'ভাগ্নের হাতুড়ির আঘাতে' মামার মৃত্যু 
'ভাগ্নের হাতুড়ির আঘাতে' মামার মৃত্যু 

প্রতীকী ছবি

'ভাগ্নের হাতুড়ির আঘাতে' মামার মৃত্যু 

জাহিদুজ্জামান, কুষ্টিয়া: 

কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের চৌদুয়ার বিলপাড়া এলাকায় পারিবারিক কলহে ভাগ্নের হাতুড়ির আঘাতে মামা আয়ূব আলীর (৫৫) মৃত্যু হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত আয়ূব আলী চৌদুয়ার বিলপাড়া এলাকার মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে।  

নিহতের ভাতিজা হুমায়ূন কবির বলেন, জমি-জমা সংক্রান্ত পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।

তিনি বলেন, শুক্রবার (০১ জুলাই) বিকেলে আয়ূব আলী উপজেলার আমলা ইউনিয়নের নিমতলা বাজার থেকে বাজার করে মোটরসাইকেল যোগে ফিরছিলেন। এমন সময় আমলা ইউনিয়নের চৌদুয়ার বিলপাড়া এলাকায় পৌঁছালে রাস্তার পাশের ঝোঁপ থেকে হঠাত হাতুড়ি নিয়ে বেরিয়ে আসে অভিযুক্ত ভাগ্নে সাজু। এরপর সাজু মোটরসাইকেলে লাথি দিয়ে ফেলে দেয়। পরে মামা আয়ূব আলী রাস্তার ধারে পড়ে গেলে হাতুড়ি দিয়ে মুখ ও মাথায় আঘাত করে গুরুতর জখম করে ভাগ্নে সাজু পালিয়ে যায়।

পরে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন আয়ূব আলীকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখান থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ শনিবার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত ভাগ্নে সাজু পলাতক রয়েছেন। সে উপজেলার আমলা ইউনিয়নের চৌদুয়ার বিলপাড়া এলাকার রাজ্জাক আলীর ছেলে। তার বিরুদ্ধে এর আগেও একটি হত্যা মামলা রয়েছে। হত্যা মামলার আসামি হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে ভারতে পলাতক ছিল সাজু।

নিহতের ভাতিজা হুমায়ূন কবির আরও বলেন, চাচার চিকিৎসার জন্য দৌড়াদৌড়ি করায় থানায় অভিযোগ দিতে পারিনি। তবে থানায় মৌখিকভাবে জানিয়েছি। এখন থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হবে।

মিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম মোস্তফা মামা নিহত হওয়ার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।  

news24bd.tv/কামরুল

সম্পর্কিত খবর