শরীয়তপুরে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা
শরীয়তপুরে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা

প্রতীকী ছবি

শরীয়তপুরে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টা

অনলাইন ডেস্ক

শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যায় এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে বসির বেপারী (৩৫)  নামের এক যুবকের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে ডামুড্যা থানায় মামলা করেছেন বলে জানান ডামুড্যা থানা অফিসার ইনচার্জ শরীফ আহমেদ।

সোমবার দুপুরে মামলাটি করেন ভুক্তভোগী ছাত্রীর মা। অভিযুক্ত বসির বেপারী উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামের সুলাইমান বেপারীর ছেলে।

তার দুই ছেলে রয়েছে।

পুলিশ ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত শনিবার সকালে ঝড়ের পরে আম কুড়ানোর জন্য মেয়েটির মা ও বোন বাড়ির পাশে বাগানে যায়। এই সুযোগে মেয়েটির ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ধর্ষণের চেষ্টা করে অভিযুক্ত বেপারী। এ সময় ভুক্তভোগীর চিৎকারে এক প্রতিবেশী নারী এগিয়ে এলে অভিযুক্ত দৌড়ে পালিয়ে যায়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন জানান, ভুক্তভোগীর পরিবার বেশ কয়েকবার থানায় যেতে চেয়েছিল কিন্তু স্থানীয়দের চাপে যেতে পারেনি। তারা টাকা দিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করার জন্য বলে। এ বিষয়ে মেয়ের বাবাকে কয়েকবার হুমকি দেওয়া হয়।

ভুক্তভোগীর মা জানান, সেদিন আমার মেয়ে অসুস্থ হয়ে ঘরে শুয়ে ছিল। আমি আম কুড়ানোর জন্য পাশে বাগানে যাই। পরে আমার মেয়ের ডাক চিৎকার শুনে দৌড়ে আসি। আমার মেয়ে ও প্রতিবেশীর কাছ থেকে ঘটনাটি শুনি। এ বিষয়ে বেশ কয়েকবার স্থানীয় কয়েকজন টাকা নিয়ে আসে। টাকা নিয়ে সব কিছু মীমাংসা করে ফেলার জন্য বলে। তারা আমার মেয়ের ইজ্জত টাকা দিয়ে কিনতে চায়। রোববার রাতে চেয়ারম্যান আমার স্বামীকে ডেকে মেয়েকে নিয়ে কয়েকদিনের জন্য অন্য কোথাও চলে যেতে বলেন। আমি এখন নিরুপায় হয়ে থানায় এসেছি।

যদিও এ অভিযোগ অস্বীকার করে ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. আবুল হোসেন মোল্লা। তিনি বলেন, ‘সেদিন এলাকায় আমি ছিলাম না। আমি জানি না বা আমার কাছে কেউ আসেনি। ’ মেয়ের পরিবারকে চাপ দেওয়ার বিষয়টিও তিনি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, আমার কাছে ভুক্তভোগীর পরিবার এসেছিল আমি তাদের থানায় যেতে বলি।  

অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ডামুড্যা থানা অফিসার্স ইনচার্জ শরীফ আহমেদ। তিনি বলেছেন, এই ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে মামলা করেন। তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

news24bd.tv/কামরুল