ইসির ক্ষমতা বোঝা গেছে কুমিল্লায় : ফখরুল
ইসির ক্ষমতা বোঝা গেছে কুমিল্লায় : ফখরুল

সংগৃহীত ছবি

ইসির ক্ষমতা বোঝা গেছে কুমিল্লায় : ফখরুল

অনলাইন ডেস্ক

কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রচার চলাকালে সদর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারকে এলাকা ছাড়তে বাধ্য না করায় নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশন একদম ব্যর্থ হয়েছে একজন সংসদ সদস্যকে কুমিল্লা থেকে বের করতে, আইন মেনে নিতে। তাহলে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ নির্বাচন কী হবে?।   মঙ্গলবার বিকেলে ঠাকুরগাঁওয়ে মহিলা দলের এক আয়োজনে এসে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়ে এই মন্তব্য করেন ফখরুল।

গত ফেব্রুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়া নির্বাচন কমিশন ভোটের প্রথম পরীক্ষায় নামছে বুধবার। সেদিন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন ছাড়াও ১৩৫টি ইউনিয়ন, ৫টি পৌরসভা এবং একটি উপজেলায় ভোটের তফসিল দেয়া হয়েছিল। ভোট চলাকালে সংঘর্ষ, বিরোধীদের প্রচারে বাধা, মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় হামলার ঘটনায় ৯টি এলাকায় ভোট বন্ধ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে একটি পৌরসভা এবং ৮টি ইউনিয়ন।  তবে সবচেয়ে আলোচিত কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে কমিশনের একটি আদেশ পালিত হয়নি। আওয়ামী লীগের প্রার্থী আরফানুল হক রিফাতের পক্ষে ভোটের প্রচার চালাচ্ছেন বাহার- এমন একটি অভিযোগ এনে বিএনপির বহিষ্কৃত নেতা মনিরুল হক সাক্কু রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েছিলেন। এরপর গত ৮ জুন বাহারকে কুমিল্লা ছাড়তে বলে নির্বাচন কমিশন।

কিন্তু বাহার কুমিল্লা না ছেড়ে আদালতে যান। হাইকোর্ট ১৫ জুন ভোটের দিন পর্যন্ত কমিশনের সেই নির্দেশ স্থগিত করে, ফলে বাহারের এলাকায় থাকতে দৃশ্যত কোনো বিধিনিষেধ নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, এ নির্বাচন কমিশন একদম প্রথম ভাগে দেখাল যে একজন সংসদ সদস্যকে তার এলাকা থেকে বাইরে নিয়ে আসার ক্ষমতা নেই। সেই নির্বাচন কমিশন কীভাবে নির্বাচন পরিচালনা করবে?’

গত ফেব্রুয়ারিতে দায়িত্ব নেয়া নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো ভোটে না যাওয়ার ঘোষণা আছে বিএনপির। কুমিল্লায় তারা কোনো প্রার্থী দেয়নি। গত দুই নির্বাচনে বিএনপির সমর্থন ও মনোনয়নে জিতে আসা সাক্কু ভোটে লড়ার আগ্রহ প্রকাশের পর তাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কারও করেছে দলটি। তবে সাক্কুর কর্মী-সমর্থক সবাই বিএনপির, আর সেখানে পরোক্ষভাবে আওয়ামী লীগ-বিএনপির লড়াই হচ্ছে।

ফখরুল বলেন, আপনারা বুঝতে পারছেন যে নির্বাচন কমিশন নিয়ে আমরা একদম আগ্রহী ছিলাম না। আমরা যে বলছি এ নির্বাচন কমিশন যে আসুক তারা কিছু্ই করতে পারবে না। যদি সরকার পরিবর্তন না হয়, যদি নিরপেক্ষ সরকার না থাকে তবে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তার প্রমাণ হয়ে গেছে। গতকাল সংসদ সদস্য ডিনাই করেছেন তিনি বের হবেন না। আর নির্বাচন কমিশন বলছে তারা অসহায়।

ঠাকুরগাঁও বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, জেলা মহিলা দলের সভাপতি ফরাতুন নাহার প্যারিসসহ অন্য নেতারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

news24bd.tv/আলী