খুলনায় মুনজীর মাস্টার হত্যায় দুই আসামির যাবজ্জীবন
খুলনায় মুনজীর মাস্টার হত্যায় দুই আসামির যাবজ্জীবন

প্রতীকী ছবি

খুলনায় মুনজীর মাস্টার হত্যায় দুই আসামির যাবজ্জীবন

 নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা

খুলনার খানজাহান আলী থানা এলাকায় মুনজীর আহমেদ ওরফে মুনজীর মাস্টার হত্যা মামলায় দুই আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাদেরকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া হত্যাকাণ্ডের বিস্ফোরক অংশে ওই আসামিদের ৭ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড, ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার খুলনা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মাহমুদা খাতুন এ রায় ঘোষণা করেন।

হত্যাকাণ্ডের ১৭ বছর পর এ রায় ঘোষণা হল।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন- খানজাহান আলী থানাধীন গিলাতলা ১নং কলোনির সরোয়ার হোসেন ওরফে সানোয়ারের ছেলে আনুয়ার হোসেন ও একই এলাকার মো. গোলাম জিলানি মল্লিকের ছেলে মো. আশ্রাফ আলী। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। নিহত মুনজীর মাস্টার মাত্তমডাঙ্গা শ্রীনাথ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন।

জানা যায়, ২০০৫ সালের ১২ সেপ্টেম্বর রাত ৯টার দিকে মুনজীর মাস্টার মাত্তমডাঙ্গা যুব সংঘের ভিতরে অন্যান্য সদস্যদের সাথে কথা বলছিলেন। এসময় প্রধান ফটক দিয়ে কয়েকজন সন্ত্রাসী যুব সংঘের ভিতরে ঢুকে তাকে লক্ষ্য করে একের পর এক বোমা নিক্ষেপ করে। এর মধ্যে দু’টি বোমা মুনজীর মাস্টারের হাতে পিঠে লাগে। মারাত্মক জখম অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পর রাত ১টার দিকে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় খানজাহান আলী থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা হয়।

খানজাহান আলী থানার এসআই ফারুকুল ইসলাম একই বছরের ১২ ডিসেম্বর বোমা ও ২০০৬ সালে ৩০ জুন মুনজীর মাস্টার হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মোট ১১জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। চার্জশিটভুক্ত আসামিদের মধ্যে দাউদ, মঈন ও নেয়ামুল ইসলাম কুটি বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। অপরদিকে এ মামলার অপর আসামি আরিফুর রহমানকে রাজনৈতিক বিবেচনায় মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

news24bd.tv/কামরুল