সংকটকালে স্বস্তির সুবাতাস বয়ে আনলো রপ্তানি খাত ও রেমিট্যান্স

সংকটকালে স্বস্তির সুবাতাস বয়ে আনলো রপ্তানি খাত ও রেমিট্যান্স

বাবু কামরুজ্জামান

সংকটকালে স্বস্তির সুবাতাস বয়ে আনলো রপ্তানি খাত এবং রেমিট্যান্স। অর্থবছরের প্রথম মাসেই পণ্য রপ্তানি আয় বেড়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ। তৈরি পোশাক খাতের রপ্তানি প্রবৃদ্ধি হয়েছে সাড়ে ১৬ শতাংশ। যা  ছাড়িয়েছে লক্ষ্যমাত্রাকেও।

অন্যদিকে, জুলাই মাসে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের বড় উৎস রেমিট্যান্স আদায় ছাড়িয়েছে ২ বিলিয়ন ডলার যা গেল ১৪ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

বৈশ্বিক অর্থনীতির টানাপোড়েন; দেশে দেশে মূল্যস্ফীতির চাপ ; বাড়তি আমদানি খরচ; এমন বহুবিধ সঙ্কট উপেক্ষা করেও জুলাই মাসের রপ্তানি আয়ের অঙ্কটা স্বস্তি দিচ্ছে দেশের উদ্যোক্তাদের। অর্থবছরের প্রথম মাসে পণ্য রপ্তানি আয় বেড়েছে প্রায় ১৫ শতাংশ। রপ্তানির সিংহভাগ দখলে থাকা তৈরি পোশাক খাত থেকে জুলাই মাসে রপ্তানি আয় এসেছে ৩৩৬ কোটি ডলার; যা আগের বছরের চেয়ে ১৬ শতাংশ বেশি। ছাড়িয়েছে লক্ষ্যমাত্রাও।

পশ্চিমা দেশগুলোতে অর্থনৈতিক সঙ্কট তৈরি হলেও দুই অঙ্কের এই প্রবৃদ্ধি চলমান থাকবে বলে মনে করছেন বিজিএমই এর সহসভাপতি মিরান আলী।

শুধু পোশাক নয়, জুলাই মাস শেষে হিসাব বলছে, প্লাস্টিক খাতের রপ্তানি আয় ৪৪ ভাগ বেড়ে দাড়িয়েছে ১ কোটি ৪৬ লাখ ডলার। আর চামড়া খাতে ৯ কোটি ৭৩ লাখ ডলার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আয় হয়েছে ৯ কোটি ৯৪ লাখ ডলার। এছাড়া পাট ও পাটজাত পণ্য থেকে রপ্তানি আয় এসেছে ৬ কোটি ৩৯ লাখ ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে কিছুটা কম হলেও প্রবৃদ্ধি ৫ শতাংশের বেশি।

যদিও পোশাক খাতের উদ্যোক্তারা বলছেন, জুলাই মাসে রপ্তানিতে যে প্রবৃদ্ধি তা গত অর্থবছরের থেকে অনেক কম। চলমান ক্রয়াদেশ বিবেচনা করলে আগামী মাসগুলোতে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি আরো কমতে পারে বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

বৈদেশিক মুদ্রার অন্যতম খাত প্রবাসী আয়েও বড় উল্লম্ফন হয়েছে অর্থবছরের প্রথম মাসে। ২ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স আদায় হয়েছে জুলাই মাসে। যা গেল ১৪ মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

তবে জুলাই মাসে সম্ভাবনার তালিকায় থাকা কৃষিজাত পণ্যের রপ্তানি আয় কমেছে প্রায় ৩৫ ভাগ। ৯ কোটি ৪২ লাখ ডলার রপ্তানির লক্ষ্য থাকলেও  এ খাতে আয় এসেছে ৬ কোটি ৩৯ লাখ ডলার।

news24bd.tv/কামরুল