ইয়াবা সেবনের ভিডিওটি এডিট করা, দাবি ছাত্রলীগ নেতার
ইয়াবা সেবনের ভিডিওটি এডিট করা, দাবি ছাত্রলীগ নেতার

ইয়াবা সেবনের ভিডিওটি এডিট করা, দাবি ছাত্রলীগ নেতার

বরগুনা প্রতিনিধি

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ইয়াবা সেবনের ভিডিওটি সুপার এডিট করা বলে দাবি করেছেন বরগুনার বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম আদনান খালিদ মিথুন। সোমবার রাত থেকে ভিডিওটি সামাজিক মাধ্যমে ছড়ালে এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হয়।

বুধবার (২১ সেপ্টেম্বর) বিকাল ৫টায় বরগুনা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন তিনি। এর আগে মঙ্গলবার (২০ সেপ্টেম্বর) মোবাইল ফোনে ইয়াবা সেবনের বিষয়টি ছাত্রলীগ সভাপতি মিথুন নিজেই নিশ্চিত করে বলেছিলেন, এটি ৫/৬ বছর আগে শীতের সময় তোলা ছবি।

 সে সময়ে তিনি জানান, কয়েকজন বন্ধুবান্ধব মিলে ভুলবশত সেবন করেছিলাম। আমি এখন কোন মাদকদ্রব্য সেবন করি না।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আদনান খালিদ। লিখিত বক্তব্যে বিএম আদনান খালিদ বলেন, আমার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা আমার সুনাম ক্ষুণ্ণ করতে এই ষড়যন্ত্র করেছে।

যে ছবিগুলো ছড়িয়েছে তা সুপার এডিট করা। আমার স্থির চিত্রগুলো ভিডিও রূপান্তরিত করা হয়। আপনারা চাইলে আমি ডোপ টেস্ট করাতে পারি।

আদনান খালিদ আরও বলেন, যারা আমার বিরুদ্ধে এমন গুজব রটিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে সাইবার ক্রাইমে মামলা করবো। এবং এডিট করা ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বেতাগী উপজেলা বুড়ামজুমদার ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন ইমন, কাজিরাবাদ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আল-আমিন, বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক মারুফ মিরাজ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের একাধিক নেতাকর্মী বলেন, বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আদনান খালিদ মিথুন শুধু মাদকসেবীই না তিনি মাদকের ব্যবসার সাথেও জড়িত। ছাত্রলীগের সভাপতি পদের প্রভাব খাটিয়ে তিনি দীর্ঘদিন যাবত এসব কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন। নতুন কেউ উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসুক সে তা চায় না। তাই সে দীর্ঘদিন যাবত সভাপতির পদ দখল করে আছে। কমিটি হয়েছে ৫ বছর অতিক্রম করলেও এখনো পর্যন্ত সম্মেলন হতে দিচ্ছে না। এতে করে নতুন নেতৃত্ব প্রষ্ফুঠিত হওয়ার আগেই ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বিএম আদনান খালিদ মিথুন বেতাগী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি প্রয়াত আলতাফ হোসেন বিশ্বাসের ছেলে। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে মিথুনের বাবা আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন। এর পর থেকেই মিথুনের ছাত্রলীগের রাজনীতিতে উত্থান শুরু হয়। সবশেষ ২০১৭ সালে বেতাগী উপজেলা ছাত্রলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে মিথুন সভাপতি নির্বাচিত হয়। এই কমিটি মেয়াদ অতিক্রম করে ৫ বছর যাবত দায়িত্ব পালন করছে।

গতকালের মোবাইল ফোনে দেওয়া বক্তব্য ও আজকের সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্যের সাথে গড়মিলের বিষয়ে জানতে চাইলে আদনান খালিদ মিথুন বলেন, ঘটনার আকস্মিকতায় আমি কি বলেছি আমার ঠিক মনে নেই। তবে আমি ভেবেছিলাম আমাদের একটা ফান ভিডিও আছে আপনি সেটার কথা জিজ্ঞেস করেছেন তাই আমি বলেছি এটা আমার ভিডিওই।

তিনি আরও বলেন, আমি কখনো মাদক সেবন করি নাই। প্রয়োজনে আমি ডোপ টেস্ট করাতেও প্রস্তুত আছি। যদি আমার শরীরে মাদকের কোন উপস্থিতি পাওয়া যায় তাহলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দিবো।

news24bd.tv/FA

এই রকম আরও টপিক