‘এরশাদ ওপারে ভালো আছেন, উনি জান্নাতবাসী হবেন’
‘এরশাদ ওপারে ভালো আছেন, উনি জান্নাতবাসী হবেন’

সংগৃহীত ছবি

রওশনের ডাকে সারা দেয়নি জাতীয় পার্টির শীর্ষনেতারা

‘এরশাদ ওপারে ভালো আছেন, উনি জান্নাতবাসী হবেন’

অনলাইন ডেস্ক

সম্প্রতি বিদেশ থেকে চিকিৎসা নিয়ে কয়েকদিনের জন্য দেশে ফিরেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ। তিনি অবস্থান করছেন ঢাকার এক হোটেলে। এরই মধ্যে সংসদে বাজেট অধিবেশনেও যোগ দিয়েছেন বিরোধীদলীয় নেতা।  

আজ শনিবার (২ জুলাই) জাতীয় পার্টির বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের মতবিনিময়ের জন্য ডেকেছিলেন রওশন এরশাদ।

এজন্য জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদেরসহ শীর্ষ নেতাদের দাওয়াতও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানে যাননি কাদেরসহ শীর্ষনেতারা।

জানা গেছে, শনিবার দুপুরে ঢাকার গুলশানের একটি হোটেলে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে দলের কয়েকজন প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মধ্যম সারির কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। তাদের উদ্দেশে রওশন এরশাদ বলেন, আজকে যারা এই সভায় উপস্থিত হয়েছেন তারাই জাতীয় পার্টির প্রকৃত নেতাকর্মী। আজ পল্লীবন্ধু এরশাদ নেই। উনি থাকলে পার্টি অন্যরকম হতো। উনি নেই, তাই জাতীয় পার্টি আজ এলোমেলো হয়ে গেছে। যাদের দল থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে তাদেরকে ফিরিয়ে নিতে হবে। যারা চলে গেছেন তাদেরকেও ফিরিয়ে আনতে হবে। নতুবা আমরা অনেক পিছিয়ে যাবো।

রওশন এরশাদ তার বক্তব্যে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দীর্ঘ ছয়মাস আমি থাইল্যান্ডের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলাম। পার্টির কেউ খোঁজ নেয়নি আমার। আমি সবার খোঁজ নিয়েছি। অথচ যাদেরকে দল থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে তারাই আমার নিয়মিত খোঁজ রেখেছেন। মসজিদ, মাজারসহ বিভিন্ন উপাসনালয়ে দোয়া প্রার্থনা করেছেন।

তিনি বলেন, অনেক ভালো ভালো নেতাকর্মী দলের বাইরে আছে, তাদেরকে আনতে হবে। নতুন প্রজন্মকে দলে আনতে হবে। কাজী জাফর, শাহ্ মোয়াজ্জেম, আনোয়ার হোসেন মঞ্জুসহ অনেক সিনিয়র নেতা পার্টি ছেড়ে চলে গেছেন। তাদের ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে হবে। দলকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সমকক্ষ বানাতে হবে। নতুবা রাজনীতিতে টিকে থাকতে পারবো না।

পার্টি শক্তিশালী করতে প্রয়োজনীয় সব কিছু করা হবে মন্তব্য করে সংসদের এই বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, এরশাদ তিলে তিলে এই দলটা গড়েছেন। সকলকে নিয়েই কাজ করতে হবে। বিমানবন্দরে আমি আসার দিন এত মানুষ আমাকে অভ্যর্থনা জানিয়েছে দেখে আমার দুচোখে পানি এসে গেছে।

প্রয়াত স্বামী এরশাদকেও স্মরণ করে রওশন এরশাদ বলেন, এরশাদ ওপারে ভালো আছেন। মৃত্যুর আগের রাতে তিনি আমাকে বলেছিলেন, আল্লাহর রাসূল (সা.) আমার পাশে এসে দাঁড়িয়ে থাকেন। সকালে শুনি উনি (এরশাদ) ইন্তেকাল করেছেন। উনি জান্নাতবাসী হবেন। কারণ তিনি ইসলামের খাদেম ছিলেন। ইসলামকে রাষ্ট্র ধর্ম করেছিলেন। পবিত্র শুক্রবার ছুটি ঘোষণা করেন। মসজিদ মন্দিরসহ সব উপাসনালয়ের পানি ও বিদুৎ বিল মওকুফ করেছিলেন।

news24bd.tv/desk