ওয়াশরুমে ধূমপানের শাস্তি ইলেকট্রিক শক!
ওয়াশরুমে ধূমপানের শাস্তি ইলেকট্রিক শক!

ভুক্তভোগী তিন কর্মী

ওয়াশরুমে ধূমপানের শাস্তি ইলেকট্রিক শক!

নিজস্ব প্রতিবেদক

মোংলায় ওয়াশরুমে সিগারেট খেয়ে চাকরি হারিয়েছেন তিন কর্মী। অভিযোগ উঠেছে, মোংলা ইপিজেডে জীম লাইট গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীর ওয়াশরুমে ধূমপান করায় তিন শ্রমিককে ইলেকট্রিক শক দিয়ে নির্যাতন ও মুচলেকা নিয়ে চাকরিচ্যুত করেছেন প্রতিষ্ঠানটির মানবসম্পদ কর্মকর্তা হৃদয় মাহমুদ।

এমনকি চাকরিচ্যুত ওই তিন শ্রমিক শেলাইমেশিন অপারেটর ইব্রাহিম জোমাদ্দার, নয়ন হাওলাদার ও হেলপার পলককে রোদে দাঁড় করিয়ে রেখে মুচলেকা নিয়ে বেতন না দিয়ে ফ্যাক্টরী থেকে বের করে দেয়া হয়েছে।  

চাকরিচ্যুত ওই তিন শ্রমিক জানান, মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কাজের ফাঁকে তারা ওয়াশরুমে গিয়ে ধূমপান করেন।

এসময় সুপারভাইজার মো. মেহেদী ও লাইনম্যান মো. লিটন তাদেরকে সেখান থেকে ধরে মানবসম্পদ কর্মকর্তা হৃদয় মাহমুদের কাছে নিয়ে যান। এরপর হৃদয় তাদেরকে গালমন্দের পাশাপাশি ইলেকট্রিক শক দিয়ে নির্যাতন করেন এবং রোদে দাঁড় করিয়ে রাখেন। পরে তাদের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে বেতন না দিয়ে ফ্যাক্টরি থেকে বের করে দেন হৃদয়।

অভিযুক্ত হৃদয় মাহমুদ বলেন, সিগারেট খাওয়ার কারণেই তাদেরকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে।

বেপজার নিয়ম ভঙ্গের কারণেই এটা করা হয়েছে। তবে, তাদেরকে কোন ধরণের নির্যাতন কিংবা ইলেকট্রিক শক দেয়া হয়নি।  

মোংলা ইপিজেডের নির্বাহী পরিচালক মাহবুব আহমেদ সিদ্দিক বলেন, বিষয়টি আমিও শুনেছি। হৃদয় যদি এমন করে থাকে অবশ্যই তাকে সতর্ক ও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর যাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছে তারা তাদের বেতনও অবশ্যই পাবেন, সেই ব্যবস্থা আমি নিচ্ছি।

news24bd.tv/আজিজ