'ট্রেনের অনলাইন টিকেটিংয়ে প্রতারণা রুখতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে'
'ট্রেনের অনলাইন টিকেটিংয়ে প্রতারণা রুখতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে'

ফাইল ছবি

'ট্রেনের অনলাইন টিকেটিংয়ে প্রতারণা রুখতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে'

অনলাইন ডেস্ক

চাহিদার সাথে সক্ষমতার ফারাক না কমা পর্যন্ত রেলে যাত্রী ভোগান্তি কমবে না বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন। এছাড়া অনলাইন টিকেটিংয়ে ভোগান্তি, অনিয়ম, প্রতারণা রুখতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান তিনি।  

আজ শনিবার সকালে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশন পরিদর্শনে গিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

এদিকে, কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট পেতে কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে।

৬ জুলাইয়ের অগ্রিম টিকিট আজ সকাল ৮টা থেকে বিক্রি শুরু হয়। টিকিট পেতে অনেক টিকিটপ্রত্যাশী বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই স্টেশনে অবস্থান নিয়েছেন।

টিকিটপ্রত্যাশীরা জানান, সড়কপথে বেশি যানজটের আশঙ্কায় তারা ট্রেনে বাড়ি যেতে চাচ্ছেন। সে জন্য ট্রেনের টিকিট সংগ্রহ করতে এসেছেন তারা।

উল্লেখ্য, ১ জুলাই দেওয়া হয় ৫ জুলাইয়ের ট্রেনের টিকিট, ২ জুলাই দেওয়া হচ্ছে ৬ জুলাইয়ের টিকিট, ৩ জুলাই দেওয়া হবে ৭ জুলাইয়ের টিকিট, ৪ জুলাই দেওয়া হবে ৮ জুলাইয়ের ট্রেনের টিকিট এবং ৫ জুলাই দেওয়া হবে ৯ জুলাইয়ের ট্রেনের টিকিট।

এছাড়া ফিরতি টিকিট বিক্রি শুরু হবে ৭ জুলাই থেকে। ওইদিন ১১ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে। ৮ জুলাই ১২ জুলাইয়ের টিকিট, ৯ জুলাই ১৩ জুলাইয়ের টিকিট, ১১ জুলাই ১৪ এবং ১৫ জুলাইয়ের টিকিট বিক্রি হবে। তবে ১১ জুলাই সীমিত কয়েকটি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করবে। ১২ জুলাই থেকে সব ট্রেন চলাচল করবে।

শান্তিপূর্ণভাবে টিকিট বিতরণ নিশ্চিত করতে রেলওয়ে নিরাপত্তাবাহিনী ও আনসার সদস্যরা কাজ করছেন। কালোবাজারে টিকিট বিক্রি বন্ধে পুলিশের পাশাপাশি র‍্যাবের উপস্থিতিও রয়েছে।

news24bd.tv/রিমু