যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি, দাম বাড়ছে হু হু করে
যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি, দাম বাড়ছে হু হু করে

যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি, দাম বাড়ছে হু হু করে

অনলাইন ডেস্ক

১৯৮২ যুক্তরাজ্যের মুদ্রাস্ফীতি পৌঁছেছিল ৯ দশমিক এক শতাংশে। ওই সময় দেশটিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েছিল হু হু করে। এর ৪২ বছর পর অর্থ্যৎ ২০২২ সালে ফের একই অবস্থানে পৌঁছেছে মুদ্রাস্ফীতি। ওই সময়ের মতো এবারেও খাদ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বেড়েই চলছে।

যুক্তরাজ্যের পরিসংখ্যান বিভাগ ওএনএস বলছে, গত এক বছরে যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি রেকর্ড ৯ দশমিক এক শতাংশে দাঁড়িয়েছে। ১৯৮২ সালের মার্চে একই পরিমাণ মুদ্রাস্ফীতি দেখা গিয়েছিল।

ওএনএস আরও বলছে, গত মে মাসে খাদ্য, অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় ও জ্বালানী তেলের দাম বেড়েছে। তবে সবচেয়ে দাম বেড়েছে খাদ্যশস্য, রুটি ও মাংসের।

সংস্থাটির প্রধান অর্থনীতিবিদ গ্যান্ট ফিটজনার বলেন, ‌‘৪৫ বছরের মধ্যে গত মে তে সবচেয়ে দ্রুত খাদ্যের দাম বেড়েছে। কাঁচামালের দামও রেকর্ডভাবে বেড়েছে। ’

চলতি বছরে দেশটির মুদ্রাস্ফীতি ১১ শতাংশে পৌঁছাতে পারে বলে সতর্ক করেছিল দ্যা ব্যাংক অফ ইংল্যান্ড।

এ দিকে মুদ্রাস্ফীতি বাড়ায় দাম বাড়ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের। এক বছর আগে এক বোতল দুধ এক পাউন্ডে বিত্রি হলেও এটির দাম গিয়ে ঠেকেছে পাঁচ পাউন্ডে।

বিশ্বব্যাপী গম ও ভুট্টার বড় যোগানদাতা দশে ইউক্রনে এবং রাশিয়া। এ দুদেশের যুদ্ধের ফলে গোটা বিশ্বেই গম ও ভুট্টার সরবারহে ভাটা পড়েছে। অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি সানফ্লাওয়ার তেল উৎপাদনকারী দেশ ইউক্রেন। যুদ্ধের ফলে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে ও দাম বাড়ছে।

চলতি বছরে যুক্তরাজ্যের মানুষদের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের পেছনে অতিরিক্ত ৩৮০ পাউন্ড খরচ করতে হবে বলে জানিয়েছিল লন্ডনভিত্তিক ডেটা অ্যানালটিক্সি সংস্থা কান্তার।

এমতাবস্থায় বিট্রিশ পরিবারগুলোকে আরও সাহায্য দেওয়ার কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের অর্থমন্ত্রী রিশি সুনাক। তিনি বলেছেন, বিশ্বজুড়ে দেশগুলো উচ্চ মুদ্রাস্ফীতির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। আমরা এই বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জগুলো থেকে মানুষকে সম্পূর্ণরূপে রক্ষা করতে পারছি না। তবে যেখানে সম্ভব সেখানে আমরা উল্লেখযোগ্য সহায়তা প্রদান করছি। এ ছাড়া আরও পদক্ষেপ নিতে প্রস্তুত আছি আমরা।

news24bd.tv/তৌহিদ