১৯ ডিসেম্বর , বুধবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> জাতীয়

 

ইসমত আরা ইসু, কক্সবাজার

১৩ নভেম্বর ,মঙ্গলবার, ২০১৮ ১৬:২২:২২

অবশেষে শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন


অবশেষে শুরু হচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন

নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা এক রোহিঙ্গা শিশু


আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে অনেক জলঘোলার পর অবশেষে শুরু হতে যাচ্ছে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কার্যক্রম। মিয়ানমার-বাংলাদেশ সমন্বয়ে গঠিত জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রত্যাবাসনের জন্য টেকনাফের কেরুনতলী ট্রানজিট ক্যাম্প প্রস্তুত করা হয়েছে। অপরদিকে বান্দরবানের ঘুমধুমে আরো একটি ট্রানজিট ক্যাম্প প্রায় সম্পন্নের পথে। নাগরিকত্ব, বসতভিটা, জমিজমা ফিরিয়ে দিয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হলে নিজ দেশ মিয়ানমারে ফিরতে রাজি রোহিঙ্গারা। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে রোহিঙ্গাদের প্রথম ধাপের প্রত্যাবাসন কার্যক্রম আগামী ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।

গত বছরের ২৪ আগস্ট মিয়ানমারে নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশি চৌকিতে হামলার পর রাখাইনে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর ঝাপিয়ে পড়ে মিয়ানমার বাহিনী। চালায় নারকীয় হত্যাযজ্ঞ, ধর্ষণ, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ। নিপীড়নের মুখে গত বছরের ২৫ আগস্ট থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে ৭ লাখেরও অধিক রোহিঙ্গা। এর পূর্ব থেকে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাসহ ১১ লাখের অধিক রোহিঙ্গা কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টি ক্যাম্পে অস্থায়ীভাবে অবস্থান নেয়। বাংলাদেশ সরকারের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ও দেশীয় বিভিন্ন সংস্থা তাদের অন্ন, বস্ত্র, শিক্ষা, চিকিৎসা, অস্থায়ী বাসস্থানসহ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করে। পাশাপাশি রোহিঙ্গাদের নিরাপদে ও স্বসম্মানে স্বদেশে ফেরৎ পাঠাতে কুটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখে সরকার। 

আন্তর্জাতিক চাপের মুখে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে ২০১৭ সালের নভেম্বরে বাংলাদেশ-মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তি হয়। রোহিঙ্গাদের নিরাপদ প্রত্যাবাসনের লক্ষ্যে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে দুই দেশের সমন্বয়ে গঠিত জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সভায় একটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর হয়। স্মারকের অংশ হিসেবে বাংলাদেশ মিয়ামারের কাছে ৮ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা পাঠায়। যাচাই-বাছাই শেষে মিয়ানমার ওই তালিকা থেকে ৫ হাজার ৫০০ জনকে প্রত্যাবাসনের ছাড়পত্র দেয়। গত ৩০ অক্টোবর জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সভায় প্রথম ধাপে ২ হাজার ২৫১জন রোহিঙ্গাকে প্রত্যাবাসনের বিষয় চুড়ান্ত করা হয়। চুক্তি অনুযায়ী প্রতিদিন ফেরত নেওয়া হবে ১৫০ জন রোহিঙ্গা। রোহিঙ্গাদের প্রথম ধাপের প্রত্যাবাসন কার্যক্রম ১৫ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। প্রত্যাবাসনের জন্য টেকনাফের কেরুনতলী ট্রানজিট ক্যাম্প প্রস্তুত করা হয়েছে। অপরদিকে বান্দরবানের ঘুমধুমে আরো একটি ট্রানজিট ক্যাম্প প্রায় সম্পন্নের পথে। 

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন কার্যক্রম ফলপ্রসু করার জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে প্রশাসন।

গত অক্টোবর মাসের ৩০ তারিখ জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপের সভায় মিয়ানমারের পররাষ্ট্র সচিব মিন থোয়ের কাছে আরো ৫ হাজারের অধিক পরিবারের ২২ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা হস্তান্তর করা হয়েছে। এর পরের দিন ৩১ অক্টোবর কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেন তিনি। পরিদর্শন শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, প্রত্যাবাসনের পর রোহিঙ্গাদের প্রথমে মংডু শহরে স্থাপিত আইডিপি ক্যাম্পে নেওয়া হবে। এরপর নিজেদের গ্রামে ফেরত যেতে পারবে। মিয়ানমারের পক্ষ থেকে ফেরত যাওয়া রোহিঙ্গাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ মানবিক বিষয়গুলো নিশ্চিত করারও প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। চলতি নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রত্যাবাসনের বিষয়টিও নিশ্চিত করেন তিনি।


জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইফুল, ফের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা
সাতক্ষীরায় পিকআপ চাপায় নাতি-নানি নিহত
'মাহবুব তালুকদারের কথা সত্য নয়'
'ব্যাংক জালিয়াতির হোতাদের শাস্তির  আওতায় আনা হবে'
'ক্ষমতায় গেলে কারও ওপর প্রতিশোধ নেয়া হবে না'
'ভয়ভীতি ত্রাসমুক্ত নির্বাচন দেখতে চান যুক্তরাষ্ট্র'
'সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট প্রকল্প দেয়া হবে'
মুন্সিগঞ্জে দিনে দুপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২
সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজ করছে: সিইসি
 বিএনপির ইশতেহারে যা আছে
আগে দাবি, পরে চিকিৎসা: লতিফ সিদ্দিকী
বিএনপি-জামায়াত ভোট ও রাজপথে ব্যর্থ: আইনমন্ত্রী
সারাদেশে বিজিবি মোতায়েন
জামিন পেলেন ব্যারিস্টার মইনুল
হঠাৎ ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার জঙ্গিবিমান, উত্তেজনা
খালেদা জিয়ার নির্বাচন করা হচ্ছে না
২ লাখ মানুষকে চাকরি দেবে বিএনপি
‘ক্ষমতায় গেলে গ্রামকে শহর করা হবে’
বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৩
যে যোগাসন চর্চায় বাড়ে মিলনে স্ফুর্তি
আগামী ২৪ ঘণ্টায় বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা 
'নির্বাচনের দিন রোহিঙ্গা ক্যাম্প সিল করে দেয়া হবে'
জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি সাইফুল, ফের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা
সাতক্ষীরায় পিকআপ চাপায় নাতি-নানি নিহত
নাটোরে ১৪ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
'ভোটের দিন অফিস আদালত বন্ধ থাকবে'
খুলনায় বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেই প্রচারণা
বৃষ্টি উপেক্ষা করে নির্বাচনী প্রচারণায় প্রার্থীরা
'মাহবুব তালুকদারের কথা সত্য নয়'
'ব্যাংক জালিয়াতির হোতাদের শাস্তির  আওতায় আনা হবে'
'ক্ষমতায় গেলে কারও ওপর প্রতিশোধ নেয়া হবে না'
'ভয়ভীতি ত্রাসমুক্ত নির্বাচন দেখতে চান যুক্তরাষ্ট্র'
নসিমন চালককে পেটানো সেই মেয়র আটক
'সাংবাদিকদের জন্য ফ্ল্যাট প্রকল্প দেয়া হবে'
মুন্সিগঞ্জে দিনে দুপুরে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২
সুষ্ঠু পরিবেশ বিরাজ করছে: সিইসি
 বিএনপির ইশতেহারে যা আছে
আগে দাবি, পরে চিকিৎসা: লতিফ সিদ্দিকী
বিএনপি-জামায়াত ভোট ও রাজপথে ব্যর্থ: আইনমন্ত্রী
সারাদেশে বিজিবি মোতায়েন
রিকশাচালককে পেটানো আ.লীগ নেত্রী বহিষ্কার
পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ, প্রার্থীসহ গুলিবিদ্ধ ৭
খালেদা জিয়া ৯, হিরো আলম ১০
বিশ্বের শীর্ষ পর্নো তারকারা এখন কে কোথায়!
জয়নুল আবদিন ফারুকের গাড়িবহরে হামলা
আইপিএল নিলামে মুশফিক-মাহমুদুল্লাহর মূল্য কত?
কর্নেল অলির ছেলের ওপর হামলা, আঙুল কর্তন
আব্বাসের মেয়ে সন্ত্রাসী, ভাবতে অবাক লাগে: কাদের
মাহাবুব উদ্দিন খোকন গুলিবিদ্ধ
রাখাইন ভাষায় আ.লীগ প্রার্থীর পোস্টার 
বিএনপির প্রার্থী আবু আশফাক গ্রেপ্তারের অভিযোগ
আ.লীগ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত ২০
‘বাধা দিলে প্রতিরোধের ক্ষমতা আমি রাখি’
ঐক্যফ্রন্টে আ.লীগের চেয়ে বেশি মুক্তিযোদ্ধা: মান্না
ফখরুলের গাড়িতে হামলা অনাকাঙ্ক্ষিত: সিইসি
বাবাকে পুলিশে দিল ৭ বছরের মেয়ে
জামবুড়া গাছের ডালে প্রেমিক-প্রেমিকার লাশ!
‘সৌদি নেতৃত্বাধীন পিজিসিসি’র দাঁত নেই’
১১ বছরের শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যা!
লতিফ সিদ্দিকীর ‘অভিনব প্রতিবাদ’

সব খবর