ফাল্গুনী পাঠকের গান রিমিক্স করে কটাক্ষের শিকার নেহা কাক্কার
ফাল্গুনী পাঠকের গান রিমিক্স করে কটাক্ষের শিকার নেহা কাক্কার

সংগৃহীত ছবি

ফাল্গুনী পাঠকের গান রিমিক্স করে কটাক্ষের শিকার নেহা কাক্কার

অনলাইন ডেস্ক

পুরনো গান রিমিক্স করে নতুনত্ব আনতে জুড়ি নেই ভারতীয় অন্যতম সংগীতশিল্পী নেহা কাক্কারের। তবে এবার ফাল্গুনী পাঠকের গাওয়া ৯০ দশকের বিখ্যাত গান ‘সাজনা’ গেয়ে সমালোচনার শিকার হতে হচ্ছে নেহা কাক্কারকে।

৯০ দশকের ছেলে মেয়েদের আবেগ ফাল্গুনী পাঠক। তার ‘সাজনা’ গানের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে কতশত প্রেমের আখ্যান।

সেই গানই এবার রিমিক্স আকারে নিয়ে আসতে চলেছেন নেহা কাক্কার। এরইমধ্যে গানের ছোট একটি অংশ প্রকাশ করা হয়েছে। সেই মিউজিক ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে ধনশ্রী চাহালকে। সম্পর্কে যিনি ক্রিকেটার যুজবেন্দ্র চাহালের স্ত্রী।
ওই গানের অংশ আসার পরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় তীব্র ট্রলের মুখে পড়তে হয়েছে নেহা কাক্কারকে। নেটিজেনদের একটা বড় অংশের অভিযোগ, ছোটবেলার যাবতীয় আবেগ নিয়ে ছিনিমিনি খেলছেন নেহা।

শ্রুতাদের অভিযোগ গোটা গান জুড়েই অটো-টিউনের বিপুল ব্যবহার হয়েছে। এরপরও শ্রুতিমধুর হয়নি গানটি। সম্পূর্ণ গানটি মুক্তি পাওয়ার কথা আজ অর্থাৎ সোমবার।

তবে এর আগেও বহুবার বহু গান রিমেক করেছেন নেহা। ইউটিউবে সেই সব গানের ভিউজ ছাড়িয়েছে মিলিয়নের উপর। কিন্তু তা সত্ত্বেও কটাক্ষ থামেনি। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেহাকে আখ্যা দেওয়া হচ্ছে ‘অটো-টিউন কুইন’ হিসেবেও। এই মুহূর্তে এক রিয়ালিটি শো-য়ের বিচারকের আসনে দেখা যাচ্ছে নেহাকে। যেখানে আবেগপ্রবণ, প্রতিযোগীদের কষ্টের কথা শুনে প্রায়শই কান্না করতে দেখা গিয়েছে তাকে। তা নিয়েও ট্রল কম হয়নি।

এ প্রসঙ্গে নেহা বলেন, ‘যারা ট্রল করে, তাদের দোষ দিতে পারি না। হতে পারে তারা আবেগপ্রবণ নন। তবে যে সব মানুষ আবেগপ্রবণ হন না, আমার কাছে তারা নিতান্তই ফেক। যারা আমার মতো সংবেদনশীল, আমি জানি তারা আমায় বুঝবেন, কেন আমি কেঁদে ফেলি তাও অনুধাবন করতে পারবেন। আমি দেখেছি বহু মানুষই অন্যের কষ্ট কিছুতেই অনুধাবন করতেই পারেন না। আমার সেই গুণ রয়েছে। আর তাই কেঁদে ফেলা নিয়ে আমার কোনও আক্ষেপ নেই। ’

news24bd.tv/আমিরুল

সম্পর্কিত খবর