স্বাধীনতা, তোমার নামে কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হচ্ছে
স্বাধীনতা, তোমার নামে কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হচ্ছে

স্বাধীনতা, তোমার নামে কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হচ্ছে

সোহেল সানি

ফরাসি বিপ্লবোত্তর চরম অরাজকতার মুখে মনীষী মাদাম রোনাল্ড (Madam Ronald) আক্ষেপ করে লিখেছিলেন, ‌‘Liberty, what crimes are being committed in thy name!’- স্বাধীনতা, তোমার নামে কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হচ্ছে!
আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ। স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশকে ‘সোনারবাংলা’ বানাতে চাইলেন জাতির পিতা। তাঁর বাঙালি সন্তানদের এজন্য ‘সোনার মানুষ’ হতে বললেন। কিন্তু পিতার ডাকে শামিল হওয়া নয় বরং বিভক্ত হলো, উল্টো তাঁকেই অস্ত্রবলে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের ঘোষণা দিয়ে মাঠে-ময়দানে ছড়িয়ে পড়লো।

সুযোগ নিলো এর সঙ্গে স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরাও। কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হতে থাকলো। বাংলাদেশের নামই স্বীকার করলেন না। কেউ বললেন, ‘মুসলিম বাংলা’, কেউ বললেন, ‘পূর্ববাংলা’, কেউবা ‘স্বাধীন বঙ্গভূমি’।

অবাধ সাংবিধানিক স্বাধীনতার কুফল হাড়েহাড়ে টের পেলো জাতি। জাতির পিতা যখন কঠোর হলেন, আর তখনই তাঁকে প্রায় সপরিবারে জীবন দিতে হলো। সেই বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা পার করেছি। কিন্তু রোধ হয়নি এতটুকু অবক্ষয়। বরং চারদিকেই চরম আকারধারণ করেছে। সমাজ জীবনের এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যেখানে অবক্ষয় ভয়াবহরূপে নেই। পুরানো সব মূল্যবোধ, সংস্কৃতি এখন নিশ্চিহ্ন। নতুন কোনো মূল্যবোধও দুর্নিরীক্ষ্য- যে মূল্যবোধে স্বাস্থ্য আর শালীনতার লক্ষণ রয়েছে। নেতাদের মুখে স্বাধীনতার মূল্যবোধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লাখো কোটি বার উচ্চারিত হলেও বঙ্গবন্ধুর সোনার মানুষ কই? এটা ঠিক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা বদৌলতে এক ধরনের সরকারি উন্নয়নের চাঞ্চল্য সর্বত্র দেখা যায় সত্য কিন্তু তাকে প্রাণচাঞ্চল্য নামে অভিহিত করা যায় না। এ যেন আমাদের মরণের আগে হাত-পা ছোঁড়া। কারণ বস্তুগত উন্নয়ন হলেও উন্নয়ন হয়নি রাজনীতির, দৃশ্যমান নয়, ভবিষ্যত নেতৃত্ব। বিকাশ হয়নি বিকল্প রাজনৈতিক নেতৃত্বের। যিনি রাষ্ট্রীয় নেতৃত্বের সম্ভাব্য দাবিদার হতে পারেন। বরং দিন যতো যাচ্ছে শঙ্কা ততো ঘনীভূত হচ্ছে।

আসছি আমরা সাংবাদিক সমাজ কেমন আছি? গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ ও ধারালো হাতিয়ার যে সংবাদপত্র, সেই সংবাদপত্র অতীতেও রেজিমেন্টড হয়েছে। অর্থাৎ বাক-স্বাধীনতা অতীতেও চাটুকারিতায় নিয়োজিত হয়েছে। কিন্তু এখানকার মতো নয়। এখন তো সংবাদপত্রের ছড়াছড়ি। রাজধানীর দেয়ালগুলো আগে ছিলো রাজনৈতিক দলের চিকাভরা আর এখন নামসর্বস্ব সংবাদপত্রগুলোতে ঠাসা। প্রশ্নবিদ্ধ সাংবাদিকতার মান নিয়েও। প্রশ্ন সরকারের আচার-আচরণ নিয়েও। সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিয়েও শঙ্কা। আসলে আমাদের দেশের সমস্যার ও জনগণের দুর্দশার অন্ত নেই। কিন্তু বেশিরভাগই কৃত্রিম ও আমাদের নিজ হাতে তৈরি। শাসক-পরিচালকদের ভুল-ভ্রান্তির জন্য এসব ঘটে। আমাদের জাতীয় জীবনের দুটা প্রধান দিক রাজনীতি ও  সাংবাদিকতা। আজ দেশে-সমাজে, রাজনীতিতে, অর্থনীতিতে, সাহিত্যে ও সাংবাদিকতায়, বিদ্যালয়ে-মন্ত্রণালয়ে যা যা ঘটছে, মনে হয় তফাজ্জল হোসেন  মানিক মিয়া, আবুল মনসুর আহমেদরা বেঁচে থাকলে এসব ঘটতে পারতো না। এই দুটা দিকেই তাঁরা জীবদ্দশায় ছিলেন অনন্য ও অতুলনীয়। মৃত্যুর পরেও তাঁদের স্থলবর্তী জন্মেনি। বিশেষ করে মানিক মিয়া সাংবাদিকতায় ছিলেন মিশনারি আর রাজনীতিতে স্টেটসম্যান। এটাই ছিল তাঁর প্রভাবের গূঢ়তত্ত্ব।

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর কাছ থেকেই বঙ্গবন্ধুর মতো মানিক মিয়া, আবুল মনসুর আহমেদরা আত্মস্থ করেছিলেন দেশপ্রেম, রাজনৈতিক আদর্শবাদ, দুর্জয় সাহস, অমিত তেজ, বেপরোয়া ত্যাগ, স্বচ্ছ চিন্তা, সবল যুক্তি, কুশল-প্রকাশভঙ্গী এবং গণতান্ত্রিক সহিষ্ণুতা,এ সবই। সামরিক স্বৈরাচারের সামনে তাঁরা উন্নত মস্তকে দাঁড়িয়ে জনগণের অধিকারের কথা বলতে বুকের পাটা খুব কম লোকই দেখিয়েছেন। সংবাদপত্র শিল্প আর দশটা সাধারণ শিল্পের মতো নয়, পণ্য তৈরি করিলেই বাজারে বিক্রয় হইয়া যায়; কিন্তু সংবাদপত্রকে জনমতের বাহন হইয়া বাঁচিয়া থাকিতে হয়। ”এই উক্তিটি সাংবাদিকতার পথিকৃৎ তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার। তাঁর ভাষায়, ‘দেশে দেশে যুগে যুগে সংবাদপত্রের উপর অসহিষ্ণু শাসকবর্গ হামলা করিয়াছেন এবং শেষ পর্যন্ত সংবাদপত্রই জয়যুক্ত হয়েছে। ’

যাঁরা ইতিহাসের অমোঘ শিক্ষা উপেক্ষা করিয়া সংবাদপত্রের বিরুদ্ধে মধ্যযুগীয় আচরণে লিপ্ত হইয়াছেন, তাহাদের প্রতি আমার অনুকম্পা প্রকাশ করিতে হয়। ’

সত্যিই এই পুরুষসিংহ মানিক মিয়া শাসকদের অনুকম্পাই প্রদর্শন করতেন। তা নাহলে যে অর্ডিনান্সের খবরও সংবাদপত্রে ছাপানো নিষিদ্ধ ছিল, সেই তার বিরুদ্ধেই ওই ভাষায় ‘রাজনৈতিক মঞ্চ’ বা মুসাফির নামে কলাম কি করে লিখতেন?
এই সময়ে বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে মানিক মিয়া থাকলে তিনি যুক্তির খড়াগাঘাতে ছিন্ন ভিন্ন করে দিতে পারতেন মিথ্যাকে। আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য- সহসভাপতি ও পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আবুল মনসুর আহমদের ভাষায়,”আমরা একবার সকলে মিলে জোর করে মানিক মিয়াকে আওয়ামী লীগ ওয়ার্কিং কমিটির মেম্বর করেছিলাম। বছর না ঘুরতেই তিনি বললেন, ভেতরের চেয়ে বাইরে থেকেই আওয়ামী লীগের বেশি খেদমত করতে পারবেন। করেছেনও তিনি। আমরণ আওয়ামী লীগের এমন খেদমত যার তুলনা হয় না। শুধু আওয়ামী লীগ নয়, গোটা জাতি, সারাদেশ, শুধু পূর্ব পাকিস্তান নয়, গোটা পাকিস্তান তাঁর কাছে ঋণী। তাঁর অবদান এতো মূল্যবান ছিল যে, ইচ্ছা করলেই মন্ত্রী বা আওয়ামী লীগের পদাধিকারী হতে পারতেন। কিন্তু সেদিকে তাঁর নজর ছিল না’

তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার মতো আবুল মনসুর আহমদও বেঁচে নেই। বেঁচে আছে তাঁদের কথা। আবুল মনসুর আহমেদের ‘আমার দেখা রাজনীতির পঞ্চাশ বছর’ এবং ‘শেরেবাংলা থেকে বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক দুটো গ্রন্থ পঁচাত্তরত্তোর প্রজন্মের জন্য শিক্ষণীয়। যেখানেই সাংবাদিকতার নিরঙ্কুশ স্বাধীনতা ক্ষুন্ন, সেখানেই তাঁরা আরও বেশি স্মরণীয়। ঠিক সেরূপ, যেখানে গণতন্ত্রের স্বার্থ বিপন্ন, জনগণের স্বার্থ বিপর্যস্ত, সে বিপদ ও বিপর্যয় শাসকদের ইচ্ছাতেই হোক আর অনিচ্ছাতেই হোক, তাঁদের অভাব সেখানেই তীব্রভাবে অনুভূত। গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ ও ধারালো হাতিয়ার যে সংবাদপত্র বা গণমাধ্যম, সেই সত্যকে স্বীকার করে অতীতে বহু  সাংবাদিককে সরকার মুক্তি দিয়েছে বা দিতে বাধ্য হয়েছে।

‘আমাদের বাঁচার দাবি’ ছয়-দফার সমর্থনে ১৯৬৬ সালের ৭ জুনের বিপ্লবে মানিক মিয়া ও তাঁর ইত্তেফাকের মতো সার্বিক ত্যাগ স্বীকার খুব কম নেতা ও সংবাদপত্রকেই করতে হয়েছে। মানিক মিয়া ও ইত্তেফাকের ওপর আইয়ুব খানের জুলুমের নজির দুনিয়ার দ্বিতীয়টি নেই। আবুল মনসুর আহমদের ভাষায় ‘বস্তুত জনগণের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সাংবাদিকদের ত্যাগ ব্যাপকতায়, সামগ্রিকতায় ও মহিমা-মর্যাদা অপরিসীম। আমরা যাঁরা সমানে জেল-জুলুম সয়েছি, তাঁরা শুধু শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনে ভুগেছি। মানিক মিয়ার মতো সম্পত্তি ধ্বংস -বাজেয়াপ্ত হয়নি আর কোনো সাংবাদিক বা সম্পাদকের জীবনে। এতসব করেও ডিক্টেটররা মানিক মিয়াকে আদর্শচ্যুত করতে পারেনি।

যে গণ-দাবির সমর্থন করার অপরাধে ইত্তেফাক শাসকদের শ্যেনদৃষ্টির শিকার হয়েছিল, মাত্র তিন বছরেরই ছাত্রজনতার সংগ্রামের সামনে আইয়ুব শাহীর পরাজয় ঘটে। ষড়যন্ত্রমূলক কুখ্যাত আগরতলা মামলারও অবসান ঘটে। যা ছিল জঙ্গি ডিক্টেটর আইয়ুবের কুখ্যাত ‘সিভিল ওয়ার’ ও আর্গুমেন্ট অব ওয়েপনের’ দর্প ও দম্ভের প্রথম নমুনা। রাজনীতিবিদ আবুল মনসুর আহমেদ তাই লিখেছেন, ‘জালিমশাহীর নমরুদী আক্রোশে যে বঙ্গবন্ধুকে পুড়িয়ে মারার উদ্দেশ্যে নির্যাতনের অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করেছিল সে আগুনের লক্-লকা জিভ ও উৎকীর্ণ স্ফুলিঙ্গ ইব্রাহিম নবীর কুসুমস্তবকের সুষমা ও সৌরভ নিয়ে ‘ইত্তেফাকের’ ফুলাসন ও পুষ্পমাল্যে রূপান্তরিত হয়েছিল। বাংলাদেশে সাংবাদিকদের গণমাধ্যমের স্বাধীনতার শক্তিধর ডিফেন্ডার হতে হলে পূর্বসূরি মানিক মিয়াদের জীবনাদর্শ থেকে শিক্ষা গ্রহণের বিকল্প নেই। গণতন্ত্রই মানবাধিকারের সর্বশ্রেষ্ঠ রক্ষাকবজ। সীমাহীন শক্তির অধিকার মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সেদেশের সংবাদপত্রগুলো কীভাবে লড়াই করে গণতন্ত্রের মর্যাদা রক্ষা করছেন, এটা দেখে আমাদের সাংবাদিকদের সঙ্কল্পবদ্ধ হতে হবে।

রাষ্ট্র ও সংবাদমাধ্যম উভয়ের সমন্বয়ের প্রয়োজন, উভয়কে হাত ধরাধরি করে চলতে হয়। যদি না চলে, অথবা উভয়ের গতি হয় অবক্ষয়ের দিকে, তা হলে তা রোধ করার পথ নির্দেশের দায়িত্ব কার? নিঃসন্দেহে সাহিত্য আর  শিল্পের ভুমিকা দীর্ঘমেয়াদি, তার আবেদন ধীরসঞ্চারী, তার ফল দেখা দেয় দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর। তাৎক্ষণিকের প্রয়োজন মিটাতে সংবাদমাধ্যম অদ্বিতীয়। সমাজের প্রতিদিনের চেহারাটা সংবাদপত্রেই প্রতিফলিত হয়। এ প্রায় দর্পণের কাজ করে – চেহারার কালো দাগটা সহজেই নজর কাড়ে, তখন তা মুছে ফেলার জন্য হাতটা ঊর্ধ্বাভিসারী না হয়ে পারে না। এ প্রায় জৈব তাড়নার মতো কাজ করে। জাতীয় জীবনে গণমাধ্যমের ভুমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের প্রতিভাবান, সুযোগ্য, দক্ষ ও কুশলী সাংবাদিকের অভাব নেই। অভাব সাহসী ও নির্ভীক সাংবাদিকের। যারা সমাজ ও রাষ্ট্র উভয়কে বিচার করতে আর পথ দেখাতে সক্ষম। সমাজ, রাষ্ট্র আর বৃহত্তর জনগণের স্বার্থ যেখানে জড়িত- তা এমন বৃহৎ ও মহৎ বস্তু যে, তার জন্য নিবেদিত সাংবাদিকরা যে কোন নির্যাতনের মোকাবিলা করতে ভীত হতে পারেন না। স্বাধীনতার আগে যে ধরনের নির্যাতনের সম্মুখীন সাংবাদিকরা হতেন, সেরকম পরিস্থিতি অবসান ঘটেছে। তবে ধরন-ধারণ পরিবর্তন ঘটলেও অন্যরূপ, অন্য আকার নির্যাতন যে চলবে না বা এখনো চলছে না সে কথা বলা যায় না। সরকার যারা চালান তারাও দোষে-গুণে মানুষ, তাঁরাও যে মাঝেমধ্যে অসহিষ্ণু হয়ে পড়ছেন না বা ভ্রান্ত নীতির অনুসরণ করেন না তা নয়। সাংবাদিকদের ফাঁসাতে সরকারকে কীভাবে আমলাতন্ত্র অসহিষ্ণু পথ বাতলে দিচ্ছিল, তা আমরা কিছু ঘটনায় প্রত্যক্ষ করেছি। দেশপ্রেমিক সাংবাদিকদের বিপদের ঝুঁকি নিয়ে হলেও সে সবের প্রতিবাদ জানাতে হবে, সরকারের ভুল-ভ্রান্তিকেও দেখিয়ে দিতে হবে আঙ্গুল দিয়ে। আশার কথা হচ্ছে, আমরা সাংবাদিকরা রাজনৈতিকায়ণের আওতাধীন আদর্শগত বৈপরীত্যের বেড়াজালে বিভক্ত হলেও সাম্প্রতিক সাংবাদিকদের ঐকমত্যে একটা আশার রেখাপাত দেখতে পাচ্ছি।

বিপদের ঝুঁকি নিয়েই সব অন্যায়ের  বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হচ্ছে। এটা না করা হলে শুধু যে সাংবাদিক হিসেবে কর্তব্যচ্যুতি ঘটে তা নয়, পেশার প্রতিও করা হয় বিশ্বাসঘাতকতা। দেশের মানুষকে সর্বপ্রকারে সচেতন রাখা আর সচেতন করে তোলাই সংবাদমাধ্যমের এক বড় দায়িত্ব। এ দায়িত্বপালন রাজনীতিবিদদের দ্বারা হওয়ার নয়। কারণ তাঁরা সবসময় সবকিছুই দলীয় চশমা দিয়ে দেখেন। তাই তাঁদের পক্ষে পুরোপুরি নিরপেক্ষ হওয়া বা যথাযথভাবে সবকিছু দেখা এবং তার মূল্যায়ন করা সম্ভব হয় না। পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের ঘটনাবলী সাধারণভাবে একটি প্রগতিপ্রবণ নির্দিষ্ট দিগন্তমুখী থাকার কারণে এবং মুক্তি সংগ্রামের ভাবাদর্শগত ও বস্তুগত উপাদানগুলো অনিবার্যভাবে স্বাধীন সত্তার দিকে বিন্যস্ত হওয়ার ফলেই বাংলাদেশের সৃষ্টি হয়েছে। দ্বন্দ্বাত্মক বস্তু গতিধারার মাঝে মাঝে বিরোধের সৃষ্টি হয়েছে বিপ্লবাত্মক উপাদানের মধ্যেই। জট পাকিয়ে দিয়েছে সংগ্রামী ব্যুহ রচনার ক্ষেত্রে। সাময়িক প্রেক্ষিত নিয়েই এসেছে অভিঘাতের তাগিদ। পাকিস্তানি সামরিক শাসকচক্র ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে জুজু তৈরি করে তা সংক্রমিত হয়েছিল এ দেশের মানুষের মনেও। নিষেধের বেড়াজাল ছিল চারদিকে। মাঝে মাঝে এই ভয় আর বেড়াজাল ভাঙার জন্য দরকার পড়তো নির্ভীক মানুষের। একজন সাংবাদিকের অবদান তুচ্ছ নয়। তিনি দার্শনিক নন, সমাজকে নতুন দর্শন দান করেন না বটে, কিন্তু চলতি সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনের যা কিছু ক্লেদ, যা কিছু অনভিপ্রেত আবর্জনা, সেগুলো রাত্রির আঁধার হতে দিবালোকে তুলে ধরেন। চলতি সমাজকে তিনি আঁধার ছেড়ে আলোর দিকে যেতে অনুপ্রাণিত করেন। আঁধারের দিকটা দেখিয়ে দেওয়া মানে আলোর প্রতি আকৃষ্ট করা। এটাকেই বলে সমাজ চেতনা।
বাংলাদেশের পরিস্থিতি লক্ষ্য করে সেই মনীষীর উক্তির সঙ্গে সঙ্গে আমার মানসপটে তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার প্রতিচ্ছবি ভেসে ওঠে। দুঃসাহসিক সত্য ভাষণে তাঁর অবদান আজও অনতিক্রম্য রয়ে গেছে। তাঁর সাংবাদিকতা অপক্ষপাত ছিল তা বলবো না, তবে নিজের আদর্শ আর বিশ্বাসে তিনি ছিলেন অনঢ়। বিপদের মুখে তাঁর কলম যেন আরও ক্ষুরধার হয়ে উঠতো। হয়ে উঠতেন অধিকতর দুঃসাহসী। আমাদের সাংবাদিকতার বর্তমান চেহারা দেখলে প্রশ্নে জাগে আমরা সাংবাদিকরা সাংবাদিকতার অতীত ঐতিহ্য অনুসরণ করছি কিনা? আমাদের গণমাধ্যমগুলো ‘জলো’ হয়ে যাচ্ছে। আমাদের সমাজ রাষ্ট্র কি এখন সব সমালোচনার ঊর্ধ্বে পৌঁছে গেছে? নিশ্চয়ই না। আমরা সমালোচনা করবো গঠণমূলক সমালোচনা। করবো নিজেদেরও আত্মসমালোচনা, সত্যকেই ভালোবাসবো, মিথ্যাকে করবো পরিহার। শেষে আবারও দৃঢ়কণ্ঠে উচ্চারণ করবো যে, দেশে দেশে যুগে যুগে সংবাদপত্রের উপর অসহিষ্ণু শাসকবর্গ হামলা করিয়াছেন এবং শেষপর্যন্ত সংবাদপত্রই জয়যুক্ত হয়েছে।

লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক, কলামিস্ট ও ইতিহাস গবেষক।