২০ অক্টোবর ,শনিবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> জনদুর্ভোগ

 

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি

৬ সেপ্টেম্বর , বুধবার, ২০১৭ ১৫:৩৬:২২

পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তরা ক্ষোভ নিয়ে ছাড়ছে আশ্রয়কেন্দ্র


পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তরা ক্ষোভ নিয়ে ছাড়ছে আশ্রয়কেন্দ্র


রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি ছিল অনেক। করা হবে পুনর্বাসন। হয়তো হবে কোন নিরাপদ স্থানে মাথা গোঁজার ঠাঁই। তাই নতুন করে বাচাঁর স্বপ্নও দেখেছিল গৃহহীন নিঃস্ব মানুষগুলো। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়নি। তাই কিছুটা ক্ষোভ আর অজানা শঙ্কা নিয়ে ছাড়তে হচ্ছে আশ্রয় কেন্দ্রের শেষ ঠিকানাও। এসব ক্ষতিগ্রস্ত গৃহহীন মানুষগুলো আবারও কোন পাহাড়ে অবস্থান নেবে, আবারও তিল তিল করে গড়ে তুলবে আপন ঘর, আবারও হয়ত সেই আশ্রয়টুকু পাহাড়ের নিচে চাপা পড়বে, স্বজনহারা হবেন অনেকে- এই শঙ্কা স্থানীয় সুধীজনদের।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারকে ৬ হাজার টাকা, ২ বান্ডিল টিন ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্তদের  ৩০কেজি চাল ও একহাজার টাকা ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আশ্রয় কেন্দ্র ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এতে দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন ঠিকানাবিহীন মানুষগুলো। একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই খুঁজে বেড়াছেন অনেকেই। স্বামী, সন্তান, পরিবার ও স্বজনহারা মানুষগুলো এখন অনেকটা অনিশ্চিয়তার মধ্যে ছাড়ছে আশ্রয় কেন্দ্র। কোথায় গিয়ে আশ্রয় নেবে সেই উত্তর তাদের অজানা। এ নিয়ে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে স্থানীয় সাধারণ মানুষের মধ্যেও।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ৬নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর রবিমোহন চাকমা জানান, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোকে পুনর্বাসনের নামে যে ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হয়েছে তা খুবই সামান্য। এসব ত্রাণ দিয়ে তারা আদৌ গৃহনির্মাণ করতে পারবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন প্রতিনিধি দল রাঙামাটির ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ও আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। বলা হয়েছিল নতুন কোন নিরাপদ স্থানে তাদের পুনর্বাসন করা হবে। কিন্তু, পাহাড় ধসের দীর্ঘ তিন মাসেও সেই সব প্রতিশ্রুতি আলোর মুখ দেখেনি। এখন ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোর মাথাগোঁজার শেষ আশ্রুয়টুকুও সরকারি বরাদ্দ শেষ হওয়ায় কারণে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে রাঙামাটি মাড়ি স্টেডিয়ামের  (আশ্রয় কেন্দ্র) সকিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে অনেক বড় বড় কথা বলেছিল। আমাদের পুনর্বাসন করা হবে। জায়গা জমি দেওয়া হবে। ঘর বানিয়ে দেওয়া হবে। সেসব কিছুই হয়নি। এখন বলছে আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে যেতে। কিন্তু, কোথায় যাব তা বলে দিচ্ছে না। অনেকেই এসেছিল। অনেক স্বপ্ন দেখিয়েছে। কিন্তু কেউ কথা রাখেনি।

আশ্রিত মো. জিন্নাত আলী বলেন, শহরের শিমুলতলীতে আমার ঘর ছিল। পাহাড় ধসে বিধ্বস্ত হয়েছে। হারিয়েছি ভিটা-বাড়ি। তিন মাস ধরে আশ্রয়কেন্দ্রে অনেক কষ্টে দিন কাটিয়েছি। তবুও তো এটা মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিল। জেলা প্রশাসন নিষেধ করেছে আগের জায়গায় নতুন বাড়ি-ঘর তৈরি না করতে। তারা আমাদের অন্য জায়গায় পুনর্বাসন করবে। কিন্তু এতো দিন পর বলছে  আমাদের আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে দিতে। এখন আমরা কোথায় যাব?

এ অভিযোগ বিষয়ে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি তাদের যথাযথ পুনর্বাসন করতে । কিন্তু সে রকম নিরাপদ খাস জমি পাওয়া যায়নি। যে সব জমি আছে সব পাহাড়ে। আমরা চাইলে তাদের পাহাড়ে আবারও বিপদের মুখে ঠেলে দিতে পারি না। আর যেসব সমতল জমি ছিল তাও বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এ অবস্থায় সরকারের বরাদ্দও শেষ হয়ে গেছে। তাই তাদের আর আশ্রয়কেন্দ্রে রেখে সহায়তা দেওয়া যাচ্ছে না। তবে কোন নিরাপদ জমি পাওয়া গেলে তাদের সেখানে পুনর্বাসন করা হবে। 
 


অমৃতসরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬১
চার নারীর যৌন হেনস্থকারীর আত্মহত্যার চেষ্টা
অবশেষে খাসোগি হত্যার কথা স্বীকার সৌদির
মেয়ের লাশ নিয়ে ৮কিমি হেঁটে হাসপাতালে বাবা!
প্রেমিকার বিয়ের খবর শুনে প্রেমিকের বিষ পান!
ভারতে ট্রেনচাপায় ৫০ জন নিহত
খাসোগি ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রকাশ
ওমরাহ পালন করে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী
'কামালের সামর্থ্য আমাদের থেকে কেউ ভালো জানে না'
'ঐক্যফ্রন্টের গোড়াতেই গলদ'
জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারালো বিসিবি একাদশ
তাড়াহুড়ো করে আইসক্রিম খাবেন না যে কারণে
অজিদের হারিয়ে পাকিস্তানের সিরিজ জয়
‘ঐক্যফ্রন্টের গোঁড়াতেই গলদ’
মুক্ত আকাশে উড়ল বক
দুর্গোৎসব উপলক্ষে ফ্রি চিকিৎসা
আঁতে ঘা লেগেছে সরকারের: মওদুদ 
সালমান ইন, সালমান আউট!
জেলেদের হাতে পুলিশ আটক!
ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়লেই পরমানু হামলা, পুতিনের হুঁশিয়ারি
অমৃতসরে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৬১
চার নারীর যৌন হেনস্থকারীর আত্মহত্যার চেষ্টা
অবশেষে খাসোগি হত্যার কথা স্বীকার সৌদির
মেয়ের লাশ নিয়ে ৮কিমি হেঁটে হাসপাতালে বাবা!
প্রেমিকার বিয়ের খবর শুনে প্রেমিকের বিষ পান!
ভারতে ট্রেনচাপায় ৫০ জন নিহত
খাসোগি ইস্যুতে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রকাশ
চার বছর ধরে বোনকে ধর্ষণ করল দুই ভাই
ওমরাহ পালন করে দেশের পথে প্রধানমন্ত্রী
'কামালের সামর্থ্য আমাদের থেকে কেউ ভালো জানে না'
'ঐক্যফ্রন্টের গোড়াতেই গলদ'
প্রতি দুইদিনে একজন বিলিয়নার তৈরি করে চীন
জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারালো বিসিবি একাদশ
তাড়াহুড়ো করে আইসক্রিম খাবেন না যে কারণে
অজিদের হারিয়ে পাকিস্তানের সিরিজ জয়
‘ঐক্যফ্রন্টের গোঁড়াতেই গলদ’
'আ’লীগের মধ্যে ভয় ঢুকেছে'
মুক্ত আকাশে উড়ল বক
দুর্গোৎসব উপলক্ষে ফ্রি চিকিৎসা
আঁতে ঘা লেগেছে সরকারের: মওদুদ 
যুক্তরাষ্ট্রের বন্ধু থেকে শত্রু হচ্ছে সৌদি?
সালমান ও আরবাজ আমাকে ধর্ষণ করে(ভিডিও)
ছেলের জন্য পাত্রী দেখে বিয়ে করলেন বাবা!
বেডরুমে যা শুনতে ভালোবাসেন সানি লিওন
ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়লেই পরমানু হামলা, পুতিনের হুঁশিয়ারি
সৌদির হুমকিতে ‘ভয় পেয়ে’ যা বললেন ট্রাম্প
প্রাণভয়ে মালদ্বীপ ছাড়লেন ৪ নির্বাচনী কর্মকর্তা
সালমান ইন, সালমান আউট!
'খাশোগি হত্যার দায় স্বীকার করেছে সৌদি'
সৌদিকে হুশিয়ারি ট্রাম্পের
মঙ্গলবার ওমরাহ পালনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
প্লেনের দুই যাত্রীর পেটে ইয়াবার পোটলা!
টেলিভিশনে খবর পড়লেন চঞ্চল-জয়া
মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন থেকে ফেরত পাঠানো হলো ৬৩ কর্মীকে
নির্বাচনের আগে বিএমডব্লিউ গাড়ি পেলেন সিইসি
যুক্তরাষ্ট্রকে পাল্টা পদক্ষেপের হুঁশিয়ারি সৌদির
ফেরি থেকে নদীতে পড়ে গেল শিশু, অতঃপর...
‘যুক্তরাষ্ট্রকে না থামালে নয়া হিটলারের জন্ম হবে’
যৌন মিলনের যত উপকারিতা
১৩ বছরের কিশোরী গণধর্ষণের শিকার

সব খবর