রূপপুর প্রকল্পে রুশ নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার
রূপপুর প্রকল্পে রুশ নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

প্রতীকী ছবি

রূপপুর প্রকল্পে রুশ নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার

পাবনা প্রতিনিধি

পাবনার ঈশ্বরদীতে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্পে কর্মরত ইভানভ এনটন (৩৫) নামে এক রুশ নাগরিকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার দিবাগত গভীর রাতে উপজেলার সাহাপুরের নতুন হাট মোড়ে বিদেশিদের জন্য নির্মিত আবাসন গ্রিনসিটি বহুতল ভবনের একটি কক্ষের লিফটের সামনে থেকে ওই মরদেহ উদ্ধার করা হয়।  

ইভানভ ঈশ্বরদীর পাকশীতে রূপপুর প্রকল্পে ‘রোসেম’ নামে একটি বিদেশি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা ছিলেন। বেশ কিছুদিন আগে তিনি ওই প্রতিষ্ঠানে যোগ দেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, রোববার রাত ৯টার দিকে হঠাৎ অসুস্থ বোধ করেন এভানভ। এসময় তিনি গ্রিনসিটি আবাসিক ভবনের ১২তলায় একটি কক্ষের লিফটের সামনে বেশ কয়েকবার বমি করতে থাকেন। এর কিছুক্ষণ পর লিফটের সামনে তাকে অজ্ঞান অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন তার এক সহকর্মী। খবর পেয়ে পুলিশ ও গ্রিন সিটি প্রকল্পসহ সংশ্লিষ্টরা ছুটে আসেন। পরে প্রকল্পের ভেতরের চিকিৎসক এসে তাকে মৃত ঘোষণা করেন। গভীর রাতে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ গ্রিনসিটি ভবন থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরীক্ষার জন্য পাঠায়।

সোমবার (১৩ জুন) সকালে রূপপুর প্রকল্পের সাইট ইনচার্জ রুহুল কুদ্দুস মুঠোফোনে জানান, ইভানভ রূপপুর প্রকল্পে রোসেম নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। গ্রিন সিটি প্রকল্পের মাধ্যমে তিনি রোববার রাতেই ইভানভের মরদেহ উদ্ধারের কথা শুনেছেন। তবে কি কারণে ওই রুশ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে সে বিষয়ে তিনি এখনো নিশ্চিতভাবে কিছু জানাতে পারেননি।

ঈশ্বরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরবিন্দ সরকার জানান, মরদেহ উদ্ধারের পর ময়নাতদন্তের জন্য পাবনা জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে মরদেহ আসার পরপরই রাষ্ট্রীয় নিয়ম অনুযায়ী রুশ দূতাবাসের মাধ্যমে মরদেহ তাদের দেশে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে। এ ঘটনায় ঈশ্বরদী থানায় একটি অপমৃত্যু মামলার প্রস্তুতি চলছে।