১৮ জানুয়ারী ,শুক্রবার, ২০১৯

শিরোনাম

> প্রবাস

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

১৯ নভেম্বর ,রবিবার, ২০১৭ ১২:৪৯:২৬

মধ্যপ্রাচ্যে যেমন আছেন প্রবাসী নারী শ্রমিকরা

গোসল করিয়ে আমাকে পাতলা ফিনফিনে কাপড় পরতে দেয়


গোসল করিয়ে আমাকে পাতলা ফিনফিনে কাপড় পরতে দেয়

প্রতীকী ছবি


''রাতে গোসল করিয়ে আমারে পাতলা ফিনফিনে কাপড় পরতে দেয়। আমি পাতলা কাপড় পরতে না চাইলে মারধর শুরু করে। এরপর আমার ঘরে প্রথমে আসে ছেলে, পরে আসে বাপ। তারপর আমারে...।'' এভাবেই সৌদি আরবে থাকাকালীন নির্যাতনের ঘটনাগুলো বর্ণনা করছিলেন সেখান থেকে ফেরত আসা নারী শ্রমিক ময়না বেগম।

একটু ভালো থাকায় আসায়, পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে বাংলাদেশ থেকে পরিবার-পরিজন ছেড়ে বিদেশে পাড়ি জমায় লাখো মানুষ। এর মধ্যে একটি বড় সংখ্যক মানুষই নারী। আর মধ্যপ্রাচ্যেই এসব নারী শ্রমিকের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। কিন্তু কেন সেখানে এত নারী শ্রমিকের চাহিদা? কেমন আছেন সেখানে আমাদের মা-বোনেরা? এর জবাব দিয়েছেন সেখান থেকে ফিরে আসা বেশ কয়েকজন নারী। শুনে হতভম্ব হয়ে গেছেন উপস্থিত সকলে।

তাদের বর্ণনায় উঠে এসেছে নারী শ্রমিকদের ওপর ভয়াবহ যৌন ও শারীরিক নির্যাতনের চিত্র। আর সেই নির্যাতনে শামিল হন একই পরিবারের একাধিক সদস্য। কখনো দুই ভাই, কখনো বাবা-ছেলে। এছাড়া বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন হাসপাতাল, শপিং মল, রেস্ট্যুরেন্টে চাকরি দেওয়ার কথা বলে নারীদের  মধ্যপ্রাচ্যে পাঠানো হলেও অধিকাংশ নারীর জায়গা হয় বিভিন্ন পরিবারে গৃহপরিচারিকার কাজে। আর সেখানে অনেকটা যৌনদাসী হয়ে পার করতে হয় দিন। প্রতিবাদ করলে নেমে আসে অকথ্য নির্যাতন। দেশে ফিরতে চাইলেও অনেক সময় সে সুযোগ মেলে না।

সৌদি আরব, জর্ডান, লেবানন বা মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ থেকে কাজের জন্য যাওয়া নারীরা কেমন আছেন— এই বিষয়ে গতকাল ঢাকায় আয়োজিত এক গণশুনানিতে ফিরে আসা নারী শ্রমিকরা যৌন নির্যাতনসহ বিভিন্ন নির্যাতনের ভয়াবহ বর্ণনা দেন। গণশুনানিতে নারী শ্রমিকদের কথা শোনেন বাংলাদেশের কয়েকজন সাবেক বিচারপতি, মানবাধিকার কর্মী, অভিবাসন বিশেষজ্ঞ ও শ্রমিকনেতারা।

বাংলাদেশে একটি হাসপাতালে ১২০০ টাকা বেতনে কাজ করতেন ময়না বেগম। হাসপাতালে চাকরির কথা বলে সৌদি আরবে ভালো বেতনে কাজের জন্য পাঠানো হয় তাকে।

কিন্তু সেখানে গিয়ে তাকে একটি বাড়িতে কাজের জন্য নেওয়া হয় এবং শিকার হতে হয় যৌন নির্যাতনের। ‘প্রথমে আমাকে বিমানবন্দর থেকে গাড়িতে নিতে আসেন দুই পুরুষ। দেখে ভয় পাই। পরে ওই বাড়িতে ঢুকে যখন এক মহিলা দেখি তখন মনে সাহস আসে। কিন্তু রাতে গোসল করিয়ে আমারে পাতলা ফিনফিনে কাপড় পরতে দেয়। আমি পাতলা কাপড় পরতে না চাইলে মারধর শুরু করে। এরপর আমার ঘরে প্রথমে আসে ছেলে, পরে আসে বাপ। তারপর আমারে জড়ায়ে ধরে নির্যাতন করে। বাধা দিতে গেলে আমারে মাইরা-ধইরা, কামড়াইয়া-ছিমড়াইয়া কিছু রাখে নাই। ’ গতকাল ঢাকায় ওই গণশুনানিতে নিজের ওপর সৌদি আরবে ঘটে যাওয়া নির্যাতনের কথাগুলো এভাবেই বলছিলেন ময়না বেগম।

লাল কাপড় দিয়ে নিজের মুখ ঢেকে মঞ্চে দাঁড়িয়ে কাঁদতে কাঁদতে বলছিলেন তিনি, ‘নয় মাস এমন নির্যাতনের ফলে আমার প্রজনন অঙ্গে যে ক্ষত তৈরি হয়েছে তাতে এখনো চিকিৎসার মধ্য দিয়ে যেতে হচ্ছে। আমার স্বামী নাই। স্বামী থাকলে আমারে ঘরে উঠাইত না। অনেক কষ্টে ছেলেরে নিয়া আছি।’ 

এ অনুষ্ঠানে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি ছাড়া নারী শ্রমিক পাঠানোর বিষয়ে বিরোধিতা জানিয়েছেন শ্রমিকনেতা, মানবাধিকার কর্মী ও অভিবাসন বিশেষজ্ঞরা। সেখানে অভিবাসী নারী শ্রমিকদের ওপর বিদেশে নির্যাতনের বিষয়ে সরকারের আরও জোরালো পদক্ষেপের দাবি উঠে আসে।

অভিবাসী বা পাচার হয়ে যাওয়া নারীদের আইনি সহায়তা প্রদানকারী সংগঠন বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির প্রধান সালমা আলী বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে অভিবাসী নারী শ্রমিকদের মধ্যে ৯৯ শতাংশই শারীরিক-মানসিক সব ধরনের নির্যাতনের শিকার। অনেক শ্রমিক সেখানে নির্যাতনের মুখে মৃত্যুবরণ করতে বাধ্য হচ্ছেন। ’

গণশুনানিতে প্রদান করা তথ্যানুসারে, ১৯৯১ সাল থেকে চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত ৬ লাখ ৭৪ হাজার নারী শ্রমিক বিভিন্ন দেশে গেছেন।


হুড়মুড় করে ভেঙ্গে গেল ছাদ, নিহত ১
হজ যাত্রীদের বিমান ভাড়া ১০ হাজার টাকা ছাড়!
পার্শ্ব রাস্তা থেকে মহাসড়কে বাইক, নিহত ৩
বগুড়ায় দুই সাংবাদিককে মারধর, আটক ৩
গাছের সঙ্গে ধাক্কা, মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত
৬ ফেব্রুয়ারি ঐক্যফ্রন্টের জাতীয় সংলাপ 
নদী থেকে কলেজ শিক্ষকের লাশ উদ্ধার
নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, নিহত ২, আহত ৩৫
'জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে ভাঙনের সুর শোনা যাচ্ছে'
সংসদে শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
'যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু'
খালেদা জিয়ার জীবন গভীর সংকটে: রিজভী
বেতন বাড়িয়েছি, তবে দুর্নীতি কেন: প্রধানমন্ত্রী
শরিকরা বিরোধী দলে থাকলে ভালো হয়: কাদের
২০ ঘণ্টার লড়াইয়ে নাইরোবিতে নিহত ১৪
বাংলাদেশির লাশ ফেরত দিল বিএসএফ
প্রধানমন্ত্রীর নামে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আটক ৫
আবারও বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস নেবেন তথ্যমন্ত্রী
সিরিয়ায় ৪ মার্কিন সেনাসহ নিহত ১৪
মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৮২ অবৈধ অভিবাসী আটক
হুড়মুড় করে ভেঙ্গে গেল ছাদ, নিহত ১
হজ যাত্রীদের বিমান ভাড়া ১০ হাজার টাকা ছাড়!
পার্শ্ব রাস্তা থেকে মহাসড়কে বাইক, নিহত ৩
বগুড়ায় দুই সাংবাদিককে মারধর, আটক ৩
গাছের সঙ্গে ধাক্কা, মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত
৬ ফেব্রুয়ারি ঐক্যফ্রন্টের জাতীয় সংলাপ 
বিশ্ববিদ্যালয়ে ওরিয়েন্টশন অনুষ্ঠিত
তিন অপহরণকারী গ্রেপ্তার, অপহৃত উদ্ধার 
নদী থেকে কলেজ শিক্ষকের লাশ উদ্ধার
নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস খাদে, নিহত ২, আহত ৩৫
ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ
'জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে ভাঙনের সুর শোনা যাচ্ছে'
 পিকআপ-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ১
সংসদে শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
কবিরহাটে অগ্নিকাণ্ডে বৃদ্ধা মহিলার মৃত্যু
'যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার কাজ শুরু'
খালেদা জিয়ার জীবন গভীর সংকটে: রিজভী
বেতন বাড়িয়েছি, তবে দুর্নীতি কেন: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীদের সম্পদ বাজেয়াপ্তের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে’ 
শরিকরা বিরোধী দলে থাকলে ভালো হয়: কাদের
অতিরিক্ত যৌন নির্যাতন, স্বামীর পুরুষাঙ্গ কাটলেন স্ত্রী
অবতরণের সময় বিমান বিধ্বস্ত!
২৫ এর আগে বিয়ে না করলে শাস্তি!
নতুন বাড়ি পেল বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিনের পরিবার
'আল্লামা শফীর বক্তব্যে আমি হতবাক'
স্বামীকে হাত-পা বেঁধে স্ত্রীকে ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ২
পরকিয়ার জেরে স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তন
ভারত যাচ্ছেন মাহবুব তালুকদার
'আমাকে স্পর্শ করা বা জড়িয়ে ধরার অধিকার কারও নেই'
ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত!
প্রতিমন্ত্রী পলকের ঘোষণার ২৪ ঘণ্টায় চাঁদাবাজি বন্ধ
অস্ত্র কারখানার সন্ধান, স্বামী-স্ত্রীসহ আটক ৩
বিএনপির ১৮৩ আসনের ‘ভোট কারচুপির’ তথ্য জমা
বাসায় ফিরেছেন অভিনেত্রী অহনা
ছেলের মৃত্যুর খবর শুনে মায়ের মৃত্যু!
বেতন কাঠামো প্রত্যাখ্যান, ফের বিক্ষোভে শ্রমিকরা
ছেলে খুনের খবরে মারা গেলেন মা
কারিনাকে নিয়ে অশ্লীল কথা বলে বিপাকে রণবীর
টিআইবির অভিযোগ লজ্জাকর: নূরুল হুদা
বেশি সময় ক্ষমতায় থাকা প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীরা

সব খবর