মানুষের দেহে শূকরের হৃদপিন্ড প্রতিস্থাপন!
মানুষের দেহে শূকরের হৃদপিন্ড প্রতিস্থাপন!

সংগৃহীত ছবি

মানুষের দেহে শূকরের হৃদপিন্ড প্রতিস্থাপন!

আতাউর রহমান কাবুল

সম্প্রতি নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির শল্যচিকিৎসকরা সফলভাবে দুটি জিনগতভাবে পরিবর্তিত শূকরের হার্ট প্রতিস্থাপন করেছেন ব্রেন ডেথ হয়েছে এমন দুই ব্যক্তির দেহে। খবর সিএনএন এর।

যাদের দেহে শূকরের হার্ট প্রতিস্থাপন করা হয়েছিলো তাদের একজন ৭২ বছর বয়সী পেনসিলভানিয়ার লরেন্স কেলি। গাড়ি দুর্ঘটনার পর ব্রেন ডেথ ঘোষণা করা হয়েছিল তাকে।

এরপর তার পরিবার গবেষণার জন্য দেহটি দান করেছিলেন, যার উদ্দেশ্য ছিল মৃত মানুষের শরীরে পরিবর্তিত শূকরের হৃদপিণ্ড কতটা ভাল কাজ করে তা জানা।

গবেষণা দলটি জুলাইয়ের শুরুতে নিউ ইয়র্ক সিটির ৬৪ বছর বয়সী ব্রেন ডেথ হওয়া আলভা ক্যাপুয়ানোর দেহেও একই প্রক্রিয়ায় হার্ট প্রতিস্থাপন করেন।

গত মঙ্গলবার নিউ ইয়র্কের এনওয়াইইউ ল্যাঙ্গোন হেলথের গবেষকগণ বলেছেন, গবেষণার অংশ হিসাবে শল্যচিকিৎসকদের একটি দল জিনগতভাবে পরিবর্তিত শূকর থেকে একটি মৃতপ্রায় (ব্রেন ডেথ) মানুষের দেহে হার্ট প্রতিস্থাপন করেন। তারা বলেন, এই ধরনের জেনোট্রান্সপ্লান্টেশনের ফলে কোন কোন সময় ব্রেন ডেথ হয়ে যাওয়া মানুষদের নিরাপদ জীবনে ফেরানো যায়।

এই পদ্ধতি সফল হলে ট্রান্সপ্ল্যান্টের ক্ষেত্রে আগামীতে বড় সুযোগ আসবে; হার্ট ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা যাবে সহজেই।  

সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, জুন ও জুলাই মাসে এই গবেষণাটি করা হয়েছে। এখনও পর্যন্ত বিরূপ প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।  

প্রসঙ্গত, গত বছরের জানুয়ারিতে ৫৭ বছর বয়সি এক ব্যক্তির ব্রেন ডেথ হওয়ার পর তার দেহে ‘ইতিহাসে প্রথমবার' মানবদেহে শূকরের হার্ট বা হৃদপিণ্ড প্রতিস্থাপন করা হয়েছিলো। মেরিল্যান্ড ইউনিভার্সিটিতে করা সেই প্রক্রিয়া শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি। হার্ট ফেল করে মার্চ মাসে মৃত্যু হয় ওই ব্যক্তির।  

news24bd.tv/desk