অবৈধ কাণ্ডে অনেক আগেই শেষ হতে পারত আফ্রিদির ক্যারিয়ার
অবৈধ কাণ্ডে অনেক আগেই শেষ হতে পারত আফ্রিদির ক্যারিয়ার

সংগৃহীত ছবি

অবৈধ কাণ্ডে অনেক আগেই শেষ হতে পারত আফ্রিদির ক্যারিয়ার

অনলাইন ডেস্ক

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে শহীদ আফ্রিদি বিদায় বলেছেন ২০১৮ সালে। এর আগে একাধিকবার অবসরের ঘোষণা দিলেও, ফিরে আসার নজির ছিল তার। তবে ২০১৮ এরপর আর নাটকীয় কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটাননি তিনি। যদিও এর অনেক আগেই ইতি পড়ে যেতে পারত আফ্রিদির আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে!

ঘটনা ২০০৫ সালের।

ফয়সালাবাদে পাকিস্তান-ইংল্যান্ড টেস্টে পিচ টেম্পারিং কাণ্ডে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন আফ্রিদি। এক টেস্ট ও দুই ওয়ানডে থেকে তাকে নিষিদ্ধ রাখে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। তবে সে সময় আফ্রিদিকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, এরকম কাণ্ড ফের ঘটালে তার আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যাবে।

দীর্ঘ ১৭ বছর পর পিচ টেম্পারিং কাণ্ড নিয়ে মুখ খুলেছেন পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক।

সামা টিভির অনুষ্ঠানে এসে তিনি জানিয়েছেন, সেদিনের ঘটনায় পরিকল্পনা এসেছিল তার মাথাতেই। আর সেই অবৈধ কাজে তাকে উৎসাহ ও প্ররোচনা দিয়েছিলেন শোয়েব মালিক।

ফয়সালাবাদ টেস্টের স্মৃতিচারণা করে আফ্রিদি বলেন, ‘বল টার্ন করছিল না, সুইংও করছিল না। খুবই বিরক্তিকর লাগছিল। আমরা পুরো শক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েও উইকেট ফেলতে পারছিলাম না। তারপর হঠাৎ মাঠের বাইরে একটা সিলিন্ডার গ্যাস বিস্ফোরণ ঘটল। সবাই যখন ওদিকে মনোযোগী, আমি তখন মালিককে বললাম, আমার মন চাচ্ছে পিচে পাড়া দিই, তাহলে বল টার্ন করবে। ’

গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে তখন সবার মনোযোগ ছিল মাঠের বাইরে। মালিক এরপরই প্ররোচনা দেন আফ্রিদিকে। এই অলরাউন্ডার বলছিলেন, ‘মালিক বলল, করে ফেলো। এখন কেউ দেখবে না। তারপর আমি সেটাই (টেম্পারিং) করলাম। এরপর তো ইতিহাস। ’

পিচ টেম্পারিংয়ের মতো অবৈধ কাজে শাস্তির পর নিজের ভুল বুঝতে পারেন আফ্রিদি। পরবর্তী সময়ে এমন কাজ করার আর দুঃসাহস করেননি তিনি। এ ছাড়াও সেই ঘটনার জন্য অনুতপ্তও তিনি, ‘এখন যখন পেছন ফিরে তাকাই, বুঝতে পারি, ভুল করেছি সেদিন। ’

ফয়সালাবাদের সেই ম্যাচটি ড্র হয়েছিল। পাকিস্তান প্রথম ইনিংসে ৪৬২ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ৯ উইকেটে ২৬৮ রান তুলেছিল। ইংল্যান্ড প্রথম ইনিংসে ৪৪৬ রানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ৬ উইকেটে ১৬৪ রান তুললে পঞ্চম দিনের খেলা শেষ হয়ে যায়। ম্যাচ সেরা হয়েছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক ইনজামাম উল হক।

news24bd.tv/সাব্বির