দুই সন্তানসহ নদীতে ঝাঁপ দিলেন মা
দুই সন্তানসহ নদীতে ঝাঁপ দিলেন মা

প্রতীকী ছবি

দুই সন্তানসহ নদীতে ঝাঁপ দিলেন মা

অনলাইন ডেস্ক

নরসিংদীর পলাশ উপজেলায় নতুন জামা জুতো কিনে দেওয়ার কথা বলে দুই শিশু সন্তান তাহমিদা আক্তার (৯) ও মুর্শিদা আক্তারকে (৭) নিয়ে নদীতে ঝাঁপ দেন মা। এতে শিশু সন্তান তাহমিদা আক্তার জীবিত উদ্ধার হলেও পানিতে তলিয়ে যায় মা আরিফা আক্তার ও তার আরেক কন্যা মুর্শিদা আক্তার।

গত বুধবার সন্ধ্যায় নরসিংদীর পলাশ উপজেলার চরসিন্দুর ইউনিয়নের শীতলক্ষ্যা নদীর নীজামউদ্দিন খেয়া ঘাট থেকে শিশু মুর্শিদা আক্তারের মরদেহ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ।

গত ১৯ জুন রোববার বিকেলে গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সিংহশ্রী ইউনিয়নে শীতলক্ষ্যা নদীতে দুই শিশু সন্তান নিয়ে নদীতে ঝাঁপ দেয় আরিফা আক্তার।

আরিফা আক্তার আক্তার কাপাসিয়ার রায়েদ ইউনিয়নের মৃত আব্দুল মালেকের মেয়ে।

মাধবদীর বঙ্গারচর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) তরিকুল ইসলাম বলেন, বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঘোড়াশাল পৌর এলাকার নিজাম উদ্দিন ঘাটে একটি লাশ ভেসে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা। পরে নৌ-পুলিশ গিয়ে লাশটি উদ্ধার করে। এ সময় লাশটির পরিচয় শনাক্ত করতে গিয়ে জানা যায়, গত তিনদিন আগে গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার সিংহশ্রী ইউনিয়ন এলাকায় দুই মেয়েকে নিয়ে শীতলক্ষ্যা নদীতে ঝাঁপ দিয়ে ছিলেন আরিফা আক্তার নামে ওই মা। পরে স্থানীয়রা তাহমিদা আক্তার নামে এক শিশুকে জীবিত উদ্ধার করতে পারলেও নিখোঁজ ছিলেন মা আরিফা আক্তার ও ছোট মেয়ে মুর্শিদা আক্তার। সে সময় কাপাসিয়া উপজেলার ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা দুই দিনব্যাপী উদ্ধার কাজ চালিয়েও তাদের কোনো সন্ধান পায়নি।

আরিফা আক্তারের বড় ভাই হেদায়েত উল্লাহ জানান, আরিফা আক্তার বিয়ের পর থেকে নারায়ণগঞ্জে তার স্বামীর বাড়িতে থাকতো। কিন্তু স্বামী মারা যাওয়ার পর দুই সন্তানকে নিয়ে সে বাবার বাড়িতে চলে আসে। স্বামী মারা যাওয়ার শোক সইতে না পেরে ধীরে ধীরে সে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে। অনেক সময় তাকে শিকলবন্দি করেও রাখতে হতো। কিন্তু এ রকম কাজ করবে কখনো ভাবিনি। মৃত্যু থেকে বেঁচে ফেরা তাহমিদা আমাদেরকে জানিয়েছে তাদের মা নতুন জুতা ও জামা-কাপড় কিনে দেয়ার কথা বলে তাদেরকে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়েছিল। পরে শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে পৌঁছে তাদের নিয়ে নদীতে ঝাঁপ দেয়। তবে মায়ের হাত ফসকে গেলে তাহমিদা নদীতে থাকা একটি বাঁশের মাচা ধরে ভেসে থাকে। পরে স্থানীয় জেলেরা তাকে উদ্ধার করে।

এদিকে এ ঘটনায় কোনও মামলা হয়নি জানিয়ে বঙ্গারচর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) তরিকুল ইসলাম বলেন, উদ্ধার শিশু মুর্শিদার আক্তারের মরদেহটি তার মামা হেদায়েত উল্লাহর কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

news24bd.tv তৌহিদ