জান্তা বাহিনীর ৯০টি সেনা ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বিদ্রোহীরা
জান্তা বাহিনীর ৯০টি সেনা ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বিদ্রোহীরা

রাখাইনের মংডুর একটি পুলিশ আউটপোস্ট থেকে আরাকান আর্মি কর্তৃক জব্দকৃত সমরাস্ত্র।

জান্তা বাহিনীর ৯০টি সেনা ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বিদ্রোহীরা

অনলাইন ডেস্ক

ক্ষমতা দখলের পর এখন পর্যন্ত মিয়ানমারের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ৯০টি সেনা ঘাঁটি হারিয়েছে দেশটির জান্তা বাহিনী। বিগত ১৭ মাসে দেশটির বিভিন্ন নৃ–গোষ্ঠীর সশস্ত্র সংগঠনের কাছে এসব ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে। এসব ঘাঁটির মধ্যে বেশ কয়েকটি ঘাঁটিই কৌশলগতভাবে এবং প্রয়োজনীয় অস্ত্র ও রসদ সরবরাহের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে জানানো হয়েছে মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ইরাবতী নিউজের এক প্রতিবেদনে।  

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ হারিয়েছে রাখাইন রাজ্যে।

এই রাজ্যে সর্বোচ্চ ৩৬টি ঘাঁটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে বিদ্রোহীরা। এ ছাড়া, কাচিন রাজ্যে হারিয়েছে ২০টি ঘাঁটি, সিন রাজ্যে হারিয়েছে ৩টি, কায়াহ রাজ্যে হারিয়েছে ১৯ এবং ১২টি ঘাঁটি হারিয়েছে কারেন রাজ্যে।  

মিয়ানমারের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম ইরাবতী নিউজসহ আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছে—বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর হাতে মিয়ানমারের সশস্ত্রবাহিনী নিয়মিতই নাস্তানাবুদ হচ্ছে। ইরাবতীর দেওয়া তথ্য অনুসারে, রাখাইন রাজ্যে আরাকান আর্মির হাতে মিয়ানমারের আর্মড পুলিশের ১৯ সদস্য নিহত হয় গত সপ্তাহে।

২ সেপ্টেম্বর সিন রাজ্যে বিদ্রোহীদের হাতে মারা যায় জান্তা বাহিনীর ৬০ সৈন্য। এরও আগে, ১ সেপ্টেম্বর সাগাইন রাজ্যে বিদ্রোহীদের হাতে জান্তা বাহিনীর এক কর্নেলসহ অন্তত ৩৪ জন সদস্য মারা যায়। ৩০ আগস্ট ইরাবতীর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিগত ৪৮ ঘণ্টায় বিদ্রোহীদের হাতে মারা যায় অন্তত ৩০ জান্তা সৈন্য।  

ইরাবতীর আরেকটি প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২১ সালের মাঝামাঝি থেকে গত আগস্ট পর্যন্ত বিগত ১৫ মাসে কেবল কায়াহ রাজ্যেই কারেন বিদ্রোহীদের সঙ্গে সংঘাতে ১ হাজার ৪৯৯ সৈন্যের মৃত্যু হয়েছে। বিপরীতে বিদ্রোহী যোদ্ধা মারা গেছে ১৫১ জন।  

news24bd.tv/আলী