ভারতকে স্তব্ধ করে ফাইনালের পথে শ্রীলঙ্কা 
ভারতকে স্তব্ধ করে ফাইনালের পথে শ্রীলঙ্কা 

সংগৃহীত ছবি

এশিয়া কাপ ২০২২ 

ভারতকে স্তব্ধ করে ফাইনালের পথে শ্রীলঙ্কা 

অনলাইন ডেস্ক

আফগানিস্তানের পর ভারতকে হারিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে এক পা রাখল শ্রীলঙ্কা। আজ দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে আসরের বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের ৬ উইকেটে হারায় লঙ্কানরা। অন্যদিকে, সুপার ফোরে টানা দুই হারে ভারতের ফাইনালে ওঠার স্বপ্ন ফিকে হয়ে গেল।

আগামীকাল সুপার ফোরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে নামবে পাকিস্তান।

এই ম্যাচ যদি পাকিস্তান জিতে যায়, তবে শ্রীলঙ্কাকে সঙ্গে নিয়েই ফাইনাল নিশ্চিত করবে বাবর আজমের দল। কিন্তু ম্যাচটি যদি আফগানিস্তান জেতে, তবে ফাইনালে ওঠার ক্ষীণ একটা সম্ভবনা বেঁচে থাকবে ভারতের। সেটাও অনেক যদি কিন্তুর ওপর।

সুপার ফোরে পাকিস্তানের বিপক্ষে ঠিক যেভাবে হেরেছিল ভারত, শ্রীলঙ্কা ম্যাচেও দেখা গেল একই চিত্র।

পাকিস্তানের মতো ১ বল হাতে রেখে ভারতকে হারায় লঙ্কানরা। পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৯তম ওভারে ১৯ রান খরচা করে ভারতকে ভুবনেশ্বর কুমার বিপদে ফেলেন। এই ম্যাচেও ১৯তম ওভারে ভুবনেশ্বর দিলেন ১৪ রান। সেখানেই শেষ ম্যাচ।

শেষ ওভারে তরুণ অর্শদীপ সিং চেষ্টা করেছিলেন বটে। তবে অধিনায়ক দাসুন শানাকা ভানুকা রাজাপাকসেকে নিয়ে জয় নিশ্চিত করেই ছাড়েন মাঠ। অর্শদীপের পঞ্চম বলে ঋষভ পন্থ এবং অর্শদীপে নিজের ভুলে দুটি বাই রান পায় শ্রীলঙ্কা। তাতেই ৬ উইকেটের জয় নিশ্চিত হয় লঙ্কানদের।

ম্যাচটা শ্রীলঙ্কার জন্য আরও সহজ হতে পারত। তা হতে দেননি যুজবেন্দ্র চাহাল। ১৮৪ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতেই লঙ্কানরা তুলে ফেলে ৯৭ রান। এরপর ১৩ রানের মধ্যে চার উইকেট হারায় তারা। ৫২ রান করা পাথুম নিশাঙ্কাকে ফিরিয়ে উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন চাহাল। ১১তম ওভারেরই চারিথ আসালাঙ্কাকেও শূন্য হাতে সাজঘরে পথ দেখিয়ে দেন এই স্পিনার।

শ্রীলঙ্কা তৃতীয় উইকেট হারায় ১১০ রানে। ১ রান করা দানুশকা গুনাথিলাকাকে লোকেশ রাহুলের ক্যাচ বানান রবিচন্দ্রন অশ্বিন। পরের ওভারেই ভয়ঙ্কর হতে থাকা কুসল মেন্ডিসকে ফিরিয়ে ভারতকে ম্যাচে ফেরান চাহাল।

দ্রুত চার উইকেট হারালেও শক্ত হাতে পরিস্থিতি সামাল দেন শানাকা ও রাজাপাকসে। বেশ হিসাব করেই এগোতে থাকেন এই দুই ব্যাটার। প্রতি ওভারেই শানাকা অথবা রাজাপাকসে-কেউ না কেউ হাঁকান বাউন্ডারি ওভার বাউন্ডারি। তবে পুরো ম্যাচের দৃশ্যপট বদলে যায় ভুবনেশ্বরের করা ১৯তম ওভারের পর।

শ্রীলঙ্কাকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয়ার আগে ১৭ বল খেলা রাজাপাকসের ব্যাট হাতে আসে ২৫ রান। শানাকা ছিলেন আরও বিধ্বংসী। মাত্র ১৮ বলে ৩৩ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে দলকে সামনে থেকেই নেতৃত্ব দেন তিনি।

এর আগে টস জিতে আগে বোলিং করতে নেমেও দারুণ শুরু পায় শ্রীলঙ্কা।  মাত্র ১৩ রানেই ভারতের দুই টপ অর্ডার ব্যাটার রাহুল এবং কোহলিকে সাজঘরে ফেরত পাঠায় লঙ্কান বোলাররা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে ওপেনার রাহুলকে ৬ রানে ফেরান মহেশ থিকসানা। পরের ওভারে কোহলিকে শূন্য হাতে সাজঘরের পথ দেখিয়ে দেন দিলশান মাদুশাঙ্কা।

তবে তৃতীয় উইকেটে ঘুরে দাঁড়ায় ভারত। অধিনায়ক রোহিত সূর্যকুমারকে নিয়ে ইনিংস মেরামত করেন। এই দুজনে তৃতীয় উইকেটে যোগ করেন ৯৭ রান। দারুণ খেলতে থাকা রোহিতকে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন চামিকা করুনারত্নে। এরপর সূর্যকুমার যাদবও দাসুন শানাকার বলে ফিরে গেলে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন উবে যায় ভারতের।

তবে হার্দিক পান্ডিয়া এবং ঋষভ পন্থের ১৭ এবং রবিচন্দ্রন অশ্বিনের ১৫ রানের সুবাদে শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭৩ রানে গিয়ে থামে ভারতের রানের চাকা। শ্রীলঙ্কার হয়ে সফলতম বোলার মাদুশাঙ্কা। ৪ ওভারে মাত্র ২৪ রান খরচায় ৩ উইকেট নেন তিনি। দুটি করে উইকেট পকেটে পুরেছেন করুনারত্নে এবং শানাকা। অপর উইকেটটি থিকশানার।

news24bd.tv/সাব্বির