদণ্ড
নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ
খালেদার মুক্তি নিয়ে প্রশ্নে জাতিসংঘ নিশ্চুপ
বিকেলে ঢাকায় আসছে উইন্ডিজ দল
‘থ্যাংক ইউ পিএম’ প্রচার আইনের লঙ্ঘন: রিজভী
ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলে নিহত বেড়ে ৫০
নাটোরে নৈশকোচের চাপায় বৃদ্ধা নিহত
অতিরিক্ত ফি আদায়, এলাকাবাসীর প্রতিবাদ সভা
আ.লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার আজ
ইতালিতে সন্তান হলে জমি পুরস্কার
নির্বাচন করবেন হিরো আলম!
৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’: রব
বিএনপিকে চাঙ্গা করতে আসছেন জোবাইদা
মাশরাফির নির্বাচন নিয়ে যা বললেন তার বাবা
চীন সফরে বিএনপির প্রতিনিধি দল
নির্বাচনের তারিখ চূড়ান্ত করেছে ইসি!
জিম্বাবুয়েতে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৪৭
বিএনপির কাছে ১০০ আসন চাচ্ছেন শরিকরা
হামাসের ক্ষেপণাস্ত্রে ইসরাইলের সেনাবাস ভস্মীভূত
মৃত্যুর আগে যে কথা বলেন খাসোগি
আওয়ামী লীগের মনোনয়নপত্র কিনবেন মাশরাফি
সংসদ নির্বাচনে যাচ্ছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট
চাঁদা চাওয়া সেই এসআই বরখাস্ত
খাসোগি হত্যাকাণ্ডে ইসরায়েলি প্রযুক্তি
২০ দল বেড়ে হলো ২৩ দলীয় জোট
একসঙ্গে দুই বোনের আত্মহত্যা!
স্ত্রীর নগ্ন ভিডিও পর্ন সাইটে ছড়িয়ে দিল স্বামী!
বয়স বাড়বে কিন্তু শক্তি কমবে না
'মহাজোট থেকে জাতীয় পার্টি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ'

সব খবর