‘মানবহিতৈষী নীতি’ অনুমোদন পুতিনের
‘মানবহিতৈষী নীতি’ অনুমোদন পুতিনের

সংগৃহীত ছবি

‘মানবহিতৈষী নীতি’ অনুমোদন পুতিনের

অনলাইন ডেস্ক

ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে পশ্চিমাদের সঙ্গে বৈরি সম্পর্কের মধ্যে নতুন একটি ‘রুশ বিশ্ব’র ধারণা তৈরি হয়েছে। তারই  ভিত্তিতে নতুন এক পররাষ্ট্রনীতি পরিকল্পনা অনুমোদন করেছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন।

অনুমোদন পাওয়া এই নীতিতে বলা হয়েছে, রাশিয়ার উচিত স্লাভিক দেশগুলো, চীন এবং ভারতের সঙ্গে সহযোগিতা বাড়ানোসহ মধ্যপ্রাচ্য, লাতিন আমেরিকা ও আফ্রিকার সঙ্গে সম্পর্ক আরও মজবুত করা।

এছাড়া ২০০৮ সালে জর্জিয়ার সঙ্গে যুদ্ধের পর মস্কো থেকে স্বাধীনতার স্বীকৃতি দেয়া আবখাজিয়া ও ওসেটিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর করাসহ পূর্ব ইউক্রেনে দোনেৎস্ক পিপলস রিপাবলিক ও লুহানস্ক পিপলস রিপাবলিকের সঙ্গেও সম্পর্ক জোরদার করা উচিত।

ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের ছয় মাসেরও বেশি সময় পর পুতিনের ৩১ পৃষ্ঠার এই পররাষ্ট্রনীতি পরিকল্পনা প্রকাশিত হয়েছে। যাকে বলা হচ্ছে ‘মানবহিতৈষী নীতি’। এতে বলা হয়েছে, রুশ বিশ্বের ঐতিহ্য ও আদর্শ এগিয়ে নেয়া এবং এর সুরক্ষা নিশ্চিত করবে রাশিয়া।

পুতিনের এই পররাষ্ট্রনীতিতে আরও বলা হয়েছে, রাশিয়া ফেডারেশন বিদেশে বাস করা রুশ নাগরিকদের অধিকার রক্ষায় সমর্থন দেবে এবং তাদের স্বার্থ ও রুশ সাংস্কৃতিক পরিচয়ের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে সহায়তা করবে।

তাছাড়া, প্রবাসী রুশ নাগরিকদের সঙ্গে এই সম্পর্ক আন্তর্জাতিক মঞ্চে বহু-মেরু বিশ্ব গড়ে তুলতে সংগ্রাম করে যাওয়া একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসাবে রাশিয়ার ভাবমূর্তিও উজ্জ্বল করবে।

news24bd.tv/সাব্বির