যশোরে ৩৫ দিনে আট এইডস রোগী শনাক্ত
যশোরে ৩৫ দিনে আট এইডস রোগী শনাক্ত

যশোরে ৩৫ দিনে আট এইডস রোগী শনাক্ত

অনলাইন ডেস্ক

হঠাৎ করেই সীমান্ত ঘেঁষা জেলা যশোরে বেড়েছে মরণব্যাধি এইডসে আক্রান্তের সংখ্যা। সর্বশেষ ৩৫ দিনে জেলায় মোট আটজনের শরীরে এইচআইভি ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে তিন বছরে জেলাটিতে মোট ১৭ জনের দেহে প্রাণঘাতী ভাইরাসটি শনাক্ত হল। বিষয়টিকে উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

এ পরিস্থিতিকে সতর্ক হওয়ার বার্তা বলে মনে করেছেন তারা।

যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে এইচআইভি-এইডস পরীক্ষা-নিরীক্ষা কেন্দ্র এইচটিসি সেন্টারে এই পরীক্ষা করা হয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরে ১০ জনের দেহে এইডসের ভাইরাস শনাক্ত করা গেছে। এর মধ্যে গত আগস্টে যশোর হাসপাতালের পরীক্ষাকেন্দ্রে চারজনের দেহে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়।

আর সেপ্টেম্বরের প্রথম চারদিনে আরও চারজনের দেহে ভাইরাসটি ধরা পড়ে।  

নতুন শনাক্তের মধ্যে পাঁচজন পুরুষ ও তিনজন নারী। তাদের বয়স ২০-৫০ বছরের মধ্যে। আক্রান্তরা ভারত ও বাংলাদেশ উভয় দেশেই বসবাস করেন।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের এইচটিসি সেন্টারে ২০২০ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি এইচআইভি ভাইরাস পরীক্ষা শুরু হয়। সে সময় থেকে চলতি বছরের আগস্ট মাস পর্যন্ত মোট দুই হাজার ৯৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ২০২০ সালে শনাক্ত হয় তিনজন। পরের বছর অর্থাৎ ২০২১ সালে চার ও ২০২২ সালের ৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১০ জনের শরীরে ভাইরাসটি শনাক্ত হয়।

যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘যেভাবে এইডস আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে তা আমাদের জন্যে একটি সতর্কবার্তা। আক্রান্তদের অনেকেই ভারত এবং বাংলাদেশ বসবাস করেন। যশোর জেনারেল হাসপাতালে সরকারিভাবে চিকিৎসার জন্যে থেরাপি সেন্টার নেই। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এর সেন্টার আছে। ’

সিভিল সার্জন ডা. বিপ্লব কান্তি বিশ্বাস বলেন, ‘যশোরে উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে এইডস রোগীর সংখ্যা। নতুন শনাক্ত সবাই খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ইতোমধ্যে আমরা জরুরি ভিত্তিতে এইডস রোগীদের চিকিৎসা কেন্দ্রের জন্য আবেদন করেছি। খুব দ্রুত আমরা যশোরে এইডস রোগীদের চিকিৎসা করবো। ’ 

তিনি আরও বলেন, ‘সীমান্ত এলাকা হওয়ায় আমরা ঝুঁকিতে আছি বেশি। আমরা দ্রুত পরীক্ষা-নিরীক্ষা বৃদ্ধির ব্যবস্থা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ’

news24bd.tv/মামুন

এই রকম আরও টপিক