কৃত্রিম সংকট তৈরি কারীদের ছাড় নয় : বাণিজ্যমন্ত্রী
কৃত্রিম সংকট তৈরি কারীদের ছাড় নয় : বাণিজ্যমন্ত্রী

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি

কৃত্রিম সংকট তৈরি কারীদের ছাড় নয় : বাণিজ্যমন্ত্রী

ইসমাইল হোসাইন রায়হান স্পেন থেকে :

বাজারে কোন পণ্যে সরবরাহ কমা মাত্রই কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে ব্যস্ত থাকে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা। এসব অসাধু ব্যবসায়ীরা অবৈধ মজুদ করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে দেয়। ব্যবসায়ীদের অতিমুনাফার লোভে পিষ্ট হচ্ছেন সাধারণ ক্রেতারা। ভোজ্য তেলের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধির সময়ে মৌসুমি ফল তরমুজ নিয়েও একই ঘটনা ঘটেছে।

ক্যাব বলছে, ব্যবসায়ীরা শতকরা ৪০% এরও বেশি লাভ করেন।

বাংলাদেশে এই মুনাফালোভীদের দৌরাত্ম সবচেয়ে বেশি বাড়ে রোজার মাসে। সরবরাহ ঠিক থাকার পরেও ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে দাম বাড়িয়ে দিয়ে মুনাফা লুটে। আর এর জন্য তারা কখনো সরবরাহ ব্যবস্থাকে বাধাগ্রস্ত করে আবার কখনো পণ্য মজুত করে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করে। মুনাফালোভীরা শুধু রমজান মাস নয়, সবসময়ই অজুহাত খোঁজেন। যেমন ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধের খবর এলেই বাজারে পেয়াজের দাম কেজি প্রতি ১০ টাকা বেড়ে যায়। অথচ দেশে পর্যাপ্ত পেঁয়াজের মজুত আছে। দেশে গমের মজুতে এখনো ঘাটতি না পড়লেও বাজারে দাম বাড়ছে। চালেরও একই অবস্থা।

বাণিজ্যমন্ত্রী

চারদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে স্পেনে অবস্থান করছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপি। স্পেন সফরকালে নিউজ টোয়েন্টিফোরকে দেয়া বিশেষ সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, অসাধু ব্যবসায়ীরা সব সময় সুযোগের অপেক্ষায় থাকে, সেক্ষেত্রে ভোক্তা অধিকারের কর্মকর্তারা তাদের গুদামে অভিযান পরিচালনা করে, জরিমানা করে, জেল দেয় তবে সরবরাহ ঠিক থাকলে ভালো থাকলে এই সুযোগটা কেউ নিতে পারে না। সরবরাহ কম হলেই অসাধু ব্যবসায়ীরা সুযোগ নেয় তবে এ ব্যাপারে আমরা সতর্ক আছি, কেউ যদি অবৈধ মজুদ করে তাদের বিরুদ্ধে ভোক্তা অধিকারের মাধ্যমে শাস্তি ব্যবস্থা করা হবে।

উল্লেখ্য মন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে রয়েছেন দুইজন ব্যবসায়ী এবং একজন সরকারী কর্মকর্তা। ব্যবসায়ীরা হলেন- আক্তার গ্রুপের চেয়ারম্যান ডক্টর কে. এম আক্তারুজ্জামান (সিআইপি) এবং এনভয় গ্রুপের চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন আহমেদ। সরকারী কর্মকর্তা হলেন- বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ মোস্তফা জামাল হায়দার।

news24bd.tv/কামরুল