মমতার কথায় স্বস্তিতে অনুব্রত
মমতার কথায় স্বস্তিতে অনুব্রত

সংগৃহীত ছবি

মমতার কথায় স্বস্তিতে অনুব্রত

অনলাইন ডেস্ক

গরুপাচার মামলায় সিবিআইর হাতে আটক হন ভারতের বীরভূমের তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। আটকের পরেই নানা মহল থেকে গুঞ্জন ওঠে তৃণমূল থেকে ছিটকে যাচ্ছেন না তো এই নেতা। তবে মমতার কথায় যেন স্বস্তি ফিরে পেয়েছেন অনুব্রত। এমনটাই জানিয়েছেন অনুব্রতর আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা।

সোমবার আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, রোববার প্রকাশ্যে জনসভায় অনুব্রতের সাথে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যয়। আর সেই কথাতেই যেন অনুব্রত অসুস্থ শরীরেও সাহস পেলেন।

প্রতিবেদনে অনির্বাণের উক্তির উদ্ধৃতি টেনে বলা হয়, অনুব্রত অত্যন্ত অসুস্থ। সেই অসুস্থতার মধ্যেও তিনি এখন অনেকটাই আত্মবিশ্বাসী।

অনির্বাণ বলেন, ‘উনি জেনেছেন যে, দলনেত্রী তাকে সমর্থন করেছেন। এতে তার আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। উনি বলেছেন, আমি জানতাম দিদি আমার পাশে এসে দাঁড়াবেন। আমাকে অন্যায় ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমার সঙ্গে কোনও ভাবে এই ঘটনার যোগ নেই। ’

এদিকে, বরাবরের মতোই অনির্বাণের দাবি, তার মক্কেলের সঙ্গে গরুপাচারের কোনও যোগ নেই। আর সেই সূত্র ধরে মমতাও একই দাবি করে অভিযোগের আঙুল তোলেন সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ)-র দিকে। সোমবার অনুব্রতের আইনজীবীর গলায় আবার শোনা গেল সেই সুর।

অনির্বাণের কথায়, ‘যদি গরুপাচার হয়েও থাকে, সেটা সীমান্তের ওপারে গিয়েছে। সীমান্তের ওপারে গরু গেলে সেটাই অপরাধ। আর সীমান্ত পাহারার দায়িত্বে থাকে কেন্দ্রীয় সংস্থা বিএসএফ, শুল্ক দফতর। এফআইআরেও বলা হয়েছে, আবগারি দফতরের অফিসারেরা এর সঙ্গে যুক্ত। তা সত্ত্বেও এর আগে মাত্র এক জন শুল্ক আধিকারিককে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তিনি ৩২ দিনের মাথায় জামিন পান। অথচ অনুব্রতকে অন্যায় ভাবে গ্রেফতার করা হয়েছে। ’

গত বৃহস্পতিবার ভারতীয় তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে আটক করে দেশটির সেন্ট্রাল ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই)। গাড়িতে তোলার পরেই শুরু হয় গেল বিজেপি সমর্থকদের উল্লাস। সেসময় রাস্তায় বাস থামিয়ে মিষ্টি বিতরণও করেন অনেকে।

news24bd.tv/FA