ময়মনসিংহে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পরিবার বলছে হত্যা
ময়মনসিংহে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পরিবার বলছে হত্যা

ময়মনসিংহে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার, পরিবার বলছে হত্যা

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের টাঙ্গাব ইউনিয়নের ছাপিলা গ্রামে স্বামীর বাড়ি থেকে মুসলিমা খাতুন (২৫) নামের এক গৃহবধূর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে এলাকাবাসীর সংবাদের ভিত্তিতে পাগলা থানার পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। পরে এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় শাশুড়ি আনোয়ারা খাতুনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মফিজ উদ্দিনের ছেলে আলামিনের সাথে তিন বছর আগে মুসলিমার বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকেই আলামিন ও তার পরিবারের লোকজন যৌতুকের জন্য মুসলিমাকে মারধর করত। গতকাল তাকে মেরে রক্তাক্ত করে তারা। এক পর্যায়ে তার মৃত্যু হলে পরিবারের লোকজন প্রচার করে মুসলিমা ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন। পরে এলাকাবাসীর খবরের ভিত্তিতে পাগলা থানার পুলিশ রাতেই তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠায়। নিহতের শরীরে অনেক আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে।

এ ঘটনায় নিহতের মা রোকেয়া খাতুন শুক্রবার রাতে পাগলা থানায় মুসলিমার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়িকে আসামি করে মামলা দায়ের করলে পুলিশ শাশুড়ি আনোয়ারা খাতুনকে গ্রেপ্তার করে।

নিহতের মা রোকেয়া খাতুন বলেন, 'আলামিন তার মা-বাবারে লইয়া আমার মায়াডারে মাইরা ফালাইছে। আমি বিচার চাই। '

পাগলা থানার ওসি রাশেদুজ্জামান বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।


news24bd.tv তৌহিদ