পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ : ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু
পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ : ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ : ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতির মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক

ভোলায় পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষে আহত জেলা ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলম রাজধানীর কমফোর্ট হাসপাতালে তিন দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর মৃত্যুবরণ করেছেন। বিষয় নিশ্চিত করেন জেলা বিএনপির সিনিয়র  যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন কবির সোপান।

এনিয়ে সংঘর্ষের ঘটনায় দু‘জনের মৃত্যু হলো।  ভোলা জেলা বিএনপির কেন্দ্রী স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রফিকুল আলম জানান, আজ বাদ মাগরিব নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

গত ৩১ জুলাই বিএনপির দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ভোলা জেলা বিএনপি তেল-গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি এবং লোডশেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ-সমাবেশ করে। পরে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে রাস্তায় নামতে গেলে পুলিশের সাথে নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় ব্যাপক ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও ভাঙচুর করে বিএনপির নেতা কর্মীরা। পুলিশ ৩৫ রাউন্ড টিআর সেল এবং ১৬৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ও শর্টগানের গুলি ছোড়ে। সংঘর্ষে ১০ পুলিশ সদস্যসহ বিএনপির অন্তত অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হয়। প্রাণ হারায় আব্দুর রহিম নামে স্বেচ্ছাসেবক দলের এক কর্মী।

ওই সংঘর্ষে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নুরে আলম গুরুতর আহত হন। ভোলা সদর হাসপাতাল থেকে বরিশাল এবং ওই দিনই তাকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। তিনদিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর আজ দুপুরে ভোলা জেলা ছাত্রদল সভাপতি নুরে আলম রাজধানীর কমফোর্ট হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।

news24bd.tv তৌহিদ