২০ সেপ্টেম্বর ,বৃহস্পতিবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

 

নিউজ ২৪ ডেস্ক

২১ আগস্ট ,সোমবার, ২০১৭ ১১:১৪:৫০

আজ সূর্যগ্রহণ: বিশ্বাস ও বিজ্ঞানের যুদ্ধ


আজ সূর্যগ্রহণ: বিশ্বাস ও বিজ্ঞানের যুদ্ধ


আজ সূর্যগ্রহণ। ৩৮ বছর পর পূর্ণ সূর্যগ্রহণ দেখবে যুক্তরাষ্ট্র। তবে দেখা যাবে না বাংলাদেশ থেকে। আজ মধ্য দুপুরে সন্ধ্যার আঁধার নেমে আসবে যুক্তরাষ্ট্রে। আশপাশের অঞ্চল থেকেও দেখা যাবে আংশিক গ্রহণ। তবে বাংলাদেশে তখন সময় থাকবে রাত নয়টা। 

চন্দ্রগ্রহণ ও সূর্যগ্রহণ নিয়ে মানুষের মাঝে প্রচলিত রয়েছে নানা বিশ্বাস। আধুনিক বিজ্ঞান মনে করে এগুলো কুসংস্কার। কী কারণে এই গ্রহণ হয় তা না জানার কারণেই এ বিশ্বাসগুলো হাজার বছর ধরে মানুষের মধ্যে গড়ে উঠেছে। মূলত, পৃথিবী আর সূর্যের মাঝখানে চাঁদ এসে পড়লেই সূর্যগ্রহণ ঘটে। পূর্ণ সূর্যগ্রহণে চাঁদের ব্যাস সূর্যের ব্যাসের তুলনায় বড় দেখায়। এতে প্রথিবীর একটি অংশ থেকে সূর্যকে দেখা যায় না। চাঁদের কারণে পৃথিবীর ওই অংশে পড়ে না সরাসরি সূর্যের আলো। তখনই হয় সূর্যগ্রহণ। ঠিক তেমনি সূর্য আর চাঁদের মাঝখানে পৃথিবী এসে পড়লে হয় চন্দ্রগ্রহণ। পৃথিবীর ছায়া অন্ধকার করে দেয় চাঁদকে। 

আজকের সূর্যগ্রহণ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে বেশ শোরগোল চলছে কিছুদিন ধরে। কারণও আছে। ৩৮ বছর পর সূর্যগ্রহণ দেখতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দারা। যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে ১৯৭৯ সালের পর আর কোনো সূর্যগ্রহণ দেখা যায়নি। আর সর্বশেষ পূর্ণ সূর্যগ্রহণ দেখা গিয়েছিল ১৯১৮ সালে।

সূর্যগ্রহণ প্রকৃতির একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া হলেও এ নিয়ে অনেকের মাঝে রয়েছে নানা বিশ্বাস। দেশে দেশে সে বিশ্বাসের মধ্যে রয়েছে পার্থক্য, আছে মিলও। আসুন জেনে নিই এমন কিছু বিশ্বাস সম্পর্কে যা বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে কুসংস্কার-

১. সূর্য ও চন্দ্রের যুদ্ধ
পশ্চিম আফ্রিকার বেনিন ও টোগো উপজাতির মানুষরা বিশ্বাস করে যে ‘গ্রহণ’ মানে সূর্য ও চন্দ্রের মধ্যে ক্রমাগত যুদ্ধ। তাঁদের আরও ধারণা যে একমাত্র পৃথিবীই এই যুদ্ধ মেটাতে সক্ষম। যার বৈজ্ঞানিক কোন ভিত্তি নেই।

২. ‘সূর্যকে গিলে ফেলা’-র তত্ত্ব
বিশ্বের বিভিন্ন জায়গার মানুষ বহু আদিম সময় থেকেই মনে করে যে সূর্যকে কেউ বা কারা যেন গ্রাস করছে। আর সে কারণেই ‘গ্রহণ’-এর মতো মহাজাগতিক ঘটনা ঘটে। ভিয়েতনামে মনে করা হয়, কোনও ব্যাঙ এসে গিলে ফেলছে সূর্যকে। ইওরোপের ভাইকিংসরা মনে করেন যে কোনও নেকড়ে এসে খেয়ে ফেলছে সূর্যকে। হিন্দু শাস্ত্রে মনে করা হয় যে রাহু গ্রাসে যাওয়ার ফলে সূর্যের গ্রহণ হয়।  যার বৈজ্ঞানিক কোন ভিত্তি নেই।

৩. চুরি হয়েছে সূর্য
কোরিয়ানরা মনে করেন যে সূর্যকে চুরি করে নিয়ে যায় কোনও রাক্ষুসে কুকুর। কোরিয়ান লোক সঙ্গীতে এই নিয়ে বহু সুরও বাঁধা হয়েছে।  এটারও নেই বৈজ্ঞানিক ভিত্তি।

৪. শাঁখ বাজানো
হিন্দুশাস্ত্র মতে মনে করা হয় যে, যেহেতু রাহু নামের রাক্ষস সূর্যকে গ্রাস করে ফেলে, তাই সেই সময়টিতে শাঁখ বাজিয়ে রাহুকে ভয় দেখানো হয়। বিজ্ঞান এটা স্বীকার করে না।

৫. গ্রিকদের বিশ্বাস
প্রাচীন গ্রিসের পৌরানিক কাহিনিতে মনে করা হত সূর্যগ্রহণের ঘটনা মানেই কোন না কোন দেবদেবী রুষ্ট হয়েছেন। যার ফলে কোনও দুর্যোগের আশঙ্কা করা হত। মূলত এই মহাজগতিক ঘটনাকে নেতিবাচক চোখে দেখা হত এখানে।

৬. খাবার না খাওয়া
উপমহাদেশের বিভিন্ন অংশে সূর্যগ্রহণের সময় খাওয়া-দাওয়া বন্ধ রাখা হয়। এ সময় খাবার খেলে স্থায়ী পেটের অসুখ হবে বলে মনে করা হয়।  এ ব্যাপারেও বৈজ্ঞানিক কোন যুক্তি পাওয়া যায়নি।

৭. সূর্যকে গিলে খাচ্ছে ড্রাগন
চৈনিক সভ্যতাসহ বেশ কিছু আমেরিকান ও ইউরোপীয় সভ্যতায় সূর্যগ্রহণের কারণ হিসেবে ড্রাগনের উল্লেখ আছে। মনে করা হয় এদিন সূর্যকে গিলে খায় ড্রাগন। ‘গেম অব থ্রোনসে’র কল্যাণে পুরাকথার এই কল্পিত ড্রাগন স্থান করে নিয়েছে মানুষের কল্পনাতেও। এটা শুধুই কল্পনা।

৮. প্রসূতি মায়েদের ভয়
সূর্যগ্রহণের সময় জন্ম নেওয়া শিশুদের ব্যাপারে দুই ধরনের গপ্প শুনতে পাওয়া যায়। এক. শিশুটি অসুস্থ হবে এবং দুই. শিশুটি চালাক হবে। তবে এ দুটি ধারণার কোনোটার ক্ষেত্রেই বিশ্বাসযোগ্য তথ্য পাওয়া যায় না। 

৯. ম্যাক্সিকান সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করা হয়, সূর্যগ্রহণের সময় সূর্যের এক টুকরো খেয়ে ফেলা হয়। প্রসূতি মা সূর্যগ্রহণ দেখলে তার অনাগত সন্তানের এক টুকরো খেয়ে নেবে দেবতারা!  যার বৈজ্ঞানিক কোন ভিত্তি নেই।

১০. হিন্দু উপকথায় গ্রহণ নিয়ন্ত্রণ করে রাহু নামে এক অসুরের কর্তিত মুণ্ডু, যিনি সূর্য আর চাঁদ গিলে খেয়েছিলেন।

১১. উপমহাদেশের অনেক স্থানেই চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণের সময় মাছ কাটা নিষেধ। বিশেষ করে গর্ভবতীরা এ সময় মাছ কাটলে তার অনাগত সন্তানের অঙ্গহানি ঘটতে পারে বলে বিশ্বাস করা হয়। তবে এ বিশ্বাসেরও গ্রহণযোগ্য কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। 

১২. কাত হয়ে শুতে বারণ
সেন্ট লুইসে অবস্থিত মার্সি হাসপাতালের গাইনোকোলজিস্ট শাফিয়া ভুট্টোর মতে, সূর্যগ্রহণের সময় পাকিস্তানে মায়েদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে চিত করে শোয়ানো হতো। নইলে নাকি গর্ভের শিশু বিকলাঙ্গ হয়! বাংলাদেশেও এ ধারণার অস্তিত্ব রয়েছে।

যে সংস্কারটি মানবেন
সূর্যগ্রহণের সময় সূর্যের দিকে সরাসরি তাকানো নিষেধ। এই সংস্কার অবশ্যই মানা উচিত। কারণ, এটা শুধু গ্রহণ বলে নয়, কখনোই খালি চোখে সূর্যের দিকে তাকানো উচিত নয়। সূর্যের অতি বেগুনী রশ্মি চোখের জন্য খুবই ক্ষতিকর। বিজ্ঞান সেটাই বলে। সূর্যগ্রহণ দেখতে চাইলে অব্যবহৃত এক্স-রে প্লেট দিয়ে দেখা যেতে পারে। এছাড়া বাজারে এখন সূর্যগ্রহণ দেখার জন্য বিশেষ রোদচশমাও পাওয়া যাচ্ছে।

সূত্র: ইউএসএ টুডে, কেএসএল ডট কম, ওয়ান ইন্ডিয়া।


খুলনায় কিশোরের লাশ নদীতে
রক্তাল্পতার লক্ষণ, কারণ ও প্রতিকারের উপায়
ইসরাইলকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি
খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিচার চলবে
নিউইয়র্কে যুবলীগের দু'গ্রুপে সংঘর্ষ
ভারতীয় ২০টি প্রশিক্ষিত ঘোড়া বেনাপোল বন্দরে
বাজারে আসছে গো-মূত্রের শ্যাম্পু ও গোবরের সাবান!
বাংলাদেশকে নিয়ে ভাবনা নেই: রশিদ খান
মোস্তাফিজের বিপরীতে রনির দিকে নজর কোচের
সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কবার্তা
ট্রাম্পের গোপন বিষয়ে ‘বোমা’ ফাটালেন স্টর্মি
মুক্তি পেলেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী
আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
পটুয়াখালীতে ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
এবার ৭০ বছরের বৃদ্ধাকে ধর্ষণ!
মোবাইলের কলরেট নিয়ে প্রতিবাদ
তুরাগ পাড়ে মিলল দুই কিশোরীর লাশ
ভারতের কাছে হারকে ‘ওয়েক আপ কল’ বললেন সরফরাজ
নারী মডেলকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন পুতিন!
অস্ত্র-গুলিসহ চার পেশাদার ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার
মায়ের ওপর অভিমানে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
মাদারীপুরে সেতুর দাবিতে শিক্ষার্থীদের সড়ক অবরোধ
খুলনায় কিশোরের লাশ নদীতে
দিনাজপুরে মাদক বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত
রক্তাল্পতার লক্ষণ, কারণ ও প্রতিকারের উপায়
হাতিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ নিহত
ইসরাইলকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি
খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিচার চলবে
নিউইয়র্কে যুবলীগের দু'গ্রুপে সংঘর্ষ
ভারতীয় ২০টি প্রশিক্ষিত ঘোড়া বেনাপোল বন্দরে
বাজারে আসছে গো-মূত্রের শ্যাম্পু ও গোবরের সাবান!
তাড়াইলে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার
উত্তর আমেরিকায় নজরুল সম্মেলন
বাংলাদেশকে নিয়ে ভাবনা নেই: রশিদ খান
মোস্তাফিজের বিপরীতে রনির দিকে নজর কোচের
তারকা গলফারকে ধর্ষণের পর হত্যা
সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কবার্তা
ট্রাম্পের গোপন বিষয়ে ‘বোমা’ ফাটালেন স্টর্মি
মুক্তি পেলেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী
আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
রাষ্ট্রপতির হাতে পুরস্কার পাওয়া ছাত্রীকে গণধর্ষণ!
জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের স্টিকারযুক্ত মাইক্রোবাসে ৪ মণ গাাঁজা
ওমানের সালাম এয়ারকে শাহজালাল বিমানবন্দরে জরিমানা
নয় বছরের শিশুকে ধর্ষণ করল বাবা!
বসুন্ধরা নিয়ে এল স্বাস্থ্য সহনীয় মশার কয়েল 'এক্সট্রিম'
দেহ ব্যবসা করতো র‌্যাম্প মডেল কান্তা
পোশাক নিয়ে সমালোচনার মুখে জাহ্নবী কাপুর
৩০ দেশ পাড়ি দিয়ে হেঁটে হজে গিয়েছিলেন মহিউদ্দিন
আ.লীগ-বিএনপির ৪০০ নেতার শপথ
এখন ‌‘বয়ফ্রেন্ড’ জুটবে অ্যাপের মাধ্যমে
কাবা শরীফের ভেতরে ঢুকলেন ইমরান খান(ভিডিও)
জাম্বুরি পার্কে ১ ঘণ্টা হাঁটলেন গণপূর্তমন্ত্রী!
‘মন্ত্রীর পা ধরেও সড়কের কাজ শুরু করা যায় নি’
অরুণা বিশ্বাসের এ কী হাল!
ইয়াবা সেবনে বাধা দেয়ায় মাকে হত্যা!
আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
ব্রিজের রেলিং ভেঙে হাতিরঝিল লেকে প্রাইভেটকার
ওমরাহ ভিসায় সৌদি ভ্রমণে বিশেষ ছাড়
কুড়িগ্রামে কিশোর-কিশোরীর লাশ উদ্ধার
দুই স্কুল ছাত্রীকে বেত্রাঘাত 

সব খবর