জাম্পার স্পিনে কুপোকাত নিউজিল্যান্ড, সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার
জাম্পার স্পিনে কুপোকাত নিউজিল্যান্ড, সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

সংগৃহীত ছবি

জাম্পার স্পিনে কুপোকাত নিউজিল্যান্ড, সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

অনলাইন ডেস্ক

কেয়ার্নসে সিরিজে সমতা ফেরাতে নিউজিল্যান্ডের সামনে লক্ষ্য ছিল ১৯৬ রানের। সেই রানও তাড়া করতে পারলেন না উইলিয়ামসনরা। উল্টো মাত্র ৮২ রানে অলআউট হয়ে ব্ল্যাকক্যাপসরা ১১৩ রানে ম্যাচ তো হেরেছেই, খুইয়েছে সিরিজও।

চ্যাপেল-হ্যাডলি সিরিজের প্রথম ম্যাচ অল্পের জন্য হারে নিউজিল্যান্ড।

আজ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়াকে মাত্র ১৯৫ রানে বেধে ফেলে জয়ই দেখছিল সফরকারীরা। তবে অ্যাডাম জাম্পার ফাইফার এবং মিচেল স্টার্ক ও সেন অ্যাবটের বোলিং তোপে মাত্র ৮২ রানেই গুটিয়ে যায় কিউইদের ইনিংস।

কাজালিসে ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ১৪ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসে নিউজিল্যান্ড। ওপেনার ডেভন কনওয়ে এবং টম লাথামকে ফেরান অ্যাবট।

মার্টিন গাপটিলের উইকেট তুলে নেন মিচেল স্টার্ক। নিউজিল্যান্ড সবচেয়ে বড় ধাক্কা খায় অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে হারিয়ে। জাম্পার স্পিনে বোকা বনে ব্যক্তিগত ১৭ রানে উইকেট দিয়ে আসেন উইলিয়ামসন।

এরপর কেউই আর দলের হাল ধরতে পারেননি। ড্যারেল মিচেল, মিচেল ব্রেসওয়েল, জিমি নিশামরা শুধু উইকেটে এসেছেন আর গেছেন। উইলিয়ামসনকে ফেরানোর পর মিচেল, সাউদি, হেনরি এবং বোল্টকে ফিরিয়ে জাম্পা পান তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ফাইফার। কিউইদের বিপক্ষে ৩৫ রানে ৫ উইকেট এই ফরম্যাটে এখন তার ক্যারিয়ার সেরা বোলিংও।

টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার শুরুটাও ভালো হয়নি। দলীয় ২৬ রানেই ৪ উইকেট হারিয়ে বসে স্বাগতিকরা। ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ, মার্নাস লাবুশেন এবং মার্কাস স্টয়নিস, কেউই দুই অঙ্কের ঘরও ছুঁতে পারেননি। ফিঞ্চ তো শেষ ৭ ওয়ানডেতে তৃতীয়বারের মতো শূন্যহাতে সাজঘরে ফেরেন।

অস্ট্রেলিয়া মূলত লজ্জা এড়ায় স্টিভেন স্মিথের ব্যাটে। দলীয় সর্বোচ্চ ৬১ রান করেন তিনি। এ ছাড়াও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের ২৫ এবং মিচেল স্টার্কের ৩৮ এর ওপর ভর করে অস্ট্রেলিয়া পায় ১৯৫ রানের পুঁজি। ট্রেন্ট বোল্ট নেন ৪ উইকেট। ম্যাট হ্যানরির পকেটে উইকেট ঢোকে তিনটি।

ব্যাট হাতে সময়োপযোগী ৩৮ এবং পরে বল হাতে ২ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন স্টার্ক। সিরিজের তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডে আগামী রবিবার এই কেয়ার্নসেই হবে।

news24bd.tv/সাব্বির