১৯ সেপ্টেম্বর , বুধবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বিশেষ প্রতিবেদন

 

রিশাদ হাসান, কক্সবাজার থেকে ফিরে

২ মে , বুধবার, ২০১৮ ১৬:২৯:২৯

অফস্ক্রিনের গল্প

যেভাবে ক্যাম্প থেকে খদ্দেরের হাতে রোহিঙ্গা নারী (ভিডিও)


যেভাবে ক্যাম্প থেকে খদ্দেরের হাতে রোহিঙ্গা নারী (ভিডিও)

দিনে সেল্টার হোমে, রাত নামলেই দেহ ব্যবসায় রোহিঙ্গা নারীরা


দেহ ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে হাজারো রোহিঙ্গা নারী।  গেল বছর ২৫ আগস্টের পর থেকে যে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে তাদের একটি বড় অংশ জড়িয়ে পড়েছে যৌন ব্যবসায়। কখনো অভাবের তাড়নায় নিজ ইচ্ছায় ক্যাম্প থেকে পালিয়ে অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়ছে,  কেউ আবার দালালের খপ্পরে পড়ে বাধ্য হচ্ছে নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়াতে। কক্সবাজারের অলিতে-গলিতে কিছুক্ষণ পায়চারি করলেই খোঁজ মিলছে দেহ ব্যবসায় পা বাড়ানো বিভিন্ন বয়সের এসব রোহিঙ্গা নারীর। রয়েছে শিশুও।কখনো আবার দালাল এসে জানতে চাইছে মেয়ে সঙ্গী দরকার কিনা। টাকা নিয়ে হাত বাড়ালেই যেন নিষিদ্ধ জগতের দূষিত 'ঘ্রাণ' নাকে আসছে। যদিও সম্ভ্রম বিলিয়ে দিয়ে এসব রোহিঙ্গা নারী খুব একটা অর্থের মুখ না দেখলেও, রাতারাতি ফুলে ফেপে উঠছে দালালরা।

আরও পড়ুন: হাত বাড়ালেই রোহিঙ্গা যৌনকর্মী! (ভিডিও)

রোহিঙ্গারা যাতে ক্যাম্প থেকে পালিয়ে জনস্রোতে মিশে যেতে না পারে সেজন্য সরকারের কড়া নির্দেশ রয়েছে। কিন্তু, কিছুতেই ক্যাম্পে আটকে রাখা যাচ্ছে না তাদের। এক শ্রেণির অসাধু 'মানুষের' হাত ধরে ক্যাম্প থেকে বাইরে এসে অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে রোহিঙ্গা নারীরা। কখনো রোহিঙ্গা সুন্দরী মেয়েদের নানাভাবে বাধ্য করা হচ্ছে যৌন পেশায় নামতে। নিয়ে আসা হচ্ছে শিশুদেরও। খদ্দেরের চাহিদা মেটাতে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে কক্সবাজারের বিভিন্ন হোটেল-কটেজে।

কিন্তু, কারা এসব রোহিঙ্গা নারীদের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে সম্ভ্রম বিক্রির পেশায় নামাচ্ছে? এতে তাদের লাভ কোথায়? বিষয়গুলো নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করে নিউজ টোয়েন্টিফোরের টিম। জানা যায় অন্ধকার প্রাচিরের ওপাশে থাকা নিরব কান্না। কক্সবাজারের পুরোনো রোহিঙ্গা ও ক্যাম্পের মাঝিই মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের মুখে পালিয়ে আসা শরণার্থী নারীদের তুলে দিচ্ছে স্থানীয় দালালদের হাতে। আর একজন নারীকে দালালের হাতে তুলে দেওয়ার বিনিময়ে তারা পাচ্ছে এক থেকে দুই হাজার টাকা। দালালরা রোহিঙ্গা নারীদের পৌঁছে দিচ্ছে খদ্দেরের কাছে। এভাবেই কাজ করে যৌনব্যবসায়ী দালাল চক্র। 

আরও পড়ুন: ক্যাম্প থেকে পালিয়ে অনৈতিক কাজে রোহিঙ্গা নারীরা

অর্থের বিনিময়ে যৌনকর্মী ও খদ্দেরের মধ্যে যোগাযোগ করে দিতে কক্সবাজার জুড়ে ছড়িয়ে আছে কয়েকশ' দালাল। এইসব দালালদের ফোন নম্বর পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন আবাসিক হোটেল, সিএনজি চালক থেকে শুরু করে সমুদ্র সৈকতের বিভিন্ন চায়ের দোকানেও।

লাইট হাউজ নামের এনজিও'র সেল্টার হোমে প্রায়ই দেখা মেলে রোহিঙ্গা যৌনকর্মীর। এদের কেউ এই পেশায় চার থেকে পাঁচ দিন, কেউ পাঁচ মাস। এই নারীরা দিনে মাত্র তিন থেকে পাঁচশ' টাকা আয় করলেও দালালরা খদ্দেরের কাছ থেকে বুঝে নেন তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকা। মধ্যসত্ত্বভোগী হিসেবে আছে অটোচালকরা। তারা অটো চালানোর ফাঁকে যাত্রীর কাছ থেকে কথা বলে জেনে নেন তার কোন নারী সঙ্গীর প্রয়োজন আছে কিনা। ইতিবাচক সায় পেলেই যোগাযোগ করেন দালালের সঙ্গে। খদ্দের ধরে দিলে তিনি পান দু'শো টাকা। 

আরও পড়ুন: যৌন ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছেন রোহিঙ্গা নারীরা

সেল্টার হোমে থাকা এক রোহিঙ্গা যৌনকর্মী বলেন, কেউ দুইশ' টাকার বিনিময়ে ডাকে। যেতে হয়। খাবার নেই। থাকার জায়গা নেই। অভাবের কারণে না গিয়ে পারি না।

অপর একজন বলেন, কেউ ইচ্ছা করে এই পেশায় আসে? অভাবে পড়ে বাধ্য হয়ে এইসব কাজ করতে হয়। 

এদিকে আশ্রয়কেন্দ্রে চিকিৎসা, গোসলসহ খাবার পান নিষিদ্ধ পথে পা বাড়ানো এসব রোহিঙ্গা নারীরা। দিনে তাদের ওই ঘর থেকে বের হওয়া নিষেধ। তবে রাত হলেই দালালদের সহায়তায় তারা ছড়িয়ে পড়েন পর্যটন নগরীর বিভিন্ন জায়গায়।

শরণার্থী নারীদের দিয়ে যারা ব্যবসা করান এমন একজন পরিচয় গোপন রাখার শর্তে জানান কীভাবে ক্যাম্প থেকে খদ্দেরের হাতে আসে রোহিঙ্গা নারী।

নিজ বাসায় বসে ওই ব্যক্তি বলেন, ক্যাম্পের মাঝি আর পুরাতন রোহিঙ্গারা দুই-এক হাজার টাকার লোভে রোহিঙ্গা নারীদের দালালদের কাছে বিক্রি করে দেয়। হোটেল মালিক, হোটেল বয় সবাই এর সঙ্গে জড়িত। কটেজ বা বড় বড় ১০ তলা বিল্ডিং, মোটামুটি কোন হোটেল বাদ নেই। ফাইভ স্টার হোটেলেও ওঠে। বিদেশেও পাচার করা হয় রোহিঙ্গা মেয়েদের। আমার জানা মতে ৬/৭ জন রোহিঙ্গা নারী বিদেশে গেছে। আমার বাসা থেকে গেছে তিনজন। তাদের একজন ফেরত এসেছে। 

কক্সবাজারে যৌনকর্মীদের নিয়ে কাজ করা দু'টি এনজিও জানায় দালাল চক্রের কথা। নোঙ্গর'র নির্বাহী পরিচালক দিদারুল আলম রাশেদ নিউজ টোয়েন্টিফোরকে বলেন, দালালদের সঙ্গে সেই রোহিঙ্গাদের একটা সম্পর্ক বিদ্যমান আছে। তারা তাদেরকে সহজে এ ধরণের পেশাগুলোতে নিয়ে আসার জন্য উৎসাহিত করতে পারছে। 

অ্যাকশন এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, এখানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর একটা বড় ভূমিকা রাখতে হবে। এটা ঠিক, হঠাৎ করে এত মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা কঠিন কাজ। কিন্তু, এটা বলে তো আমরা পার পেতে পারব না। আমাদেরকে এখানে শক্ত হাতে ধরতে হবে।

প্রায় সাড়ে চারশ'র বেশি হোটেল ও কটেজে পরিপূর্ণ পর্যটন শহর কক্সবাজারের রাত এবং দিন যতখানি রঙিন তার চেয়ে অন্ধকার এক জগতে বসবাস করছে এখানকার অসংখ্য রোহিঙ্গা নারী। তাদেরকে এখান থেকে উত্তরণ করা না গেলে ভবিষ্যতে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় রোহিঙ্গা শিবিরটি কক্সবাজারের উখিয়ায় অবস্থিত কুতুপালংয়ে। এক প্রতিবেদনে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ১৯৯২ সালে স্থাপিত এ শিবিরের প্রায় ৫০০ রোহিঙ্গা কিশোরী ও নারী যৌন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। নতুন ছয় লাখ রোহিঙ্গার মধ্যে বেশিরভাগই নারী ও শিশু। এবার তাদের মধ্য থেকে আরও ১০ হাজার কিশোরী ও নারী এ পেশায় যুক্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে।


কুকুরের কামড়ে আহত শর্ট
‘মন্ত্রীর পা ধরেও সড়কের কাজ শুরু করা যায় নি’
অস্ত্র মামলায় এক ব্যক্তির ১৭ বছরের জেল
বজ্রপাতে একই পরিবারের ৫ সদস্য আহত
নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৯ দালাল আটক
অপহরণের ৯দিন পর যুবক উদ্ধার
২৮ বছরের শিষ্যের সঙ্গে ৬২ বছরের গুরুর প্রেম!
ময়মনসিংহের মেয়ে অনশন করছে সাতক্ষীরায়!
চারটি নিষিদ্ধ কাজ করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী
নারীদের সাফল্য অর্জনে ওআইসির পুরস্কারের বিষয়ে আলোচনা
বিএনপি নেতা সোহেল গ্রেপ্তার
চাইলেন বাইকের চাবি, চালক দিলেন টান
খাস জমি দখল করে গড়ে উঠছে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র
'জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে অপপ্রচার'
আমরা ক্ষমতায় যেতে এখন প্রস্তুত: এরশাদ
প্রাক্তন ডিসি ও ইউএনও’র ৩ মাসের কারাদণ্ড
রাঙামাটি ডিসি বাংলোতে ড্রাগন ফলের ব্যাপক ফলন 
কটিয়াদী উপজেলা জামায়াত সেক্রেটারি আটক
অদ্ভুত ভাবনার সমীকরণ
টার্কি মুরগি পালনে ঝুঁকেছেন নাটোরের যুবকরা
কুকুরের কামড়ে আহত শর্ট
‘মন্ত্রীর পা ধরেও সড়কের কাজ শুরু করা যায় নি’
অস্ত্র মামলায় এক ব্যক্তির ১৭ বছরের জেল
বজ্রপাতে একই পরিবারের ৫ সদস্য আহত
নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৯ দালাল আটক
অপহরণের ৯দিন পর যুবক উদ্ধার
২৮ বছরের শিষ্যের সঙ্গে ৬২ বছরের গুরুর প্রেম!
ময়মনসিংহের মেয়ে অনশন করছে সাতক্ষীরায়!
চারটি নিষিদ্ধ কাজ করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী
নারীদের সাফল্য অর্জনে ওআইসির পুরস্কারের বিষয়ে আলোচনা
বিএনপি নেতা সোহেল গ্রেপ্তার
চাইলেন বাইকের চাবি, চালক দিলেন টান
খাস জমি দখল করে গড়ে উঠছে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র
'জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে অপপ্রচার'
সিরিয়ায় বিধ্বস্ত রুশ বিমান, ইসরায়েলকে দুষছে রাশিয়া
আমরা ক্ষমতায় যেতে এখন প্রস্তুত: এরশাদ
প্রাক্তন ডিসি ও ইউএনও’র ৩ মাসের কারাদণ্ড
রাঙামাটি ডিসি বাংলোতে ড্রাগন ফলের ব্যাপক ফলন 
চাকরির বাজারে প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে আসছে রোবট
কটিয়াদী উপজেলা জামায়াত সেক্রেটারি আটক
রবিকে বিটিআরসি’র গুরুদণ্ড!
রাষ্ট্রপতির হাতে পুরস্কার পাওয়া ছাত্রীকে গণধর্ষণ!
জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের স্টিকারযুক্ত মাইক্রোবাসে ৪ মণ গাাঁজা
ওমানের সালাম এয়ারকে শাহজালাল বিমানবন্দরে জরিমানা
নয় বছরের শিশুকে ধর্ষণ করল বাবা!
দেহ ব্যবসা করতো র‌্যাম্প মডেল কান্তা
বসুন্ধরা নিয়ে এল স্বাস্থ্য সহনীয় মশার কয়েল 'এক্সট্রিম'
ওমানে সড়ক দুর্ঘটনা, ৩ বাংলাদেশির মৃত্যু
৩০ দেশ পাড়ি দিয়ে হেঁটে হজে গিয়েছিলেন মহিউদ্দিন
পোশাক নিয়ে সমালোচনার মুখে জাহ্নবী কাপুর
আ.লীগ-বিএনপির ৪০০ নেতার শপথ
এখন ‌‘বয়ফ্রেন্ড’ জুটবে অ্যাপের মাধ্যমে
লোকাল বাসে ঘরে ফিরলেন মন্ত্রী তারানা! (ভিডিও)
জাম্বুরি পার্কে ১ ঘণ্টা হাঁটলেন গণপূর্তমন্ত্রী!
ইয়াবা সেবনে বাধা দেয়ায় মাকে হত্যা!
অরুণা বিশ্বাসের এ কী হাল!
ব্রিজের রেলিং ভেঙে হাতিরঝিল লেকে প্রাইভেটকার
ভাবির গোসলের গোপন ভিডিও ইমোতে, অতঃপর…
দুই স্কুল ছাত্রীকে বেত্রাঘাত 
প্রধানমন্ত্রীর প্রতীকী কবর খোড়া সেই মোকছেদ গ্রেপ্তার

সব খবর