পাকিস্তানে ‘ব্যাপক’ সাহায্যের আবেদন জাতিসংঘ প্রধানের
পাকিস্তানে ‘ব্যাপক’ সাহায্যের আবেদন জাতিসংঘ প্রধানের

সংগৃহীত ছবি

পাকিস্তানে ‘ব্যাপক’ সাহায্যের আবেদন জাতিসংঘ প্রধানের

অনলাইন ডেস্ক

ভয়াবহ বন্যায় বিপর্যস্ত পাকিস্তান। দেশটির বন্যাকবলিত অঞ্চল পরিদর্শনে গিয়েছেন জাতিসংঘ প্রধান অ্যান্তোনিও গুতেরেস। পরিদর্শনকালে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে ‘ব্যাপক’ সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন তিনি। খবর আল-জাজিরার।

প্রতিবেদনে কাতার ভিত্তিক সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, শুক্রবার সকালে বন্যাকবলিত পাকিস্তানে পৌঁছেছেন গুতেরেস। সেখানে গিয়ে দেশটির জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে ‘ব্যাপক’ সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে এক বার্তায় গুতেরেস লিখেন, ‘ভয়াবহ বন্যার পর পাকিস্তানি জনগণের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করতে আমি এখানে এসেছি। আমি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ বিপর্যস্ত দেশটির জন্য ব্যাপক সাহায্যের আবেদন করছি।

কারণ পাকিস্তান জলবায়ু বিপর্যয়ের শিকার। ’

পাকিস্তানে পৌঁছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরীফের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন গুতেরেস। এরপরেই ইসলামাবাদে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে জাতিসংঘ প্রধান বলেন, ‘প্রাথমিক অনুমান অনুযায়ী বন্যায় পাকিস্তানের প্রায় তিন হাজার কোটি ডলারের ক্ষতি হয়েছে। এ সময়ে দেশটিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের ব্যাপক আর্থিক সহায়তার প্রয়োজন। ’

ওই সংবাদ সম্মেলনে শাহবাজ শরীফ বলেন, ‘পাকিস্তানের অসীম অর্থায়নের প্রয়োজন। যতদিন পর্যন্ত আমরা পর্যাপ্ত আন্তর্জাতিক সহায়তা না পাবো ততদিনই সমস্যা থাকবেই। ’

পাকিস্তানের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী মারিয়াম আওরঙ্গজেব বলেন, ‘জাতিসংঘ প্রধানের এই সফর বিশ্বব্যাপী বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের সমস্যাগুলো তুলে ধরবে এবং জলবায়ু পরিবর্তনের পরিণতি সম্পর্কে বিশ্বকে জানাবে। ’

ভয়াবহ বন্যায় পাকিস্তানে এক হাজার ৪০০ এর মতো মানুষ মারা গেছে। ব্যস্তচ্যুত হয়েছে কয়েক লাখ লোক। স্মরণকালের বিধ্বংসী এ বন্যায় চার হাজার ৫০০ বছরের পুরোনো প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান মহেঞ্জো দারোরও ক্ষতি হয়েছে; যেটিকে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে ইউনেস্কো।

পাকিস্তানে সহায়তার জন্য ইতোমধ্যে ১৬০ মিলিয়ন ডলার সংগ্রহের জন্য একটি জরুরি আবেদন করেছে জাতিসংঘ। দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে যাওয়ার আগে নিউ ইয়র্কে এক সংবাদ সম্মেলনে গুতেরেস বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ওপর অনেকের মনোযোগ আছে। কিন্তু মানুষ ভুলে যাচ্ছে আমাদের আরেকটি যুদ্ধ আছে। আমরা প্রকৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যেভাবে জলবায়ুর পরিবর্তন করছি সেটি আমাদের গ্রহকে ধ্বংস করছে। ’

জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় অবদানকারী দেশ এবং এর প্রভাবের ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোর মধ্যে তীব্র বৈষম্য তুলে ধরেছে পাকিস্তানের এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ। বিশ্বব্যাপী গ্রিনহাউজ গ্যাস নির্গমনের এক শতাংশেরও কম উৎপাদন করে পাকিস্তান। তবে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলাফলে ভুগছে দেশটি। এমনকি দেশটি জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে রয়েছে।

মেরু অঞ্চলের বাইরে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি হিমবাহের অবস্থান পাকিস্তানে। চলতি বছরই বিভিন্ন হ্রদে হিমবাহ গলার পরিমাণ অন্য সময়ের তুলনায় তিন গুণ বেশি হয়েছে। এর সঙ্গে গত জুনের অতিবৃষ্টিতে পাকিস্তানে বন্যার দেখা দিয়েছে। ভয়াবহ এ বন্যায় দেশটির এক-তৃতীয়াংশ ভূখণ্ড তলিয়ে গেছে।

news24bd.tv/মামুন