২৩ সেপ্টেম্বর ,রবিবার, ২০১৮

শিরোনাম

> বাংলাদেশ

>> সুখবর

 

নিউজ টোয়েন্টিফোর ডেস্ক

২৩ মে , বুধবার, ২০১৮ ১৪:৪৬:৩৪

চট্টগ্রামের বৃহত্তম মাদক আখড়া গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন


চট্টগ্রামের বৃহত্তম মাদক আখড়া গুঁড়িয়ে দিল প্রশাসন


চট্টগ্রাম নগরীর সবচেয়ে বড় মাদকের আখড়া বরিশাল কলোনির বিভিন্ন অস্থায়ী ঘর গুঁড়িয়ে দিয়েছে প্রশাসন। এ সময় প্রায় শতাধিক মাদক বিক্রি ও সেবনের স্পট ধ্বংস করা হয়েছে। ১৯৮০ সালে রেলওয়ের জায়গায় গড়ে ওঠা মাদকের আখড়াটিতে এই প্রথমবার বড় ধরনের উচ্ছেদ অভিযান চালানো হলো।

আজ (২৩ মে) সকাল ১১ টা থেকে নগরীর আইসফ্যাক্টরি রোডে বরিশাল কলোনিতে এই অভিযান শুরু হয়।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উপ কমিশনার (দক্ষিণ) এস এম মোস্তাইন হোসেনের নেতৃত্বে অভিযানে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলাম, কোতয়ালী ও সদরঘাট থানা পুলিশ, কমিউনিটি পুলিশ, রেল কর্মকর্তা, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ছিলেন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মো.আব্দুর রউফ বলেন, বরিশাল কলোনি এবং মালি কলোনিতে বানানো ছোট ছোট খুপড়ি ঘরে বসে মাদকের আসর। সমাজ কল্যাণ সংঘ নামে একটি ক্লাব ব্যবহৃত হয় মাদকের আসর হিসেবে। এই ধরনের ছোট-বড় মিলিয়ে কমপক্ষে ১শ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। এখন থেকে এখানে পুলিশের কঠোর নজরদারি এবং পাহারা থাকবে।

রেলওয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বরাদ্দকৃত বাসার সঙ্গে বরাদ্দপ্রাপ্তরা অস্থায়ী ঘর তুলে সেগুলো ভাড়া দিয়েছেন। মূলত এসব ঘরই ব্যবহৃত হচ্ছে মাদকের আসর হিসেবে। অভিযানের সময় শাবল দিয়ে ঘরের দরজা ভেঙ্গে ফেলা হয়। পাকা দেওয়ালও ভেঙ্গে ফেলা হয়।

অভিযানে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ভূসম্পদ বিভাগের কানুনগো আব্দুস সালাম উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, রেলওয়ের কোন কোন কর্মকর্তা বরাদ্দপ্রাপ্ত আছেন এবং কারা অবৈধভাবে আছেন, এটার তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। খুব শিগগিরি এই তালিকা পুলিশকে দেওয়া হবে।

সদরঘাট থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, আমার থানা থেকে চিঠি দিয়ে রেলের কাছে তালিকা চাওয়া হয়েছে। এটা পেলে কারা অবৈধভাবে বসবাস করে মাদকের ব্যবসা করছে সেটা নির্ধারণ করা সহজ হবে। এখন আমরা রেলের নির্মিত ঘর ছাড়া বাকি সব গুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ঝোপঝাড়ও কেটে ফেলা হয়েছে।

কোতয়ালী থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন জানান, ১৭ মে র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বরিশাল কলোনিতে হাবিব ও মোশাররফ মারা গেছে। এরপর আরকে গ্রুপ মাদকের আখড়ার নিয়ন্ত্রণ নিতে এলেও সদরঘাট থানা পুলিশ তিনজনকে আটকের পর সেই চেষ্টা ভন্ডুল হয়েছে। এরপর গত কয়েকদিন এখানে মাদক বিক্রি ও সেবন বন্ধ ছিল। আমরা স্থায়ীভাবে এটা বন্ধ করতে বিভিন্ন স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিয়েছি।

পুলিশের দেয়া তথ্যমতে, বরিশাল কলোনির নিয়ন্ত্রক মাদক সম্রাট ফারুক ওরফে বাইট্যা ফারুক ২০১৭ সালের ২০ অক্টোবর সেই মাদক আখড়ার অদূরে আইস ফ্যাক্টরি রোডে র‌্যাবের সঙ্গে ‘ক্রসফায়ারে’ নিহত হয়। ফারুকের সেকেন্ড ইন কমান্ড ছিলেন ইউসুফ। তার সঙ্গে ছিলেন সালামত। খসরু ছিলেন ফারুকের ম্যানেজার। খসরুর ভাই শুক্কুরও ছিলেন এই সিন্ডিকেটে। মূলত তারাই ২০১৭ সালের অক্টোবর পর্যন্ত বরিশাল কলোনির একচ্ছত্র নিয়ন্ত্রক ছিলেন। ফারুক মারা যাবার পর তার ভাই শুক্কুরের সন্দেহ হয়, ইউসুফ এবং সালামত মিলেই ফারুককে র‌্যাবের হাতে ধরিয়ে দেয়। এই সন্দেহ থেকে তাদের সিন্ডিকেটে ভাঙ্গন ধরে। শুক্কুর তাদের গ্রামের বাড়ি পটিয়া উপজেলার ধলঘাট ইউনিয়নের নন্দেরখীল গ্রামে চলে যান। ম্যানেজার খসরু টাকাপয়সা নিয়ে পালিয়ে যায়। বরিশাল কলোনির নিয়ন্ত্রণ চলে আসে ইউসুফ ও সালামতের কাছে।

সর্বশেষ র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা যাওয়া হাবিব এবং মোশাররফ ছিলেন ইউসুফ-সালামত সিন্ডিকেটের সঙ্গে। বন্দুকযুদ্ধের ঘটনার পর এই সিন্ডিকেটের সবাই পালিয়ে যান। বন্দুকযুদ্ধের ঘটনার রাত পার হওয়ার পরেই শুক্কুরের লোকজন বরিশাল কলোনিতে এসে নিয়ন্ত্রণ নেয়।

পুলিশ জানায়, বরিশাল কলোনির ভেতরে মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রনে ছোট ছোট স্পট আছে যেগুলোকে তাদের ভাষায় ‘গিরা’ বলা হয়।

বরিশাল কলোনির ভেতরে মালি কলোনিতে ৮ নম্বর ব্লকে টিটির গিরা নামে একটি স্পট আছে যেটি মাদক ব্যবসায়ীদের অফিস কক্ষ হিসেবে ব্যবহার হয়। স্টেশন কলোনিতে একটি স্পট আছে যেটি নাজমার গিরা নামে পরিচিত।

এছাড়া স্বপন বড়ুয়ার গিরা, ডান্ডির গিরা, হালিম সাহেবের গিরা নামে আরও কয়েকটি স্পট আছে। অভিযানে ২০০ পুলিশ সদস্য অংশ নেন।

অরিন/নিউজ টোয়েন্টিফোর


টস জিতে ব্যাটিংয়ে সরফরাজরা
টস জিতে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা
বাড্ডায় বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত
তরুণীর গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়া দিল লম্পটরা
নেত্রকোনায় মাদক মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
সাতক্ষীরায় অতিরিক্ত মদপানে প্রাণ গেল যুবকের
‘যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্য ছাড়তে বাধ্য হবে’
সুযোগ কী হারালেন আশরাফুল!
'দেশের মানুষ বিএনপিকে বর্জন করেছে'
অস্কারে যাচ্ছে ‘ডুব’
নাইজেরিয়ায় কলেরায় ৯৭ জনের মৃত্যু
চট্টগ্রামে সড়ক দুর্ঘটায় নিহত ২
তানজানিয়ায় ফেরিডুবিতে নিহত বেড়ে ২০৯
ধর্ষণ করে মাথা কেটে নিল ধর্ষণকারীরা!
বেনাপোল দিয়ে আমদানি রপ্তানি বন্ধ
আফগানদের বিপক্ষে বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ
'বাংলাদেশি অভিবাসীরা উইপোকা'
চার কোটি টাকার ইয়াবাসহ মডেল আটক
আফগান স্পিনজাদু কাটাতে পারবে বাংলাদেশ!
মাদক ব্যসায়ীদের মধ্যে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১
টস জিতে ব্যাটিংয়ে সরফরাজরা
টস জিতে ব্যাটিংয়ে টাইগাররা
বাড্ডায় বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত
তরুণীর গোপনাঙ্গে মরিচের গুঁড়া দিল লম্পটরা
নেত্রকোনায় মাদক মামলায় তিনজনের যাবজ্জীবন
সাতক্ষীরায় অতিরিক্ত মদপানে প্রাণ গেল যুবকের
‘যুক্তরাষ্ট্র মধ্যপ্রাচ্য ছাড়তে বাধ্য হবে’
যুক্তরাষ্ট্রে গ্রিনকার্ড আবেদনকারীদের জন্য দুঃসংবাদ
পাঁচ বছর আগে ক্যাটরিনার প্রেমে পড়েন আমির
গাজীপুরে শ্রমিক বিক্ষোভ মহাসড়ক অবরোধ
নিউইয়র্কে এস কে সিনহার বিচার দাবি শোভাযাত্রা
সুযোগ কী হারালেন আশরাফুল!
'দেশের মানুষ বিএনপিকে বর্জন করেছে'
অস্কারে যাচ্ছে ‘ডুব’
ট্রাক-অটোরিক্সা মুখোমুখি সংর্ঘষে আহত ৫
কালকিনিতে চাল আত্মসাতে মহিলা মেম্বার আটক
নাইজেরিয়ায় কলেরায় ৯৭ জনের মৃত্যু
মহেশপুরে ট্রাক চাপায় স্কুলছাত্রের মৃত্যু
চট্টগ্রামে সড়ক দুর্ঘটায় নিহত ২
তানজানিয়ায় ফেরিডুবিতে নিহত বেড়ে ২০৯
কাবা শরীফের ভেতরে ঢুকলেন ইমরান খান(ভিডিও)
আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে টাইগারদের সম্ভাব্য একাদশ
আ.লীগ-বিএনপির ৪০০ নেতার শপথ
শিক্ষক হলেন হাছান মাহমুদ, পড়াবেন জাহাঙ্গীরনগরে
‘মন্ত্রীর পা ধরেও সড়কের কাজ শুরু করা যায় নি’
কুড়িগ্রামে কিশোর-কিশোরীর লাশ উদ্ধার
ইসরাইলকে রাশিয়ার হুঁশিয়ারি
ওমরাহ ভিসায় সৌদি ভ্রমণে বিশেষ ছাড়
প্রধান শিক্ষকের নির্যাতনে শিক্ষার্থী অজ্ঞান!
ট্রাম্পের গোপন বিষয়ে ‘বোমা’ ফাটালেন স্টর্মি
সুন্দরী তরুণীদের ধর্ষণ ও হত্যা করাই তার কাজ
নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৯ দালাল আটক
ময়মনসিংহ মেডিকেলের শিক্ষার্থী ভুটানের প্রধানমন্ত্রী!
রোববার চালু হচ্ছে সিম্ফোনির কারখানা 
নির্বাচনে দাঁড়াচ্ছেন সেই খুনি শম্ভুলাল(ভিডিও)
যেসব নারীকে বিবাহ করা হারাম
সন্তান জন্ম দিয়ে বিপাকে প্রবাসীর স্ত্রী
মেয়ে অসুস্থ দেশে ফিরছেন শাকিব
প্রেমের টানে ভারতীয় তরুণী বাংলাদেশে!
নওগাঁয় প্রতারক চক্রের ৪ যুবতী ও তাদের সহযোগী আটক

সব খবর