ভারত থেকে ঢোকা রোহিঙ্গাদের পুশব্যাক করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
ভারত থেকে ঢোকা রোহিঙ্গাদের পুশব্যাক করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সংগৃহীত ছবি

ভারত থেকে ঢোকা রোহিঙ্গাদের পুশব্যাক করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

ভারত থেকে সম্প্রতি বেশকিছু রোহিঙ্গা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করেছে। নতুন করে কোন রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশের চেষ্টা করলে তাদের ভারতে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। একই সঙ্গে উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি শিবিরে আশ্রিত রোহিঙ্গারা যাতে বাহিরে আসতে না পারে সেদিকেও নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৬ মে) রাত পৌনে ১১ টার দিকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে ‘বলপ্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের সমন্বয়, ব্যবস্থাপনা ও আইন-শৃঙ্খলা সম্পর্কিত নির্বাহী কমিটি'র সভা শেষে এসব কথা বলেন তিনি।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, রোহিঙ্গারা এখন মাদক পাচার ও ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। একই সঙ্গে মাঝে মাঝে উত্তপ্ত হয় ক্যাম্পগুলো। রক্তপাতের এসব খেলা বন্ধ করার জন্য সর্বোচ্চ নির্দেশনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এসব অপরাধ ঠেকাতে র‌্যাব, পুলিশের পাশাপাশি বিজিবিও সক্রিয়ভাবে কাজ করবে। এছাড়া এপিবিএনের তিনটি ব্যাটালিয়ন এখন সব ক্যাম্পের পুর্ণ দায়িত্বে রয়েছে। তারা ২৪ ঘন্টা সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার রেখেছে।

ক্যাম্পের ভেতরে-বাইরে যারা মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছে তাদের চিহ্নিত করা হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ক্যাম্পগুলোতে মাদকের ব্যবসা যেকোন মূল্যে বন্ধ করা হবে। ক্যাম্পের অভ্যন্তরে যেমন মাদকের কারবার চলে তেমনি বাইরেও চলে। এসব কর্মকান্ডে যারায় জড়িত থাকুক না কেন তাদের আইনের আওতায় আনা হবে। ইতিমধ্যে ক্যাম্পে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সম্প্রতি রোহিঙ্গারা ক্যাম্পের বাইরে চলে যাচ্ছে। ক্যাম্পগুলোর চারদিকে সীমানা প্রাচীর করা হয়েছে। যাতে কোন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের বাইরে যেতে না পারে সেদিকে খেয়াল রাখার বিষয়টিও আজকের বৈঠকে আলোচনা করা হয়।

উখিয়া-টেকনাফের চেয়ে ভাসানচরে অনেক উন্নত ব্যবস্থা করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের যেভাবে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফে আশ্রয় দিয়েছে তার চেয়ে উন্নত ব্যবস্থা ভাসানচরে করেছেন। প্রতিবছর রোহিঙ্গাদের সংখ্যা বাড়ছে। সে হিসেবে এখনি স্ব ইচ্ছায় রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে চলে যাওয়া উচিত বলে মনে করেন মন্ত্রী।

সভায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রানালয়ের জন নিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আখতার হোসেন, পুলিশের মহা পরিদর্শক ড. বেনজির আহমদ, বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ, চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার আশরাফ উদ্দিন, কক্সবাজার ত্রাণ ও রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজোয়ান হায়াত, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. মিজানুর রহমান, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন, ও কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো: মামুনুর রশীদ সহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv/আলী