প্রতি মাসে চুল কাটাতেই ব্রুনাই সুলতানের খরচ ১৫ লাখ!
প্রতি মাসে চুল কাটাতেই ব্রুনাই সুলতানের খরচ ১৫ লাখ!

সংগৃহীত ছবি

প্রতি মাসে চুল কাটাতেই ব্রুনাই সুলতানের খরচ ১৫ লাখ!

অনলাইন ডেস্ক

কমালয়েশিয়া এবং দক্ষিণ চিন সাগরে ঘেরা বোর্নিয়ো দ্বীপপুঞ্জের ছোট্ট দেশ ব্রুনাই। ১৯৬৭ সালের ৫ অক্টোবর ব্রুনাইয়ের সিংহাসনে বসেন তৃতীয় হাসানঅল বোকাইয়া ইবনি ওমর আলি সইফউদ্দিন। তবে এটা তাঁর পোশাকি নাম। বিশ্বে তাঁকে ‘হাসানঅল বোকাইয়া’ নামেই চেনে।

সে দেশের সুলতানের ধনসম্পত্তির গল্প মোটেও ছোট নয়। বিদেশি সংবাদমাধ্যমগুলোর দাবি, ব্রুনাইয়ের সুলতানের কাছে ৩০টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার রয়েছে। বিয়ে করেছেন মাত্র তিনটি। তাঁর বিলাসভবনের ঝাড়বাতিগুলিতে বাল্‌ব লাগে ৫২ হাজার।
এখানেই শেষ নয়। এছাড়া প্রতি মাসে চুল কাটাতে সুলতানের হয় খরচ ১৫ লক্ষ টাকা।

দেশের সুলতানি করার পাশাপাশি তিনি ব্রুনাইয়ের প্রধানমন্ত্রীও বটে। পাশাপাশি প্রতিরক্ষা এবং বিদেশ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও নিজের হাতে রেখেছেন ৭৬ বছরের এই সুলতান।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডের দাবি, ব্রুনাইয়ের সুলতান প্রতি মাসে ১৫ লক্ষ টাকা খরচ করেন চুল কাটাতে। ট্যাবলয়েড আরও জানায়, সুলতানের মোট সম্পত্তির অর্থমূল্য ৩০ বিলিয়ন পাউন্ড। এত সম্পত্তির মালিক নাকি মাত্র তিনটি বিয়ে করেছেন!

বিপুল ধন-সম্পদের মালিক হলেও তা যখের ধনের মতো আগলে রাখেননি তিনি। খরচও করেছেন তিনি। তা সে সোনায় মোড়া জেট বিমান হোক বা বিলাসবহুল বাসভবন-সবেতেই পানির মতো অর্থব্যয় করেছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান।

সুলতানের কাছে নাকি কম করে সাত হাজার গাড়ি রয়েছে। তার মধ্যে ৩৬৫টি ফেরারি, ২৭৫টি ল্যাম্বরঘিনি, ২৫৮টি অ্যাস্টন মার্টিন, ১৭২টি বগাটি, ২৩০টি পোর্শে, ৩৫০টি বেন্টলি, ৬০০টি রোল্‌স রয়েস, ৪৪০টি মার্সিডিজ বেঞ্জ, ২৬৫টি অডি, ২৩৭টি বিএমডব্লিউ, ২২৫টি জাগুয়ার এবং ১৮৩টি ল্যান্ড রোভার রয়েছে।

হাজার হাজার গাড়ি রাখার জন্য সুলতানের প্রাসাদে ১১০টি গ্যারাজ রয়েছে। সেখানেই নাকি তাঁর সাত হাজার গাড়ি থাকে।

অনেকের দাবি, সব গাড়ি তো একসঙ্গে ব্যবহার করা যায় না, তাই বাড়তি আয়ের জন্য সংগ্রাহকদের কাছে বেশ কতগুলি গাড়ি তিনি ভাড়া দেন। তবে এ সবই জল্পনা। জল্পনা আরও রয়েছে। ব্রুনাইয়ের সুলতান নাকি ১৯০০ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বিশ্বে বিক্রি হওয়া ফেরারির অর্ধেকেরও বেশির মালিক।

গাড়ির পাশাপাশি বিমানের শখ রয়েছে সুলতানের। তাঁর বোয়িং ৭৪৭ বিমানের দাম নাকি ৩,৩০৪ কোটি টাকা। তাতে রয়েছে সোনায় মোড়া বেসিন, জানলা, টেবিল। দামি চামড়ার আসন।

সুলতান যে বিলাসবহুল ইস্তানা নুরুল ইমান প্রাসাদে থাকেন তা ১৯৮৪ সালে নির্মাণ করেন তিনি। ২০ লক্ষ বর্গফুটের ওই প্রাসাদটির নাম 'গিনেস বুক অব রেকর্ডস'-এ ঢুকে পড়েছে। সেটিই নাকি বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রাসাদ। প্রাসাদে রয়েছে ২২টি সোনার গম্বুজ, ১,৭০০টি ঘর এবং ৫টি বিশালকার সুইমিং পুল। সঙ্গে যোগ করুন, ২৫৭টি বাথরুম।

এ ছাড়া, তাঁর নিজস্ব চিড়িয়াখানা ৩০টি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার, অসংখ্য বাজপাখি, কাকাতুয়া-সহ জীবজন্তুতে ভরা। সুলতানের প্রাসাদে নাকি ৫৬৪টি ঝাড়বাতি রয়েছে।

ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডের দাবি, ওই ঝাড়বাতিগুলি গুনেছিলেন এক ব্যক্তি। ঝাড়বাতিগুলিতে আলো ফোটাতে আবার ৫১ হাজার বাল্‌ব বসানো রয়েছে বলেও দাবি করা হয়।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা

news24bd.tv/রিমু