দিনে রংমিস্ত্রি-ডেলিভারিম্যান, রাতে ডাকাত
দিনে রংমিস্ত্রি-ডেলিভারিম্যান, রাতে ডাকাত

সংগৃহীত ছবি

দিনে রংমিস্ত্রি-ডেলিভারিম্যান, রাতে ডাকাত

নিজস্ব প্রতিবেদক

তাদের ছয়জনের কেউ পেশায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক, অনলাইন ফুড ডেলিভারিম্যান, রংমিস্ত্রি, মুদি দোকানের কর্মচারী। আর রাত হলেই তারা হয়ে উঠেন দুর্ধর্ষ  ডাকাতি। এই ডাকাত চক্রের ছয় সদস্যকে আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের তেজগাঁও বিভাগ। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন সুজন হাওলাদার, রবিউল আউয়াল রবি, বাবু ওরফে জুয়েল, মো. রনি, একরাম আলী ও ইব্রাহিম মাঝি।

সোমবার তাদের রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান, ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম ও ডিবি-উত্তর) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

গ্রেপ্তার ছয়জনের কাছ থেকে একটি একনলা বন্দুক, একটি অটোরিকশা, একটি চাপাতি, দুটি ছোরা, একটি লোহার রড, একটি কাটার পাইপ রেঞ্জ ও ২৫ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

ডাকাতির কৌশল সম্পর্কে গোয়েন্দা কর্মকর্তা মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানান, তারা কেউ পেশায় সিএনজি অটোরিকশার চালক, কেউ ফুড ডেলিভারিম্যান, কেউ রংমিস্ত্রি, আবার কেউ মুদি দোকানের কর্মচারী।

এরা নিজেদের পেশাকে কাজে লাগিয়ে প্রথমে বাসাবাড়ি রেকি করেন। পরে একটি নির্জন স্থানে পরিকল্পনা করে কার কী দায়িত্ব তা বুঝিয়ে দিয়ে ওই রেকি করা বাসায় ডাকাতি করে থাকেন।

তিনি বলেন, সকাল থেকে রাত পর্যন্ত একনাগাড়ে কাজ করার চেয়ে ১-২ ঘণ্টায় বেশি আয় করতে পারে বলে তারা এ পথ বেছে নিয়েছে জানিয়েছে। সংঘবদ্ধ আন্তজেলা এ ডাকাত দলটিতে ১৪-১৫ জন সদস্য রয়েছেন। এরই মধ্যে গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা ধামরাই, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এবং মুন্সীগঞ্জে ডাকাতি করেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করেছেন। তাদের বিরুদ্ধে  মোহাম্মদপুর থানায় অস্ত্র ও ডাকাতির প্রস্তুতির পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।

news24bd.tv/আলী