‘১৮ থেকে ৩০ বয়সীদের ৮০ ভাগই সাইবার ক্রাইমের শিকার’
‘১৮ থেকে ৩০ বয়সীদের ৮০ ভাগই সাইবার ক্রাইমের শিকার’

‘১৮ থেকে ৩০ বয়সীদের ৮০ ভাগই সাইবার ক্রাইমের শিকার’

জুবায়ের সানি

দেশের ১৮ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের ৮০ শতাংশের বেশি মানুষ সাইবার ক্রাইমের শিকার হচ্ছে। সাইবার ক্রাইম এওয়্যারনেস ফাউন্ডেশনের জরিপে উঠে এসেছে এমন তথ্য। তাদের পরিসংখ্যান বলছে, ট্রান্সন্যাশনাল এই অপরাধীদের ক্ষেত্র বাংলাদেশ পর্যন্ত বিস্তৃত। এদের ঠেকাতে প্রয়োজন শক্তিশালী আইনি কাঠামো, এমন মত বিশ্লেষকদের।

সেই সাথে সচেতনতা বাড়ানোরও পরামর্শ তাদের।

নানা প্রয়োজনে মানুষ ইন্টারনেটের দারস্থ হলেও অপরাধীদের বিচরণ বেড়েছে মাধ্যমটিতে। ট্রান্সন্যাশনাল এই অপরাধীদের ক্ষেত্র বাংলাদেশ পর্যন্ত বিস্তৃত।

১৯৯ জন ব্যক্তির উপর গবেষণা করে দেখা গেছে, নানা বয়সীরা সাইবার অপরাধের শিকার হয়েছেন।

তবে, ভুক্তভোগীদের মধ্যে নারীদের সংখ্যা বেশি।

শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) আয়োজিত অনুষ্ঠানে সিসিএ ফাউন্ডেশনের সভাপতি কাজী মুস্তাফিজের সভাপতিত্বে গবেষণা প্রতিবেদনের বিস্তারিত তুলে ধরেন গবেষক দলের প্রধান ইস্ট ওয়েস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষক মনিরা নাজমী জাহান। এ গবেষণায় পৃষ্ঠপোষকতা করেছে প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সাইবার প্যারাডাইজ লিমিটেড।

নাজমী জাহান বলেন, ‘করোনাভাইরাস পরবর্তীসময়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অপপ্রচার বাড়ছে। ভুক্তভোগীদের বেশির ভাগের বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছর, এই হার ৮০ দশমিক ৯০ শতাংশ। হয়রানির শিকারের পর ভুক্তভোগীদের ৭৩ দশমিক ৪ শতাংশই আইনের আশ্রয় নেয় না। এছাড়া আইনের আশ্রয় নেওয়া ভুক্তভোগীদের মাত্র ৭ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ আইনি সেবার প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। ’

ব্যক্তি কেন্দ্রে এই গবেষণা করা হলেও প্রতিষ্ঠানগুলো সাইবার অপরাধের আওতার বাইরে নয়। বিশ্লেষকরা বলছেন, আইনী কাঠামো শক্তিশালী না হওয়ার কারণে কমছে না এই প্রবণতা।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বলছে, সাইবার অপরাধীরা প্রতিদিনই তাদের ধরণ বদলাচ্ছে। তবে তুলনামূলকভাবে বাড়ছে না পুলিশের সংখ্যা। তাই বিকল্প নেই সচেতনতার।

শুধু ডিএমপিতে ২০২০ সালে সাইবার অপরাধের শিকার হয়ে পুলিশের দারস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৪৬০ জন। ২০২১ সালে যা বেড়ে দাঁড়ায় ২ হাজার ১৯৩ জনে।

news24bd.tv/তৌহিদ