চালের দাম বেঁধে দেয়া সম্ভব না: খাদ্যমন্ত্রী
চালের দাম বেঁধে দেয়া সম্ভব না: খাদ্যমন্ত্রী

ফাইল ছবি

চালের দাম বেঁধে দেয়া সম্ভব না: খাদ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক

দেশে উৎপাদিত চালের দাম বেঁধে দেয়া সম্ভব না বলে জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। তিনি বলেন, ‘মুক্তবাজার অর্থনীতিতে দেশে উৎপাদিত চালের দাম বেঁধে দেয়া সম্ভব না। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যেটা বলেছে দাম বেঁধে দিবে সেটা আমদানি নির্ভর চালের জন্য। ’

মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সচিবালয় ভিত্তিক সাংবাদিক সংগঠন বিএসআরএফের সংলাপে এসব কথা বলেন তিনি।

 

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই মুহূর্তে দেশে খাদ্যের ঘাটতি নেই। ঘাটতি মেটানোর জন্য বিভিন্ন দেশ থেকে খাদ্য আমদানি করা হচ্ছে। চালের সরবরাহও অনেক আছে। বাজারে চালের দাম বাড়ার কোনো কারণ নেই।

যদি দাম বৃদ্ধি পায় এটা অস্থির ব্যবসায়ীদের কারসাজি। ’

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রকৃতি অস্থির। এ দেশের ব্যবসায়ীদের মনও অস্থির থাকে। তাই জিনিসপত্রের দাম এতো উঠানামা করে। প্রতিনিয়ত এসব অস্থির ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাঞ্জা লড়তে হয় আমাদের। ’

তিনি আরও বলেন, ‘তেলের দাম বাড়ার কারণে একইসময়ে চালের দাম বাড়ল ৪-৫ টাকা। এটা ব্যবসায়ীদের অস্থির মস্তিষ্কের পরিচয়। ’

প্রত্যেক জেরায় ওএমএসের মাধ্যমে আটা বিক্রি করা হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘পহেলা অক্টোবর থেকে জেলা এবং সিটি করপোরেশনে ওএমএসের মাধ্যমে আটা বিক্রি শুরু হবে। এটা খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নাম লেখা প্যাকেটজাত মোড়কে বিক্রি করা হবে। ’

চাল বিক্রিতে আইন হচ্ছে জানিয়ে সাধন কুমার মজুমদার বলেন, ‘মোটা চালকে চিকন বানিয়ে নাম পরিবর্তন করে বিক্রি বন্ধে আইন করা হচ্ছে। এর ফলে মিনিকেটসহ যেসব নাম আছে চালের সেগুলো আর থাকবে না। ’

এ সময় ব্যবসায়ীরা উৎসাহিত হয় সাংবাদিকদের এমন খবর প্রচার না করার জন্য অনুরোধ জানান খাদ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এমন নিউজ প্রচার করবেন যাতে ভোক্তারা উৎসাহিত হয়। ’

news24bd.tv/মামুন