২২ জানুয়ারী ,মঙ্গলবার, ২০১৯

শিরোনাম

> অফবিট

 

সাহিদ রহমান অরিন

১১ মার্চ ,রবিবার, ২০১৮ ১৯:৪৫:০২

লাদেনের মরদেহ সমুদ্রে ফেলার রহস্য


লাদেনের মরদেহ সমুদ্রে ফেলার রহস্য


‘কখনোই ওসামা বিন লাদেনকে মৃত অবস্থায় দেখতে পাইনি। তাই আমরা এত সহজেই বিশ্বাস করতে পারি না যে তিনি মারা গেছেন।’ বছরের পর বছর এই বিষয়টি মার্কিন সরকার দ্বারা দমন করা হয়েছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকদের মধ্যে এখন আবার নতুন করে প্রশ্ন  উত্থাপিত হয়েছে, ওসামার মৃতদেহ আমরা কেন দেখিনি?

♻ ২ মে ২০১১, সিল টিমের সদস্যদের দ্বারা ওসামাকে হত্যার দিন হিসেবে চিহ্নিত করে তৎকালীন বারাক ওবামা সরকার। এর মধ্য দিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশটি কলঙ্ক থেকে মুক্ত হয়। ওবামা হোয়াইট হাউস থেকে বিন লাদেনের মৃত্যুর ঘোষণা করেন। তবুও কিছু বিচিত্র তত্ত্ব সুপারিশ করে। কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে ওসামা এখনো জীবিত আছেন। যদি তিনি সত্যিই মারা গিয়ে থাকেন, তাহলে কেন মার্কিন সরকার তার লাশের ছবি দেখানোর জন্য বিব্রত বোধ করেছিল? যাই হোক, এই তত্ত্বের সাথে যারা সঙ্গতিপূর্ণ তাদের সংখ্যা খুবই নগণ্য। অতঃপর এই অভিযোগ উপেক্ষিত হয়েছিল।

হোয়াইট হাউস থেকে বিন লাদেনের মৃত্যুর ঘোষণা দেন তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। 

♻ যদিও কিছু তত্ত্বের মতে ওসামার মৃত্যু হয়নি, কিছু তত্ত্ব বোঝায় যে ওসামার শরীরটি জনসাধারণ ও প্রেসের কাছে প্রকাশ করা হয়নি। কারণ ছিল, তার শরীরে গুলি করে ঝাঁঝড়া করা হয়, শত শত বুলেট তার শরীরে বিদ্ধ হয়েছিল। ‘নো ইজি ডে’ বইটি এই সত্য সাক্ষী প্রদান করে। সেই সময় সবচাইতে আলোচিত একটি বই ছিল ‘নো ইজি ডে’। সাবেক নেভি সিল কমান্ডো ম্যাট বিসোননেট (এই বইয়ের জন্য মার্ক ওয়েন ছদ্মনাম ব্যবহার করেছেন) সরাসরি অংশ নিয়েছিলেন ওসামা বিন লাদেনের কিলিং মিশনে।

সিল কমান্ডো ম্যাট বিসোননেট তার বইয়ে বর্ণনা করেছেন, ‘বিন লাদেনকে গুলি করার পর মাটিতে ফেলে দেওয়া হয়েছিল। আমার সঙ্গে আরেকজন অভিযানকারী  তার লেজারগুলি বুকের ওপর রেখে দিয়েছিলাম। কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়েছিলাম।’

♻ সে সম্ভব হতে পারে। তবে অধিকাংশ লোক বিশ্বাস করে যে ওসামার মৃতদেহ গোপন করার প্রকৃত কারণটি তার দেহের ক্ষত অবস্থা। এখন পর্যন্ত এটিই সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য কারণ। কিন্তু এখানে প্রশ্ন উঠে আসে যে, কেন আমেরিকার পরিষেবা প্রদানকারীদের এত কঠোর হতে হয়েছিল?

না, এই কাজ অপরাধ ও নৃশংস ছিল। এই দলের দ্বারা তা এড়ানো যেতে পারত। কিছু বিশেষজ্ঞদের একটি ভিন্ন তত্ত্ব আছে। তারা বিশ্বাস করেন, যুক্তরাষ্ট্র ও মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে উত্তেজনা না ছড়াতে মার্কিন সরকার তার লাশ প্রকাশ করেনি। কর্মকর্তারা বলছেন, ওসামা অতীতের ব্যাপক ধ্বংসকার্য পরিচালনা সত্ত্বেও সঠিক নিয়মে, ইসলামি কায়দায় দাফন করা যেত। কিন্তু তার দেহের ছবি প্রকাশের ফলে আবারো সংঘাত সৃষ্টি হতে পারতো। এতে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় নাগরিকের প্রাণহানি ঘটতে পারতো।

♻ আল কায়েদা সদস্যদের দ্বারা আত্মহত্যা পোশাক ব্যবহার করে বোঝা যায়, তারা কোনও বিপদ ডেকে আনেনি। তারা যাই হোক মরবেই। তাহলে তাদের গুলি করা হল কেন? এই মার্কিন বাহিনীর অপরাধমূলক প্রকৃতির বিষয়ে হাইপোথিসিসকে বৃদ্ধি করেছে।

এই তত্ত্ব শেষ করার আগে আরো প্রমাণের প্রয়োজন। মানুষ কেবল গুটি কয়েক তথ্যের ওপর নির্ভর করতে পারে না। মার্কিন বাহিনীর প্রকৃতি বিচার করা সম্ভব নয়। হয়তো পরিস্থিতি তাদেরকে ‘অপরাধী’ বলে দাবি করে। কিন্তু মার্কিন বাহিনী মনে করে ওসামারেএমন শাস্তি প্রাপ্য ছিল।

জাতিসংঘের হস্তক্ষেপ ছাড়া ক্ষমতার অপব্যবহার সম্পূর্ণ প্রত্যাশিত। তবে যে যাই বলুক, মানুষ আসলে যেসব ছবি দেখতে পায়, সেগুলোকে এখনো পর্যন্ত শুধু এক অনুমান মনে করা হয়।


সূত্র: বেয়ন্ড কলকাতা


'সময় থাকতে জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিন' 
জাজিরা প্রান্তে যাচ্ছে পদ্মাসেতুর ষষ্ঠ স্প্যান!
'উন্নয়নশীল হয়েছি, উন্নত দেশের কাতারে যেতে হবে'
বাস-ট্যাংকার সংঘর্ষ, নিহত ২৬
জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ১৫ বাড়িতে অভিযান!
শেষ স্ট্যাটাসে ‘আমাকে যেন ভুলে না যাও...’
‘আমার সারাদেহ খেয়ো গো মাটি’
সঙ্গীত শিল্পী আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই!
জা-ভাসুরকে ফাঁসাতে সন্তানকে হত্যা!
‘আগুন নিয়ে খেলবে না’
আফগানিস্তানে তালেবানের হামলায় শতাধিক নিহত
জেলের জালে আটকা স্যাটেলাইটযুক্ত কচ্ছপ
‘এত শান্তিপূর্ণ নির্বাচন বাংলাদেশে হয়নি’
অসুস্থ্য বাবাকে দেখতে গিয়ে ছেলের মৃত্যু  
ইয়াবাসহ আটক ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার
কুমিল্লাকেও থামাল রাজশাহী
বোরকা পরে ‘স্ত্রীর’ ওপর নজরদারি, ‘স্বামী’ আটক
গাছের সঙ্গে ধাক্কা, আলম সাধু চালক নিহত
বাস-সিএনজি সংঘর্ষ, প্রাণ গেল চারজনের
‘আ.লীগ জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি’
সংরক্ষিত নারী আসন নিয়ে রিট!
সাবেক ইউপি সদস্যের লাশ উদ্ধার
টস জিতে ফিল্ডিং করছে রংপুর
'সময় থাকতে জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিন' 
ট্রাক ও লরির মুখোমুখি সংঘর্ষে চালক নিহত
জাজিরা প্রান্তে যাচ্ছে পদ্মাসেতুর ষষ্ঠ স্প্যান!
'উন্নয়নশীল হয়েছি, উন্নত দেশের কাতারে যেতে হবে'
বাস-ট্যাংকার সংঘর্ষ, নিহত ২৬
জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ১৫ বাড়িতে অভিযান!
শেষ স্ট্যাটাসে ‘আমাকে যেন ভুলে না যাও...’
‘আমার সারাদেহ খেয়ো গো মাটি’
সঙ্গীত শিল্পী আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই!
জা-ভাসুরকে ফাঁসাতে সন্তানকে হত্যা!
‘আগুন নিয়ে খেলবে না’
আফগানিস্তানে তালেবানের হামলায় শতাধিক নিহত
জেলের জালে আটকা স্যাটেলাইটযুক্ত কচ্ছপ
‘এত শান্তিপূর্ণ নির্বাচন বাংলাদেশে হয়নি’
অসুস্থ্য বাবাকে দেখতে গিয়ে ছেলের মৃত্যু  
ইয়াবাসহ আটক ছাত্রলীগ নেতা বহিস্কার
কুমিল্লাকেও থামাল রাজশাহী
বিয়ে করলেন সঙ্গীতশিল্পী সালমা
‘গরীবের ডাক্তার’ ডা. রাকিবুল ইসলাম লিটু আর নেই
‘‌সৌদিতে সংস্কার না হলে বিপ্লব ঘটবে’
মায়ের লাশ বাইসাইকেলে বেঁধে একা ছেলে!
ছেলে সন্তানের মা হলেন টিউলিপ
অস্ত্র কারখানার সন্ধান, স্বামী-স্ত্রীসহ আটক ৩
বাসায় ফিরেছেন অভিনেত্রী অহনা
হুথিদের গুলিতে সৌদির ১৪ সেনা নিহত
ইরান-রাশিয়া-চীনকে নিয়ে উদ্বেগে ট্র্রাম্প
ব্রেক্সিট ভোট দিয়েছেন অন্তঃসত্ত্বা টিউলিপ
এরশাদের অবর্তমানে কে পাচ্ছেন দলের দায়িত্ব!
টিআইবির অভিযোগ লজ্জাকর: নূরুল হুদা
বন্ধ হলো শাহবাগ শিশুপার্ক
এমপি হতে চায় অপু বিশ্বাস!
স্বামী পরিত্যক্তা নারীকে ধর্ষণ করল ৫ যুবক
‘আমি ধর্ষণ মামলার মূল আসামি’
শিক্ষিকার মাদক ব্যবসায় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী
ধনী বৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ তৃতীয়!
নৌবাহিনীর প্রধান হলেন আওরঙ্গজেব
মনের মতো একজন স্বামী পেয়েছি: সালমা

সব খবর