২০ আগস্ট ,সোমবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> জনদুর্ভোগ

 

ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি

৬ সেপ্টেম্বর , বুধবার, ২০১৭ ১৫:৩৬:২২

পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তরা ক্ষোভ নিয়ে ছাড়ছে আশ্রয়কেন্দ্র


পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তরা ক্ষোভ নিয়ে ছাড়ছে আশ্রয়কেন্দ্র


রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে প্রতিশ্রুতি ছিল অনেক। করা হবে পুনর্বাসন। হয়তো হবে কোন নিরাপদ স্থানে মাথা গোঁজার ঠাঁই। তাই নতুন করে বাচাঁর স্বপ্নও দেখেছিল গৃহহীন নিঃস্ব মানুষগুলো। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়নি। তাই কিছুটা ক্ষোভ আর অজানা শঙ্কা নিয়ে ছাড়তে হচ্ছে আশ্রয় কেন্দ্রের শেষ ঠিকানাও। এসব ক্ষতিগ্রস্ত গৃহহীন মানুষগুলো আবারও কোন পাহাড়ে অবস্থান নেবে, আবারও তিল তিল করে গড়ে তুলবে আপন ঘর, আবারও হয়ত সেই আশ্রয়টুকু পাহাড়ের নিচে চাপা পড়বে, স্বজনহারা হবেন অনেকে- এই শঙ্কা স্থানীয় সুধীজনদের।

রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতি পরিবারকে ৬ হাজার টাকা, ২ বান্ডিল টিন ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্তদের  ৩০কেজি চাল ও একহাজার টাকা ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে ৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আশ্রয় কেন্দ্র ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এতে দুঃশ্চিন্তায় পড়েছেন ঠিকানাবিহীন মানুষগুলো। একটু মাথা গোঁজার ঠাঁই খুঁজে বেড়াছেন অনেকেই। স্বামী, সন্তান, পরিবার ও স্বজনহারা মানুষগুলো এখন অনেকটা অনিশ্চিয়তার মধ্যে ছাড়ছে আশ্রয় কেন্দ্র। কোথায় গিয়ে আশ্রয় নেবে সেই উত্তর তাদের অজানা। এ নিয়ে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে স্থানীয় সাধারণ মানুষের মধ্যেও।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ৬নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর রবিমোহন চাকমা জানান, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোকে পুনর্বাসনের নামে যে ত্রাণ সামগ্রী দেওয়া হয়েছে তা খুবই সামান্য। এসব ত্রাণ দিয়ে তারা আদৌ গৃহনির্মাণ করতে পারবে কি না, তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

অভিযোগ রয়েছে, পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন প্রতিনিধি দল রাঙামাটির ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ও আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। বলা হয়েছিল নতুন কোন নিরাপদ স্থানে তাদের পুনর্বাসন করা হবে। কিন্তু, পাহাড় ধসের দীর্ঘ তিন মাসেও সেই সব প্রতিশ্রুতি আলোর মুখ দেখেনি। এখন ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোর মাথাগোঁজার শেষ আশ্রুয়টুকুও সরকারি বরাদ্দ শেষ হওয়ায় কারণে বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে রাঙামাটি মাড়ি স্টেডিয়ামের  (আশ্রয় কেন্দ্র) সকিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন, পাহাড় ধসের ঘটনার পর সরকারের পক্ষ থেকে অনেক বড় বড় কথা বলেছিল। আমাদের পুনর্বাসন করা হবে। জায়গা জমি দেওয়া হবে। ঘর বানিয়ে দেওয়া হবে। সেসব কিছুই হয়নি। এখন বলছে আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে যেতে। কিন্তু, কোথায় যাব তা বলে দিচ্ছে না। অনেকেই এসেছিল। অনেক স্বপ্ন দেখিয়েছে। কিন্তু কেউ কথা রাখেনি।

আশ্রিত মো. জিন্নাত আলী বলেন, শহরের শিমুলতলীতে আমার ঘর ছিল। পাহাড় ধসে বিধ্বস্ত হয়েছে। হারিয়েছি ভিটা-বাড়ি। তিন মাস ধরে আশ্রয়কেন্দ্রে অনেক কষ্টে দিন কাটিয়েছি। তবুও তো এটা মাথা গোঁজার ঠাঁই ছিল। জেলা প্রশাসন নিষেধ করেছে আগের জায়গায় নতুন বাড়ি-ঘর তৈরি না করতে। তারা আমাদের অন্য জায়গায় পুনর্বাসন করবে। কিন্তু এতো দিন পর বলছে  আমাদের আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে দিতে। এখন আমরা কোথায় যাব?

এ অভিযোগ বিষয়ে রাঙামাটি জেলা প্রশাসক বলেন, আমরা চেষ্টা করেছি তাদের যথাযথ পুনর্বাসন করতে । কিন্তু সে রকম নিরাপদ খাস জমি পাওয়া যায়নি। যে সব জমি আছে সব পাহাড়ে। আমরা চাইলে তাদের পাহাড়ে আবারও বিপদের মুখে ঠেলে দিতে পারি না। আর যেসব সমতল জমি ছিল তাও বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে। এ অবস্থায় সরকারের বরাদ্দও শেষ হয়ে গেছে। তাই তাদের আর আশ্রয়কেন্দ্রে রেখে সহায়তা দেওয়া যাচ্ছে না। তবে কোন নিরাপদ জমি পাওয়া গেলে তাদের সেখানে পুনর্বাসন করা হবে। 
 


থানা হাজতে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু
ঝিনাইদহে সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থী নিহত
চেয়াম্যানের গালে ভ্যান চালকের থাপ্পড়!
২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার নাগরিক সংবর্ধনা
প্রেসার মাপতে ‘স্মার্ট গ্লাস’ আনছে মাইক্রোসফট!
এশিয়া কাপের সময় সূচি অপরিবর্তিত
ভিকারুননিসাকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সতর্কবার্তা
এবার কাবাডিতে বাংলাদেশের জয়
‘শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাই’
মুক্তি পেলেন আরও নয় শিক্ষার্থী
শতাধিক সাপের কামড়েও বেঁচে আছেন তিনি!
খালেদাকে নিজ ডাক্তারের নম্বর দিয়েছিলেন বাজপেয়ী!
ফ্রিতে হাটের গরু পৌঁছে দিচ্ছে 'ট্রাক লাগবে'
পদ্মার ইলিশের জন্য ভারতীয় পাইলটের কাণ্ড! 
রুগ্ন পশু দিয়ে কোরবানি, যা বলে ইসলাম
মার্কিন দূতাবাসে বন্দুকধারীদের হামলা
কোরবানির পশুর ধরণ ও বয়স নিয়ে বিধান
অন্যের পক্ষে কোরবানি করার বিধান
খুলনায় তেলের ডিপোতে আগুন, নিহত ২
অবশেষে জোকোভিচ
নরসিংদীর সিপিবি নেতা মীর লোকমান আর নেই
তারাকান্দায় পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
ময়মনসিংহে ভিজিএফের ৮৮৩ বস্তা চাল জব্দ, আটক ১
থানা হাজতে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু
ঝিনাইদহে সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থী নিহত
চেয়াম্যানের গালে ভ্যান চালকের থাপ্পড়!
২৩ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্কে শেখ হাসিনার নাগরিক সংবর্ধনা
প্রেসার মাপতে ‘স্মার্ট গ্লাস’ আনছে মাইক্রোসফট!
এশিয়া কাপের সময় সূচি অপরিবর্তিত
ভিকারুননিসাকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সতর্কবার্তা
ঝিনাইদহে ভিজিএফের ১০২ বস্তা চাল জব্দ
এবার কাবাডিতে বাংলাদেশের জয়
শিক্ষার্থীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ
‘শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাই’
মুক্তি পেলেন আরও নয় শিক্ষার্থী
শতাধিক সাপের কামড়েও বেঁচে আছেন তিনি!
খালেদাকে নিজ ডাক্তারের নম্বর দিয়েছিলেন বাজপেয়ী!
ফ্রিতে হাটের গরু পৌঁছে দিচ্ছে 'ট্রাক লাগবে'
পদ্মার ইলিশের জন্য ভারতীয় পাইলটের কাণ্ড! 
রুগ্ন পশু দিয়ে কোরবানি, যা বলে ইসলাম
অভিন্ন কলরেটে খরচ বেড়েছে দ্বিগুণ
মন্ত্রীর বউ পরিমনি!
নিষিদ্ধ জগতে নাম লেখাতে ইসলাম ছাড়লো তরুণী!
পানির দরে উড়োজাহাজ ভ্রমণের সুযোগ!
নদী থেকে ভেসে উঠল ট্রলারসহ ২১ গরু!
এবার বাস কেড়ে নিল বরযাত্রীসহ তিন জনের প্রাণ
প্রিয়াঙ্কাকে যা দিলেন শ্বশুর-শাশুড়ি!
জন্মনিয়ন্ত্রক ওষুধ সেবনে হতে পারে যে রোগ!
নাসির-সাব্বিরের ১০ বছর নিষেধাজ্ঞা চান সুজন
পদ্মাসেতু কার্যক্রমের অগ্রগতি প্রত্যক্ষ করছেন প্রধানমন্ত্রী
ডলারের পরিবর্তে নিজস্ব মুদ্রা, চাপে পড়বে যুক্তরাষ্ট্র?
ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হাসিবুর বাঁচতে চায়
শিক্ষকের হাতে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি!
নয় বছরের সৎ মেয়েকে ধর্ষণের চেষ্টা
বলিউডে পা রাখতে যাচ্ছেন শাকিব খান!
হু আর ইউ?: যুুক্তরাষ্ট্রকে দুতের্তে
যুক্তরাষ্ট্র নয়, তুরস্কের প্রতি জার্মানের সমর্থন
লুকিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকা, পরিণতি ভয়াবহ 
উত্তর মেরুতে রাশিয়ার বোমারু বিমান
শনিবার ব্যাংক খোলা

সব খবর