নদীতে হারানো ভাই-বোনের মরদেহ হস্তান্তর করল বিএসএফ
নদীতে হারানো ভাই-বোনের মরদেহ হস্তান্তর করল বিএসএফ

নদীতে হারানো ভাই-বোনের মরদেহ হস্তান্তর করল বিএসএফ

হুমায়ুন কবির সূর্য, কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় বিএসএফ’র ভয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে নদী সাঁতরিয়ে পালানোর সময় ডুবে মারা যায় দুই শিশু। ঘটনার দুদিন পর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে বিজিবি’র কাছে মৃত দুই শিশুর মরদেহ হস্তান্তর করে ভারতীয় বিএসএফ।

এ সময় কাশিপুর ইউনিয়নের ধর্মপুর সীমান্তে আন্তর্জাতিক পিলার ৯৪২ এর সাব পিলার ৮-এস এর পাশে দুদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর মধ্যে আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে লাশ হস্তান্তর করা হয়। এরপর বিজিবি মরদেহ দুটি পরিবারের কাছে হস্তান্তর করলে এক হৃদয় বিদারক ঘটনার উদ্ভব হয়।

১ জুলাই শুক্রবার রাতে ভারতীয় কয়েকজন দালালের মাধ্যমে অবৈধভাবে ভারত থেকে নীলকমল নদী সাতরিয়ে বাবা-মার সাথে বাংলাদেশে ফেরার সময় স্রোতের টানে মা ছামিনা বেগমের (৩০) হাত ফসকে হারিয়ে যায় শিশু পারভীনা খাতুন (৮) ও শাকিবুল হাসান (৪)। তাদের বাবা রহিজ উদ্দিনের (৩৫) বাড়ি নাগেশ্বরী উপজেলার নেওয়াশী ইউনিয়নের মধ্য সুখাতী গ্রামে।

ঘটনার দুদিন পর নদীতে লাশ ভেসে উঠলে ভারতের ১৯২ বিএসএফ ব্যাটালিয়ন সেওটি-১ ক্যাম্পের সদস্যরা ও সাহেবগঞ্জ থানার পুলিশ মরদেহ দুটি উদ্ধার করে নিয়ে যায়। পরে বিএসএফ-বিজিবি পতাকা বৈঠক শেষে শিশু দুইটির মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এসময় ভারতীয় বিএসএফ এর পক্ষে ব্যাটালিয়নের সেওটি-১, সেউটি-২ ক্যাম্পের বিএসএফ, সাহেবগঞ্জ থানা পুলিশ ও বিজিবির পক্ষে উপস্থিত ছিলেন লালমনিহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধীন কাশিপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার ফরিদ, অনন্তপুর ক্যাম্প ইনচার্জ আরফিন, পুলিশের পক্ষে এএসপি সার্কেল সুমন রেজা, ফুলবাড়ী থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফজলুর রহমান, ওসি তদন্ত সারওয়ার পারভেজ, নাগেশ্বরী উপজেলার  নেওয়াশী ইউনিয়ন ওয়ার্ড সদস্য আজিজুল ও মেছের আলী।

লালমনিহাট ১৫ ব্যাটালিয়নের অধীন কাশিপুর ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার সুবেদার ফরিদ উদ্দিন শিশু দুইটির মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তরের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

রহিজ উদ্দিনের মামা সাইফুর জানান, রাতেই শিশু দুইটির লাশ দাফন করা হবে।

news24bd.tv তৌহিদ