শিশু কন্যাকে পুকুরে ছুঁড়ে হত্যাচেষ্টা, বাবা আটক
শিশু কন্যাকে পুকুরে ছুঁড়ে হত্যাচেষ্টা, বাবা আটক

আটক শফিক হোসেন

শিশু কন্যাকে পুকুরে ছুঁড়ে হত্যাচেষ্টা, বাবা আটক

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি : 

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় তিন বছরের কন্যাকে পুকুরে নিক্ষেপের ঘটনায় পাষণ্ড বাবা শফিক হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ। অবশ্য এ ঘটনায় অলৌকিকভাবে বেঁচে গেছে শিশুটি।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) দুপুরে হত্যা চেষ্টার মামলা দিয়ে আটক শফিক হোসেনকে আদালতের মাধ্যমে কুড়িগ্রাম কারাগারে পাঠানো হয়। এর আগে বুধবার (১ জুন) সন্ধ্যায় স্থানীয় বাঁশজানী বাজারে শফিককে আটক করে পুলিশে দিয়েছেন স্থানীয়রা।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভূরুঙ্গামারী উপজেলার তিলাই ইউনিয়নের পশ্চিমছাট গোপালপুর গ্রামের শফিক হোসেনের সঙ্গে প্রায় ৭ বছর আগে দক্ষিণ বাঁশজানী গ্রামের সুমা খাতুনের (২৫) বিয়ে হয়। তাদের সুমনা খাতুন (৫) ও ঝুমরী খাতুন (৩) নামে দুটি কন্যা সন্তান জন্ম নেওয়ায় প্রায়ই ঝগড়াবিবাদ লেগেই থাকতো। এ অবস্থায় প্রায় ৪ মাস আগে সুমা খাতুন মেয়েদের নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যান। এর ৩ মাস পর শফিক হোসেনও শ্বশুর বাড়ি এসে থাকতে শুরু করেন।

গত শনিবার (২৮ মে) রাতে ২ মেয়ে ও স্বামীকে নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন সুমা। কিন্তু গভীররাতে ঘুম ভাঙলে দেখেন ঘরে ছোট মেয়ে ঝুমরি ও স্বামী শফিক হোসেন নেই। পরে আত্মীয়-স্বজনসহ খোঁজাখুঁজির পর ভোরে পার্শ্ববর্তী আলম মিয়ার পুকুরে শুকনা বাঁশ ধরে থাকা অবস্থায় ঝুমরিকে জীবিত উদ্ধার করা হয়।

ঘটনার পর থেকে শফিক হোসেন পলাতক ছিলেন। বুধবার (১ জুন) বিকেলে পার্শ্ববর্তী বাঁশজানী বাজারে শফিককে ঘোরাঘুরি করতে দেখে স্থানীয়রা আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি মেয়ে ঝুমরিকে পুকুরে ছুঁড়ে ফেলে পালিয়ে আসার কথা স্বীকার করেন। পরে বিষয়টি জানতে পেরে সন্ধ্যায় ভূরুঙ্গামারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ শফিক হোসেনকে আটক করে থানায় নিয়ে যান।

ওসি আলমগীর হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে নিউজ টোয়েন্টিফোরকে জানান, নিজের তিন বছরের মেয়েকে পুকুরে নিক্ষেপের ঘটনায় আটক শফিক হোসেনের নামে বৃহস্পতিবার হত্যা চেষ্টার মামলা দিয়ে কুড়িগ্রাম আদালতে পাঠানো হয়েছে।

news24bd.tv/কামরুল