৮১ দিন পর বুলবুল হত্যার মূল আসামি গ্রেপ্তার
৮১ দিন পর বুলবুল হত্যার মূল আসামি গ্রেপ্তার

৮১ দিন পর বুলবুল হত্যার মূল আসামি গ্রেপ্তার

অনলাইন ডেস্ক

‘গরিবের চিকিৎসক’ খ্যাত আহমেদ মাহি বুলবুল হত্যাকাণ্ডের মূল আসামি পেশাদার ছিনতাইকারী মো. রিপনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এর আগে সংঘবদ্ধ ছিনতাইচক্রের অন্য চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছিল সংস্থাটি।

গ্রেপ্তার রিপন ও তার অন্য সহযোগীরা রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় এমন ছিনতাই করতো বলে জানায় গোয়েন্দা পুলিশ। বুধবার ঝালকাঠি জেলা থেকে রিপনকে গ্রেপ্তারের পর এসব তথ্য জানিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, গত ২৭ মার্চ ভোর সাড়ে পাঁচটায় সড়কের গলির মুখ থেকে হেঁটে যাচ্ছেন কয়েকজন যুবক। ছিনতাইয়ের উদ্দেশে শেওড়াপাড়া এলাকায় ওঁত পেতেছিল পাঁচজন। টার্গেট করা হয় ডাক্তার বুলবুলকে। বাধা দিলে করা হয় ছুরিকাঘাত। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ দেখে শুধু মোবাইল ফোন নিয়েই পালিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা।

শুরু থেকেই বুলবুলের স্বজনদের দাবি ছিল, এটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড। তবে গত ৩০ মার্চ চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তারের পর পুলিশ জানায়, পেশাদার ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতেই মৃত্যু হয় বুলবুলের। তবে ধরাছোঁয়ার বাইরে ছিল মূলহোতা।

ঘটনার প্রায় তিন মাস পর ছুরিকাঘাত করা সেই মো. রিপনকে বুধবার (১৫ জুন) ঝালকাঠি থেকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। সেদিন বুলবুলের উরুতে আঘাত করেছিল রিপন।

উত্তর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-পুলিশ কমিশনার মো. হারুন অর রশীদ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চিকিৎসক বুলবুল হত্যা মামলার আসামি রিপনকে গতকাল (বুধবার) বিকেলে ঝালকাঠির নলছিটি গ্রেপ্তার করে ঢাকায় নিয়ে আসা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রিপন আমাদের কাছে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন। তাকে হত্যাকাণ্ডের ৮১ দিন পর গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশ বলছে, বুলবুল হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া ৫ জনই পেশাদার ছিনতাইকারী।

news24bd.tv তৌহিদ