'শিগগিরই স্বর্ণ শিল্পীদের জন্য প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হবে'
'শিগগিরই স্বর্ণ শিল্পীদের জন্য প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হবে'

সংগৃহীত ছবি

'শিগগিরই স্বর্ণ শিল্পীদের জন্য প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হবে'

অনলাইন ডেস্ক

‘বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশন (বাজুস) প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে আগামী দিনে স্বর্ণ শিল্প আরও সমৃদ্ধ হবে। অচিরেই স্বর্ণ শিল্পীদের জন্য একটি প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট এবং অলঙ্কার প্রস্তুতের জন্য অপর একটি ডিজাইন ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা হবে। সায়েম সোবহান আনভীর দায়িত্ব নেয়ার পর বাংলাদেশে স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের মাঝে সাড়া জেগেছে। আশার সঞ্চার হয়েছে।

আগে সারাদেশে যেখানে বাজুসের সদস্য সংখ্যা ছিল ৮ থেকে ৯  হাজার। সেখানে মাত্র ৬ মাসে সদস্য সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৪০ হাজার। বাজুস প্রেসিডেন্ট সায়েম সোবহান আনভীরের নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বর্ণ ব্যবসা এবং স্বর্ণশিল্প নতুন এক স্বর্ণ যুগে পদার্পণ করেছে। ’ 

আজ শুক্রবার ভোলায় বাজুসের জেলা শাখা আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাজুস-এর সাবেক সভাপতি ও বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক্ট মনিটরিংয়ের চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায় এসব কথা বলেন।

বাজুস ভোলা জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাহিদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাজুস স্টান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক্ট মনিটরিংয়ের সহ-সভাপতি আনোয়ার হোসেন, বাজুস স্টান্ডিং কমিটি অন ডিস্ট্রিক্ট মনিটরিংয়ের সহ-সম্পাদক জয়নাল আবেদীন খোকন, কার্যনির্বাহী সদস্য পবিত্র চন্দ্র ঘোস। এসময় বাজুস ভোলা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অবিনাশ নন্দির উপস্থাপনায় আরও বক্তব্য রাখেন বাজুস ভোলা জেলা শাখার সহ-সভাপতি গোপিনাথ পোদ্দার, দৌলতখান উপজেলা বাজুস-এর সাধারণ সম্পাদক সুমন প্রতাপ সিং প্রমুখ।  

মতবিনিময় সভায় বক্তারা বলেন, ‘বাংলাদেশে সুনির্দিষ্ট স্বর্ণ নীতিমালা না থাকায় দীর্ঘদিন স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা সমস্যায় ছিলেন। আইনি জটিলতা ছাড়াও বিভিন্ন সময় সমস্যায় পড়তে হতো। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা স্বর্ণ নীতিমালা করে দিয়েছেন। এখন তেমন সমস্যা নেই। ’ এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বক্তারা।

বক্তারা আরও বলেন, ‘সারাদেশের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের একই ছায়াতলে আসতে হবে। বাজুসের সদস্য হতে হবে। বাজুসের সদস্য না হয়ে কেউ স্বর্ণ ব্যবসায় আসতে পারবেন না। বাজুসের সদস্য কোনো ব্যবসায়ী কোথায়ও সমস্যায় পড়লে বাজুস তা সম্মিলিতভাবে মোকাবিলা করবে। ’ মতবিনিময় সভার শুরুতে প্রধান অতিথি ডা. দিলীপ কুমার রায়কে ভোলা জেলা বাজুসের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।