বিএনপি দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপতৎপরতা চালাচ্ছে
বিএনপি দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপতৎপরতা চালাচ্ছে

সংগৃহীত ছবি

বিএনপি দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপতৎপরতা চালাচ্ছে

অনলাইন ডেস্ক

বিএনপি দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপতৎপরতা চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র আমির হোসেন আমু। শুক্রবার রাজধানীর ইস্কাটনে তার নিজ বাসভবনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সভা শেষে তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সভায় দেশে বিদ্যমান আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সভা শেষে সভাপতি আমির হোসেন আমু সাংবাদিকদের উদ্দেশে ব্রিফিং করেন।

তিনি বলেন, বিএনপি দেশে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টির অপতৎপরতা চালাচ্ছে। সম্প্রতি বিএনপির সমাবেশে ‘৭৫-এর হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার’ স্লোগান প্রমাণ করে বিএনপি দেশে নতুনভাবে হত্যা, ক্যু, ষড়যন্ত্রের রাজনীতি চালু করতে চায়। এর প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় ১৪ দল সভা থেকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাকে নিরঙ্কুশ সমর্থনের অঙ্গীকার করে এবং দেশের জনগণকে পাশে থাকার আহ্বান জানায়।

সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক আগামী ১৩ জুন সকাল ১১টায় ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য এবং কেন্দ্রীয় ১৪ দলের সাবেক মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভার আয়োজন করা হবে।

সভা থেকে নিয়মিতভাবে জেলা পর্যায়ে ১৪ দলের নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠানের নির্দেশনা প্রদান করা হয়। পাশাপাশি সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ জেলাগুলোতে সফর করবেন।

সভায় নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অদম্য ইচ্ছাশক্তির কারণেই নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মতো বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব হয়েছে। এজন্য ১৪ দলের নেতৃবৃন্দ দেশবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান। দ্রুত সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় ১৪ দল ঢাকা মহানগরীতে একটি আনন্দ সমাবেশ আয়োজন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং একইসাথে গণতন্ত্র ও উন্নয়নের ধারাকে চলমান রাখতে কেন্দ্রীয় ১৪ দল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে একনিষ্ঠভাবে সমর্থন অব্যাহত রাখার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়া, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের আহ্বায়ক ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম খান, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, গণ-আজাদী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এস. কে শিকদার, জাতীয় পার্টির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এজাজ আহম্মদ মুক্তা, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের মহাসচিব মো. আল ফারুকী প্রমুখ।  
news24bd.tv/আলী