অর্ধশত ঘুঘু মুক্ত হয়ে উড়ল আকাশে
অর্ধশত ঘুঘু মুক্ত হয়ে উড়ল আকাশে

সংগৃহীত ছবি

অর্ধশত ঘুঘু মুক্ত হয়ে উড়ল আকাশে

অনলাইন ডেস্ক

খাবার ছিটিয়ে ফাঁদ দিয়ে ঘুঘু ধরছিলেন শিকারিরা। তাদের হাতে ধরা পড়েছিল অনেকগুলো ঘুঘু। খবরটি পৌঁছে যায় পরিবেশবাদী একটি সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবীদের কাছে। পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে সেখানে হাজির হন তারা।

পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ফাঁদ আর খাঁচাবন্দী ঘুঘু ফেলে দৌড়ে পালান শিকারিরা। পরে প্রায় অর্ধশত খাঁচাবন্দী ঘুঘু মুক্ত করে আকাশে ছেড়ে দেওয়া হয়। বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের ফুলদিঘি গ্রামে বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজ ক্যাম্পাসভিত্তিক পরিবেশবাদী স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির নাম ‘তীর’ (টিম ফর এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল রিসার্চ)।

সংগঠনটির সভাপতি রাকিবুল হাসান বলেন, ‘নন্দীগ্রামে দীর্ঘদিন ধরে জাল পেতে ঘুঘু শিকার করা হচ্ছে বলে আমাদের কাছে খবর আসে। পুলিশ নিয়ে ফুলদিঘি গ্রামে গিয়ে ঘুঘু ও জালের ফাঁদ দেখা যায়। পরে ঘুঘুগুলো মুক্ত করে আকাশে ছেড়ে দেওয়া হয়। ’

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার চারজন শিকারি ফসলের মাঠে ঘুঘু ধরার জন্য জালের তৈরি বিশেষ ধরনের ফাঁদ পাতেন। ফসলের খেতে পাখির আনাগোনা দেখে জাল পেতে নিরাপদ দূরত্বে ওত পেতে ছিলেন তারা। খাবার খেয়ে দল বেঁধে উড়ে যাওয়ার সময় জালে জড়িয়ে আটকে যায় ঘুঘুগুলো।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘বন্য পাখি শিকার, হত্যা, খাঁচাবন্দী করে আটকে রাখা কিংবা বিক্রি দণ্ডনীয় অপরাধ। পাখি শিকারে জড়িত ব্যক্তিদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। দেশীয় পাখি যাতে বিলুপ্ত না হয়, সে জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে। ’

news24bd.tv/মামুন