স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে রেখে পালালেন স্বামী
স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে রেখে পালালেন স্বামী

স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে রেখে পালালেন স্বামী

অনলাইন ডেস্ক

গাজীপুরের শ্রীপুরে স্ত্রীর লাশ হাসপাতালে রেখে পালিয়েছে স্বামী। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে ওই গৃহবধূর শাশুড়ি নুরুন্নাহারকে। গৃহবধূর নাম আফরিনা সুলতানা (১৮)। তিনি পোশাক শ্রমিক বলে জানা গেছে।

শনিবার (২৩ জুলাই) রাত ৮টায় শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেন শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

নিহত আফরিনা সুলতানা নেত্রকোনা জেলা সদর উপজেলার ঠাকুরকোনা গ্রামের মৃত রহমত আলীর মেয়ে। নোমান শিল্প গ্রুপের হিলাবেড়াইদ এলাকার জোবায়ের স্পিনিং কারখানায় শ্রমিকের চাকরি করতেন। স্বামী শাহীন আলম নেত্রকোনার আটপাড়া উপজেলার কামতলা গ্রামের জয়নাল আবেদীনের ছেলে। তিনি মেঘনা শিল্প গ্রুপের স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় শ্রমিকের চাকরি করতেন।

নিহত গৃহবধূর বড় ভাই খায়রুল ইসলাম জানান, সন্ধ্যায় বোনের অসুস্থতার খবর পেয়ে আসপাড়া এলাকার ভাড়া বাসায় গিয়ে কাউকে দেখতে পায়নি। পরে স্থানীয়দের মাধ্যমে জানতে পারি ছোট বোন আফরিনাকে তার স্বামী শাহীন আলম শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেছে। তড়িঘরি করে হাসপাতালে গিয়ে বোনের লাশ দেখতে পাই। তিনি অভিযোগ করেন, স্বামী ও শ্বাশুড়ি তার বোনকে নির্যাতন করে হত্যা করে আত্মহত্যার কথা বলে হাসপাতালে বোনের লাশ ফেলে পালিয়ে গেছে স্বামী শাহীন আলম।

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আসমাউল হুসনা বলেন, অজ্ঞাত কয়েকজন লোক ওই গৃহবধূর লাশ রেখে তড়িঘরি করে চলে যায়। হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গৃহবধূর শ্বাশুড়ি নুরুন্নাহারকে আটক করা হয়েছে। পরিবার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা।

news24bd.tv তৌহিদ