ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন, পুরস্কার পেল নিউজটোয়েন্টিফোর
ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন, পুরস্কার পেল নিউজটোয়েন্টিফোর

ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন, পুরস্কার পেল নিউজটোয়েন্টিফোর

ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন, পুরস্কার পেল নিউজটোয়েন্টিফোর

নিজস্ব প্রতিবেদক

অনুষ্ঠিত হলো ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব মাস কমিউনিকেশন এর এলামনাই সম্মেলন কানেকশন্স ২০২২ এবং বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কভিত্তিক রিপোর্টিং পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান। এতে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য ইমক্যাব অ্যাওয়ার্ড পেলেন বসুন্ধরা গ্রুপের একটি টেলিভিশন নিউজ টোয়েন্টিফোরের টিম আন্ডারকভার।

শনিবার (৪ জুন) সন্ধ্যায় রাজধানীর ঢাকা ক্লাবের স্যমসন এইচ চৌধুরী সেন্টারে এর আয়োজন করা হয়। এতে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী, প্রধানমন্ত্রী প্রেস সচিব ইহসানুল করিমসহ বাংলাদেশ ও ভারতের আমন্ত্রিত অতিথিরা।

২০১৯ সালে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে আগ্নেয়াস্ত্র প্রবেশের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য এই অ্যাওয়ার্ড পায় নিউজ টোয়েন্টিফোর টেলিভিশনের টিম আন্ডারকাভার ও বিশেষ প্রতিনিধি আশিকুর রহমান শ্রাবণ।

এছাড়া ২০২০ সালের প্রতিবেদনের জন্য প্রথম আলোর সাংবাদিক রাহীদ এজাজ এবং ২০২১ সালের প্রতিবেদনের জন্য নিউজনাওবাংলা ডট কমের সাংবাদিক শামীমা দোলার হাতে এই পুরস্কার তুলে দেয়া হয়।

পুরস্কারপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে একটি ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট, ৫০ হাজার টাকা সম্মানী দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠা‌নে বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, 'সাংবাদিকরা সব সময় একটি দেশকে জাগিয়ে রাখেন। আজকে পুরস্কারপ্রাপ্তরাসহ সব সাংবাদিক সেই কাজটি খুব ভালোবেসে করে থাকেন। তারা একটি দেশের পরিবর্তন আনতে সহায়ক। পুরো বিশ্বের মধ্যে তারা নিজেদের দেশকে জাগিয়ে রেখেছেন দীপ জ্বেলে। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কও অনেক ভালো এবং বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়ায় তারা একসঙ্গে অনেক কাজের সুযোগ পায়। স্বাধীনতার শক্তিকে অন্যতম শক্তি মেনে এই সাংবাদিকরা নিজেদের দেশের মতো দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। দুই দেশের জনগণই নিজেদের মধ্যে শিক্ষা, সংস্কৃতি, ব্যবসার বিনিময়ও অনেক। আমাদের মধ্যে মেজর কোনো ইস্যু নিয়ে বিরোধ নেই। এই সম্পর্ক আরো জোরদার হবে বলে আমি আশা করি। '

অনুষ্ঠা‌নে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, 'আমাদের দেশে অনেকেই রাজনৈতিক কারণে ভারত বিরোধিতা করেন। তবে ভারতের মতো প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে বিরোধ করে আমাদের মতো রাষ্ট্রের উন্নয়ন সম্ভব নয়। ভারত ও বাংলাদেশ নিয়ে যেন কোনো মতবিরোধ না হয়, সেটি নিয়ে সাংবাদিকরা বলতে পারেন। আমাদের দেশেও রাজনৈতিক নেতা আছে, সেখানেও আছে। ফায়দা লুটার জন্য অনেকেই অনেক কথা বলেন। সেটিকে মূখ্য করে সংবাদ পরিবেশন করা কোনো সঠিক সংবাদ নয়। আপনারা আরো ভালো কাজ করবেন এবং আজকের এই আয়োজন দুই দেশের সম্পর্ক আরো উন্নত করবে- এটাই প্রত্যাশা। '

অনুষ্ঠা‌নে সভাপতির বক্তব্যে ইহসানুল করিম বলেন, 'ভারত ও বাংলাদেশ বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অনেক বেশি ভালো। এ সম্পর্ক আগামীতে আরো উন্নত হবে বলে প্রত্যাশা করছি। '

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন পুরস্কারপ্রাপ্ত বাছাই জুরি বোর্ডের প্রধান ইউএনবি'র সম্পাদক ফরিদ হোসেন।  

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সম্পর্ক আরও দৃঢ় করতে বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন করতে সাংবাদিকদের প্রতি আহ্বান জানান অতিথিরা।